অনেক দিন থেকে চেস্টা করছি, কিন্তু কিছুই লিখতে পারছি না। ইমতিয়াজ ভাই বললেন, ‘রাইটারস ব্লক’ কি জানি ভাই, আমিতো বড় কোন লেখক না যে আমার ‘রাইটারস ব্লক’ এ ধরবে। যাই হোক, লিখার চেস্টা করছি কিছু। আজকে আমি আপনাদের সামনে নিয়ে আসব পুরাতন দিনের কিছু পিডিএ। আমার সংগ্রহে তেমন কোন পিডিএ নেই। যে কয়েকটা আছে, সে গুলোকেই এখানে নিয়ে আসলাম।

পাম এম ১০০ (Palm m100):

Palm m-100

প্রথম দিক কার পিডিএ –র কথা বলতে গেলে পাম এম১০০ এর কথা প্রথমেই আসবেই। ২০০০ সালের অগাস্ট মাসে প্রথম বের হওয়া এই পিডিএ টি, ১৬ মেগা হার্জ এর মটোরোলা ই যেড ড্রাগনবল প্রসেসর এ চলত। এর র‍্যাম ছিল মাত্র ২ মেগাবাইট। ৪.৬৬ ইঞ্চি লম্বা, ৩.১০ ইঞ্ছি প্রস্থ এবং ০.৭২ ইঞ্ছি পুরু এই এম ১০০ পিডিএ টি দুটি পেন্সিল ব্যাটারির মাধ্যমে এর পাওয়ার সংগ্রহ করত।

পাম পাইলট প্রো (Palm Pilot Professional) :

Palm Pailot

১৯৯৭ সালের ১লা মার্চ প্রথম বের হয় পাম পাইলট প্রো।এটা ছিল, পাম পাইলট ৫০০০ এর একটি আপগ্রেড ভার্সন।এই পিডিএ টি, ১৬.৫৮ মেগা হার্জ এর মটোরোলা ৬৮৩২৮ ড্রাগনবল প্রসেসর এ চলত। এর র‍্যাম ছিল মাত্র ১ মেগাবাইট।স্ক্রীন রেসুলেশন ১৬০X১৬০। ৪.৬ ইঞ্চি লম্বা, ৩.২ ইঞ্ছি প্রস্থ এবং ০.৭২ ইঞ্ছি পুরু এই পিডিএ টি দুটি AAA ব্যাটারির মাধ্যমে এর পাওয়ার সংগ্রহ করত, যা একে ৩০ ঘন্টা পর্যন্ত চালাতে সক্ষম ছিল। এর অপারেটিং সিস্টেম ছিল, পাম ওএস ২.০।

পাম এম ৫০০ (Palm m500):

DSC05161

৬ই মার্চ ২০০১ সালে প্রথম বাজারে আসে এই, পাম এম ৫০০। ৩৩ মেগাহার্জ এর মটোরোলা ড্রাগনবল যেডভি প্রসেসর এর এই পিডিএ তে ৮ মেগাবাইট এর র‍্যাম ছিল। এর স্ক্রীন রেসুলেশন ছিল, ১৬০X১৬০ পিক্সেল ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইট। ৪.৪৯ ইঞ্চি লম্বা, ৩.০২ ইঞ্ছি প্রস্থ এবং ০.৪৬ ইঞ্ছি পুরু এই পিডিএ টি ইন্টারনাল লিথিয়াম পলিমার –রিচার্জেবল ব্যাটারির মাধ্যমে চলত। এর অপারেটিং সিস্টেম ছিল, পাম ওএস ৪.০।

কমপ্যাক আই প্যাক ৩৬৩০ (Compaq iPAQ 3630):

DSC05160

জুন ২০০০ সালে প্রথম বাজারে আসে কমপ্যাক আই প্যাক ৩৬৩০। উইন্ডোজ পকেট পিসি ২০০০ অপারেটিং সিস্টেম এ চলা এ পিডিএ টি। এতে ছিল, ৩২ মাগাবাইট র‍্যাম এবং ১৬ মেগাবাইট রম। এর ইন্টেল স্ট্রং আর্ম এস এ ১১১০ (৩২ বিট) প্রসেসর টি ২০৬ মেগাহার্জ স্পীড এ কাজ করত।এর ডিসপ্লে ছিল, কালার রিফ্লেক্টিভ টি এফ টি (Thin Film Transisot) এল সি ডি, যাতে ২৪০X৩২০ পিক্সেলে ছবি দেখা যেত। ৫.১১ ইঞ্চি লম্বা, ৩.২৮ ইঞ্ছি প্রস্থ এবং ০.৬২ ইঞ্ছি পুরু এই পিডিএ টি এর ভেতরে থাকা, ৯৫০mAh লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি প্রায় ১২ ঘন্টা কাজ করত।

বিঃদ্রঃ ১। আমি আমার এ পোস্টটি তে সে সমস্ত পিডিএ এর কথা  বলার চেষ্টা করেছি, যে গুলো আমার সংগ্রহে আছে ।

২। ছবি গুলো সমস্ত নেয়া হয়েছে http://computer-museum.110mb.com থেকে details নেয়া হয়েছে বিভিন্ন ওয়েব সাইট থেকে।

comments

11 কমেন্টস

  1. বর্তমানে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মোবাইল ফোনগুলোর কারনে পিডিএ বিলুপ্ত হতে চলেছে। তবে আমার প্রশ্ন হচ্ছে এইসব দূর্লভ জিনিস কোথা থেকে সংগ্রহ করেছেন ❓ সত্যি অবাক করার মত

    • পাম এম ১০০ আর পাম পাইলট আমার দুই বন্ধু আমার মিউজিয়াম এ দিয়েছে…… বাকি দুইটা ভাঙ্গারির দোকান থেকে ……।:)

  2. পিডিএ গুলোর অনেক দাম ছিল সেই সময়ে। অথচ কনফিগারেশন 😛

  3. Mr. রিয়াজুল হাশেম

    Amar motamot musa falun

    Toba apnor PDA post khub bhalo lagsa…

    Thanks

    • নাযমুল ভাই …… মতামত কেন মুছে ফেলতে বললেন ঠিক বুঝলাম না ……
      আপনার কাছে ভাল লেগেছে জেনে আমারও ভাল লাগল।

  4. I just want to mention I am newbie to blogs and seriously loved you’re web page. More than likely I’m going to bookmark your website . You definitely come with superb articles. Thank you for revealing your website page.

  5. *I am really loving the theme/design of your web site. Do you ever run into any browser compatibility problems? A few of my blog readers have complained about my website not working correctly in Explorer but looks great in Chrome. Do you have any tips to help fix this issue?

  6. You actually make it seem really easy along with your presentation but I in finding this matter to be really one thing which I believe I would by no means understand. It kind of feels too complex and very large for me. I’m taking a look ahead to your subsequent post, I will attempt to get the hang of it!

  7. We are a group of volunteers and opening a new scheme in our community. Your web site provided us with valuable info to work on. You’ve done an impressive job and our whole community will be thankful to you.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.