সবুজ কারখানাঃ পরিবেশের জন্য যা প্রয়োজন

পরিবেশ বান্ধব বলতে আসলে কি বোঝায়? এমন একটি পরিস্থিতি যাতে পরিবেশের কোন ক্ষতি হয় না। কিন্তু যদি বলি পরিবেশ বান্ধব গার্মেন্টস শিল্প কিংবা কারখানার কথা? আপনার চোখে নিশ্চয়ই ভাসছে এমন কোন দৃশ্য, যেখানে গল গল করে বের হচ্ছে কালো ধোঁয়া। পরিবেশ বিজ্ঞানীরা চিন্তিত মুখে সভা সেমিনার করছেন কিংবা পরিবেশের ক্ষয়-ক্ষতি নিয়ে আপনিও হয়ে পড়েছেন চিন্তিত? জানেন কি, পৃথিবীর সেরা তিনটি পরিবেশ বান্ধব গার্মেন্ট ও টেক্সটাইল ফ্যাক্টরী বাংলাদেশে অবস্থিত?বিশ্বের চাহিদার সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশেও তৈরি হচ্ছে পরিবেশ বান্ধব কারখানা বা Green Industry।এনভয় টেক্সটাইল, রেমি হোল্ডিংস ও প্লামি ফ্যাশন- এই তিনটি গার্মেন্ট ও টেক্সটাইল কারখানা বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশকে নিয়ে গিয়েছে একটি অনন্য উচ্চতায়।

এনভয় টেক্সটাইল হচ্ছে বিশ্বের মাঝে প্রথম সবুজ কারখানা যা ডেনিম পণ্য প্রস্তুত করে। রেমি হোল্ডিং সবুজ গার্মেন্ট কারখানা হিসেবে রয়েছে সবচেয়ে উঁচু অবস্থানে এবং সবুজ নীটওয়্যার কারখানা হিসেবে প্লামি ফ্যাশনের অবস্থান প্রথম।

এনভয় টেক্সটাইলের অবস্থান ময়মনসিংহে এবং বাকি দুটোর অবস্থান নারায়নগঞ্জ।

রানা প্লাজা ধসের পর বাংলাদেশের নিটওয়্যার ও গার্মেন্ট শিল্পে কিছুটা ভাটা পড়েছিল। কারণ, যারা প্রধানত কাপড় কিনত বাংলাদেশ থেকে, তারা আস্থা হারিয়ে ফেলেছিল। এ নিয়ে বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশকে কড়া সমালোচনাও শুনতে হয়। তাই বাংলাদেশের যারা নীটওয়্যার ও গার্মেন্ট কারখানার মালিক, তারা এখন ঝুঁকছেন সবুজ কারখানা তৈরির পেছনে।

এনভয় টেক্সটাইলস লগ্নি করেছে ১৪ বিলিয়ন টাকা, রেমি হোল্ডিংস ১.২ বিলিয়ন এবং প্লামি ফ্যাশন লগ্নি করেছে ২.৪ বিলিয়ন টাকা। এই কোম্পানিগুলো কার্বন নিঃসরণ কমিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধি করেছে, গ্যাস অপচয় কম করেছে।

বাংলাদেশের কারখানাগুলোর মালিকরাও এখন পরিবেশ নিয়ে বেশ চিন্তিত। যার ফলশ্রুতিতে দেশে প্রায় ১০০টি সবুজ কারখানা নির্মানাধীন।

সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রযুক্তি ব্লগ

 

 

 

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.