চলছে বিভিন্ন দেশের সংরক্ষিত অঞ্চলসমূহের ছবির তোলার প্রতিযোগিতা ‘উইকি লাভস আর্থ ২০১৮’ পর্ব। উন্মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়ার উদ্যোগে প্রতি বছর একটি স্থায়ী সংগ্রহশালা তৈরি করার উদ্দেশ্যে ও সংশ্লিষ্ঠ অঞ্চলসমূহকে বিশ্বদরবারে উপস্থাপনের জন্য এ আন্তর্জাতিক ছবি তোলার প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগিতাটি আয়োজন করে মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়ার তত্ত্বাবধানকারী স্থানীয় সংস্থাগুলো। বাৎসরিক এ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ এ বছর দ্বিতীয়বারের মত অংশগ্রহণ করছে। বাংলাদেশে এ প্রতিযোগিতাটি আয়োজন করছে ‘উইকিমিডিয়া বাংলাদেশ’।

এই প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের যে কেউ অংশ নিতে পারবেন। প্রতিযোগিতা পাতায় দেয়া বাংলাদেশের সংরক্ষিত অঞ্চলের তালিকা থেকে যে কোনো সময় তোলা, যেকোনো স্থানের ছবি যত খুশি আপলোড করা যাবে পুরো মে মাস জুড়ে। প্রতিযোগিতাটি চলবে ৩১ মে পর্যন্ত। প্রতিযোগিতা শেষে অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দেশ থেকে প্রাপ্ত সেরা ১০টি করে ছবি থেকে আন্তর্জাতিক বিজয়ী ঘোষণা করা হবে। আন্তর্জাতিকভাবে সেরা দশটি ছবিকে পুরস্কৃত করা হবে। প্রথম পুরস্কার বিজয়ী ২০১৯ সালে সুইডেনে অনুষ্ঠেয় উইকিপিডিয়ার বার্ষিক সম্মেলন ‘উইকিম্যানিয়ায়’ যোগ দেওয়ার সুযোগ পাবেন। এছাড়া স্থানীয় পর্যায়ে ও সতন্ত্রভাবে পুরস্কার প্রদান করা হবে।

গত বছরের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশে অঞ্চলে প্রথম এবং আন্তর্জাতিক ভাবে ১১তম হওয়া ছবি। ছবি: পল্লব কবির, সিসি-বাই-এসএ ৪.০

উইকিমিডিয়া বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার সমন্বয়ক নাহিদ সুলতান জানান, ‘বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংরক্ষিত জাতীয় উদ্যান, বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যগুলোর নিবন্ধ উইকিপিডিয়াতে থাকলেও অধিকাংশেরই কোনো ছবি নেই। এ প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন দেশ থেকে প্রাপ্ত প্রাকৃতিক অঞ্চলগুলোর ছবি উইকিপিডিয়ার মাধ্যমে বিশ্বদরবারে উপস্থাপন ও সংশ্লিষ্ট ছবিসমূহের একটি স্থায়ী সংগ্রহশালা তৈরি করাই আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য।’

প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে অংশগ্রহণের জন্য উইকি লাভস আর্থ ২০১৮ ঠিকানায় গিয়ে ছবি আপলোড করতে হবে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ২০১৭ সালে প্রথমবারের মত অংশ নিয়েই লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের একটি ছবি ৩৬টি দেশের ১ লক্ষ ৩১ হাজার ছবির সাথে প্রতিযোগিতা করে ১১তম স্থান দখল করেছিলো।

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.