কিভাবে নিজের দক্ষতা প্রকাশ করবেন?

১) প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন : যদি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী হন, তাহলে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতাগুলোতে নিয়মিত অংশগ্রহন করতে পারেন। এসিএম আইসিপিসি’র ঢাকা রিজিওনাল প্রতিযোগিতায় শীর্ষ দুই বা তিনটি দলের মধ্যে থাকলে গুগল বা ফেসবুকে ইন্টারভিউ দেওয়ার জোরালো সম্ভাবনা তৈরি হয়। কম্পিউটার সায়েন্সে নাকি ফিজিক্সে পড়েন, সেটি নিয়ে তাদের মাথাব্যাথা থাকবে না। আরেকটি সুবিধা হবে, দেশের শীর্ষ প্রোগ্রামারদের সাথে জানাশোনা হবে।

২) প্রোগ্রামিং ব্লগ : প্রোগ্রামিং বিষয়ক ব্লগ লিখতে পারেন। প্রতিদিন প্রোগ্রামিং করতে গিয়ে নিজে যা শেখেন, সেগুলো লিখে রাখতে পারেন নিজের ভাষায়। কোনো সমস্যায় পড়লে কিভাবে সেই সমস্যার সমাধান করলেন, সেটিও লিখে রাখতে পারেন। এতে অন্যরা যেমন উপকৃত হবে, তেমনি নিজের একটি পরিচিতি তৈরি হবে এবং সিভিতে নিজের ব্লগের লিঙ্ক দিয়ে দেওয়া যাবে। এতে যিনি আপনার ইন্টারভিউ নিবেন, তিনি সেটি দেখে আপনার দক্ষতা সম্পর্কে খানিকটা ধারণা পাবেন। কিন্তু খবরদার, নিজের ব্লগে অন্যের লেখা চুরি করবে না!

৩) ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরি : নিজে বিভিন্ন ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করে সেগুলো ইন্টারনেটে হোস্ট করে রাখতে পারেন। আর নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে সবকিছু সাজিয়ে রাখুন, এটাকে পোর্টফোলিও (Portfolio) বলে। আপনি কোন লেভেলের ওয়েব ডেভেলাপার, সেটা পোর্টফোলিওই বলে দেবে।

৪) মোবাইল অ্যাপ : যদি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করতে পারেন, তাহলে নিজে নিজে কিছু আইডিয়া বের করে, বা অন্যের আইডিয়া দেখে কয়েকটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন বানিয়ে ফেলুন এবং হোস্ট করে রাখুন। আর ইন্টারভিউ দেওয়ার সময় একটি অ্যান্ড্রয়েড (বা আইফোন, যে যেই প্ল্যাটফর্মে কাজ করেন) মোবাইল সাথে রাখবে যেখানে নিজের তৈরি অ্যাপগুলো ইনস্টল করা থাকবে।

৫) বিভিন্ন ফোরামে অংশগ্রহন : বিভিন্ন ফোরামে কিংবা গ্রুপে মাঝে-মধ্যে সময় দিন। সেখানে অন্যরা যেসব সমস্যা দিয়ে সাহায্য চেয়েছে, সেগুলো সমাধান করে দিন । এতে নিজের দক্ষতা যেমন বাড়বে, তেমনি অন্য প্রোগ্রামারদের নজরেও চলে আসা যায়।

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.