গত পর্বেই আমি আপনাদের বলে দিয়েছিল, আপনাদের কে ভালো থাকতে দিচ্ছি না !!!! আর এরই ধারাবাহিকতায়, আজ আমি আপনাদের সাথে, আমার সংগ্রহে থাকা আরো কিছু গ্রাফিক্স কার্ড এর তথ্য শেয়ার করতে যাচ্ছি। গত পর্বে আমরা দেখেছিলাম, XFX 8400GS, Gigabyte 8500GT, ASUS 8600GT, Nvidia GeForce 7800GTX এবং Nvidia GeForce 7900GTX কার্ড গুলো, আর আজকে…

এনভিদিয়া’র 8800GT ঃ
আমার আগের পর্বেই রেফারেন্স কার্ড এর কথা জেনেছেন। এটা এনভিদিয়ার আরো একটি রেফারেন্স মডেল;

গ্রাফিক্স ইঞ্জিনঃ G92
মডেলঃ NVIDIA GeForce 8800 GT
কোর ক্লকঃ 600 MHz
মেমোরিঃ 512 MB
মেমোরি ইন্টারফেসঃ 256-bit

এনভিদিয়া’র 8800GTXঃ
সত্যি করে বলতে গেলে, আমি আমার সংগ্রহে যে আধুনিক গ্রাফিক্স কার্ড একেবারেই নেই, একথা ভুলেই বসেছিলাম। হঠাৎ করে একদিন জানতে পারলাম, একজন তার ব্যবহৃত 8800GTX কার্ড টি বিক্রি করবে। বলা বাহুল্য কার্ড টি নষ্ট। আমি তার সাথে যোগাযোগ করলাম, উনি যে দাম বললেন, শুনে তো আমার মাথায় বাড়ি… আমি নিতে পারব না, এটা তাকে বললাম, এবং বিশেষ ভাবে তাকে আমার সাইট টি দেখার জন্য অনুরোধ করলাম। তো অনেক দিন কোন খবর নাই, এরপরে একদিন একটা ফোন পেলাম, উনি বললেন, “ভাই, দুঃখিত, আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারি নি, আপনি এসে আমার কার্ড টি নিয়ে যান।” আমি বললাম যে এত দাম দিয়ে আমি কার্ড টি নিয়ে পারছি না। উনি তার পরে বললেন, তবুও যেন আমি একটু যাই। তো আমি গেলাম, উনি আমাকে 8800GTX কার্ড টি আমাকে একেবারে নাম মাত্র মূল্যে দিয়ে দিলেন। আসুন কার্ডটি দেখি;

গ্রাফিক্স ইঞ্জিনঃ G92
মডেলঃ NVIDIA GeForce 8800 GTX
কোর ক্লকঃ 575 MHz
মেমোরিঃ 768 MB
মেমোরি ইন্টারফেসঃ 384-bit

XFX এর তৈরি এনভিদিয়া জি- ফোর্স চিপ সেট এর GTS 250:
একদিন অফিস থেকে বের হয়ে এলিফেন্ট রোড এর কম্পিউটার এর দোকান গুলোতে ঘোরা ঘুরি করছিলাম। হঠাৎ একটি দোকানে XFX এর তৈরি এনভিদিয়া জি- ফোর্স চিপ সেট এর GTS 250 কার্ড টি দেখে চোখ আটকে গেল। দোকানদার এর কাছে কার্ড টি দেখতে চাইলাম। উনি বললেন, কার্ড টি নষ্ট… আমাকে আর পায় কে … নষ্ট ? তাই তো আমার দরকার। ব্যাস কিনে ফেললাম …

গ্রাফিক্স ইঞ্জিনঃ G92
মডেলঃ XFX-GeForce GTS250
কোর ক্লকঃ 738 MHz
মেমোরিঃ 1024 MB – DDR3
মেমোরি ইন্টারফেসঃ 256 bit

XFX এর তৈরি এনভিদিয়া জি- ফোর্স চিপ সেট এর GTX 460:
এটা নিয়ে আর কি বলব ? আমি আমার আগের পোস্ট এ আটার কথা সব বলেই দিয়েছি।

গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট মডেলঃ জিএফ ১০৪ (GF104)
গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট স্পীডঃ ৬৭৫ মেগাহার্জ
কুডা (CUDA) কোরঃ ৩৩৬
Shader: ১৩৫০ মেগাহার্জ
ভিডিও মেমোরিঃ ১০২৪ মেগাবাইট, ডিডিআর ৫ (DDR5) – ২৫৬ বিট
পাওয়ারঃ ১৬৫ ওয়াট
এস এল আই (SLI)ঃ ১ টি

আজ তাহলে এ পর্যন্তই থাক। পোস্ট দুটিতে আপনারা দেখেছেন, আমার এনভিদিয়ার কার্ড গুলো, আগামী পর্বে আমার রেডিওনের কার্ড গুলো (যদিও আছেই মাত্র তিন টি) আপনাদের দেখাবো।আশা করি আমার সংগ্রহে থাকা কার্ড গুলো আপনাদের ভালো লেগেছে।

comments

8 কমেন্টস

  1. চ্রম পোস্ট। পুত্তুম পিলাচ।
    অনেক অনেক ধন্যবাদ। :mrgreen:

    • ভাই এগুলা ঠিক করার কুন বেবস্থা নাই ❓ 😥
      আর নষ্ট গ্রাফিক্স কার্ডও দাম দিয়া কেনা লাগে? আমি হৈলে এমনিই দিয়া দিতাম ❗
      কটকটি খাওয়ার চেয়ে কারও মিউজিয়ামে দান করা ভাল। 😆

      • অনেক ধন্যবাদ ভাই। তবে সমস্যা হচ্ছে, সবাই আপনার মতন করে চিন্তা করে না 🙁 । আপনার মতন করে চিন্তা করলে আমার সংগ্রহ আজকে অনেক অনেক বিশাল আকার ধারন করতে পারত… তবে এ নিয়ে আমার কোন আক্ষেপ নেই… আমার কাছে যা আছে তাই বা কম কিসের ???

        ভালো থাকবেন।

        • রিয়াজ ভাই, আপনের কথাও ঠিক; যার যেটা আছে সেটা নিয়েই খুশি থাকা উচিৎ। কিন্তু আমাদের এধরণের মন-মানসিকতার পরিবর্তন দরকার বলে আমি মনে করি। আমার তো চিন্তা করতেই লজ্জা লাগে; একটা নষ্ট জিনিস! সেটা একজনের দরকার অথচ আমার দরকার নেই , সেটার জন্য কীভাবে টাকা চাইতে পারি?

          আমার বড় ভাই আগে এসব নিয়ে ঘাটাঘাটি করত তাই বাসায় নষ্ট অনেক ধরনের পুরোন আমলের মাদার্বোর্ড, র‍্যাম, পাওয়ার সাপ্লাই ছিল। বাসার জায়গা শুধু শুধু নষ্ট করায় বাধ্য হয়ে অগুলো কাগজওয়ালার কাছে বেচে দিতে হয়।

          আপনাকে আগে পেলে বলতাম বাসায় একদিন সময় করে আসেন, চা-নাস্তা খেয়ে ওগুলো নিয়ে আপনার জাদুঘরকে একটু সমৃদ্ধ করুন এবং আমাদেরকেও বাঁচান। যাই হোক, সে উপায় এখন নেই।

          মনের দুঃখে অনেক কিছু বললাম বলে কিছু মনে করবেন না। আপনিও ভাল থাকুন। ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.