সাধারণত মানুষের বাসস্থানের ব্যবস্থা হলে সাথে সাথে তাঁরা খ্যাদের সন্ধানে নেমে পরেন। তেমনি মহাকাশে ঘর বানানোর সাথে সাথে মহাকাশ বিজ্ঞানী, প্রযুক্তিবিদ ও চলচিত্র নির্মাতাটা খাদ্যের সন্ধানে নেমেছেন। হলিউডের বিশ্বখ্যাত সায়েন্স ফিকশন চলচ্চিত্র ‘দ্য মারশিয়ানে’ অভিনেতা ম্যাট ডেমন মঙ্গলগ্রহে বেঁচে থাকার জন্য মঙ্গলের মাটিতে আলুর চাষ করেন। সেটা দেখে অনেকেই ভেবেছেন ঐ আলুর স্বাদ কেমন হবে? নেদারল্যান্ডের একদল বিজ্ঞানী এই প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জোগাড় করেছেন। মঙ্গলের মাটিতেই তারা চাষ করেছেন সবজি।

ওয়াগেনিনজেন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক ঘোষণা দিয়েছেন, মঙ্গলের মাটিতে তারা গত ২ বছর ধরে যে সমস্ত শাকসবজি ও শস্যকণা উৎপাদন করেছেন সেটা মানুষের খাওয়ার জন্য নিরাপদ ও উপযোগী।যদিও এই সবজি আসলে মঙ্গলগ্রহে চাষ হয়নি। বিজ্ঞানীরা মঙ্গলের মাটির অনুকরণে উপাদান ঠিক রেখে কৃত্রিম লাল মাটি তৈরি করেছেন।সেখানে পর্যাপ্ত মূলা, ডাল, শস্য ও টমেটো ফলানো হয়েছে।এছাড়াও রয়েছে কয়েক রকমের সবজি।মূলার স্বাদ পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হবে এই সমস্ত সব্জির স্বাদ পরীক্ষা করা এবং পৃথিবীর মাটির সাথে পার্থক্য তুলনা করা। গবেষকরা ব্যাপারটা নিয়ে খুবই আশবাদি। পৃথিবীর অনেক মহাকাশ বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তিবিদরা ২০২৫ সালের মধ্যে মঙ্গলে মানুষের বসতি গড়ে তুলতে চান। তার মধ্যে রয়েছে স্পেস-এক্স এর প্রধান কার্যনির্বাহী ইলন মাস্ক। তিনি বলেছেন, এই গবেষণায় মানুষের মঙ্গল অভিযান আরও মঙ্গলময় হবে।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here