জাহাজঃ সাগরে বিস্ময়

১৯৮৫ সালে টাইটানিকের ধ্বংসাবশেষ প্রাপ্তি গভীর পানির নিচের অন্যতম একটি রহস্যের সমাধান হয়ে আছে। কিন্তু এমন অনেক রহস্য রয়েছে যা এখনো সমাধান হয় নি। এই রহস্যগুলো নিয়েই ছয় পর্বের ফিচারের প্রথম পর্ব আজ দেয়া হলঃ

আমেরিকার আবিষ্কারক ক্রিস্টোফার কলম্বাসের নাম আমরা সবাই জানি। কলম্বাস তার বিশ্ব ভ্রমণ করার মিশন তিনটি জাহাজ নিয়ে শুরু করেছিলেন- নিনা, পিন্টা ও সান্টা মারিয়া। কিন্তু স্পেনে নিরাপদে মাত্র দুটি জাহাজই পৌছতে পেরেছিল। ১৪৯২ সালের ক্রিস্টমাসের এক রাতে সান্টা মারিয়ার নাবিক জাহাজের হাল তুলে দিয়েছিলেন এক অদক্ষ কেবিন বালকের হাতে। সে বালক অপটু হাতে জাহাজকে চালনা করে হাইতির কাছাকাছি একটি কোরাল রীফে নিয়ে যায়। জাহাজটি প্রবালের সাথে সংঘর্ষে দ্রুতই ডুবতে বসে। জাহাজে যত মাঝি ছিল তারা স্থানীয়দের সাহায্যে পাড়ে উঠে পরে কিন্তু জাহাজটি আর বাঁচানো যায় না। গভীর অতলে জাহাজটি ডুবে যায়। তখন থেকেই এটি একটি অনাবিষ্কৃত রহস্য হয়ে আছে। এর কারণ হচ্ছে, সান্টা মারিয়ার দেহাবশেষ আর কখনোই পাওয়া যায় নি।

gettyimages-90745453-e

 

 

 

 

 

 

 

 

২০১৪ সালে একটি দাবি ওঠে যে সান্টা মারিয়াকে পাওয়া গিয়েছে কিন্তু ইউনেস্কো তাদের গবেষক টিম প্রেরণ করে দেখে যে সেটি সান্টা মারিয়া ছিল না। ১৭শ কিংবা ১৮ শতকের একটি অন্য জাহাজ ছিল সেটি।

সূত্রঃ History.com

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.