আগামী ২০২১ সালে অনুষ্ঠেয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিশ্ব সম্মেলন  ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অব ইনফরমেশন অন টেকনোলজির আয়োজন করবে বাংলাদেশ।  বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত নিলামে অংশ নিয়ে দ্য ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিসেস অ্যালায়েন্স (উইটসা) আয়োজিত সম্মেলনের ২৫ তম আসরের আয়োজক মনোনীত হয়।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির  সভাপতি এ এইচ এম মাহফুজুল আরিফ বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসা খাতের সংগঠনগুলোর আন্তর্জাতিক জোট উইটসার বাংলাদেশী প্রতিনিধিত্বকারী একমাত্র সংগঠন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস)। গত বছর ০৮ ডিসেম্বর উইটসা চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান সান্তিয়াগো গুতিয়ারেজের ২০২১ সালে বিশ্ব তথ্যপ্রযুক্তি সম্মেলনের আয়োজক বাংলাদেশ।
WITSA
আগামী ২০২১ সালে অনুষ্ঠেয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিশ্ব সম্মেলন  ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অব ইনফরমেশন অন টেকনোলজির আয়োজন করবে বাংলাদেশ।  বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত নিলামে অংশ নিয়ে দ্য ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিসেস অ্যালায়েন্স (উইটসা) আয়োজিত সম্মেলনের ২৫ তম আসরের আয়োজক মনোনীত হয়।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির  সভাপতি এ এইচ এম মাহফুজুল আরিফ বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসা খাতের সংগঠনগুলোর আন্তর্জাতিক জোট উইটসার বাংলাদেশী প্রতিনিধিত্বকারী একমাত্র সংগঠন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস)। গত বছর ০৮ ডিসেম্বর উইটসা চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান সান্তিয়াগো গুতিয়ারেজের বাংলাদেশ সফরের সময় আমরা প্রযুক্তি বিশ্বের এই গুরুত্বপূর্ণ সভার আয়োজক হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলাম। ওইদিন সন্ধ্যায় বিসিএস ইনোভেশন সেন্টারে আইসিটি ডিভিশনের কর্মকর্তা এবং তথ্যপ্রযুক্তি নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় সান্তিয়াগো গুতিয়ারেজ আনুষ্ঠানিক ভাবে আমাদের প্রস্তাব দেয়ার পরামর্শ দিয়ে তার সমর্থনও ব্যক্ত করেছিলেন।
তিনি আরও বলেন, সান্তিয়াগো গুতিয়ারেজ তার কথা রেখেছেন। আর এই নিলামে অংশ নিতে আমাদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা রাখায় আমি সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আশা করছি, স্বাধীনতার অর্ধশত বর্ষে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই সম্মেলনে আমরা ‘মেইক বাই বাংলাদেশ’ এর চমক নিয়ে প্রযুক্তি বিশ্বে প্রকৃত অর্থেই ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি তুলে ধরতে সক্ষম হবো।
বিসিএস সভাপতি বলেন, বিসিএস সবসময় বিশ্বদরবারে বাংলাদেশের ভাব মর্যাদা তুলে ধরতে সচেষ্ট থেকেছে। সেই ধরাবাহিকতায় ২০১৪ সালে বাংলাদেশ তিনটি ক্যাটাগরিতে উইটসা গ্লোবাল আইসিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড লাভ করে। আমরা এই ধারা অব্যাহত রাখতে আগামীতেও তৎপর থাকবো।
প্রসঙ্গত, তথ্য প্রযুক্তির বিশ্বসম্মেলনের উদ্যোক্তা অলাভজনক প্রতিষ্ঠান-দ্য ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিসেস অ্যালায়েন্স (উইটসা)। ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রতি দুই বছর অন্তর ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অব ইনফরমেশন অন টেকনোলজি সম্মেলন হয়ে আসলেও চলতি ২০১৬ সাল থেকে ব্রাজিল কংগ্রেস থেকে এখন তা প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ধারাবাহিকতা বাজায় রেখে ২০১৭ সালে তাইওয়ানে, ২০১৮ সালে ভারতে, ২০১৯ সালে আরমেনিয়ায় এবং ২০২০ সালে মালোয়েশিয়ায় এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।
বিশ্বজুড়ে ৮৩টি জাতীয় প্রতিষ্ঠান উইটসার সদস্য। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি শিল্পে ৯০ শতাংশর মালিকনা রয়েছে এই সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলোর অধীনে।
বাংলাদেশ সফরের সময় আমরা প্রযুক্তি বিশ্বের এই গুরুত্বপূর্ণ সভার আয়োজক হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলাম। ওইদিন সন্ধ্যায় বিসিএস ইনোভেশন সেন্টারে আইসিটি ডিভিশনের কর্মকর্তা এবং তথ্যপ্রযুক্তি নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় সান্তিয়াগো গুতিয়ারেজ আনুষ্ঠানিক ভাবে আমাদের প্রস্তাব দেয়ার পরামর্শ দিয়ে তার সমর্থনও ব্যক্ত করেছিলেন।
তিনি আরও বলেন, সান্তিয়াগো গুতিয়ারেজ তার কথা রেখেছেন। আর এই নিলামে অংশ নিতে আমাদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা রাখায় আমি সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আশা করছি, স্বাধীনতার অর্ধশত বর্ষে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই সম্মেলনে আমরা ‘মেইক বাই বাংলাদেশ’ এর চমক নিয়ে প্রযুক্তি বিশ্বে প্রকৃত অর্থেই ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি তুলে ধরতে সক্ষম হবো।
বিসিএস সভাপতি বলেন, বিসিএস সবসময় বিশ্বদরবারে বাংলাদেশের ভাব মর্যাদা তুলে ধরতে সচেষ্ট থেকেছে। সেই ধরাবাহিকতায় ২০১৪ সালে বাংলাদেশ তিনটি ক্যাটাগরিতে উইটসা গ্লোবাল আইসিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড লাভ করে। আমরা এই ধারা অব্যাহত রাখতে আগামীতেও তৎপর থাকবো।
প্রসঙ্গত, তথ্য প্রযুক্তির বিশ্বসম্মেলনের উদ্যোক্তা অলাভজনক প্রতিষ্ঠান-দ্য ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিসেস অ্যালায়েন্স (উইটসা)। ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রতি দুই বছর অন্তর ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অব ইনফরমেশন অন টেকনোলজি সম্মেলন হয়ে আসলেও চলতি ২০১৬ সাল থেকে ব্রাজিল কংগ্রেস থেকে এখন তা প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ধারাবাহিকতা বাজায় রেখে ২০১৭ সালে তাইওয়ানে, ২০১৮ সালে ভারতে, ২০১৯ সালে আরমেনিয়ায় এবং ২০২০ সালে মালোয়েশিয়ায় এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।
বিশ্বজুড়ে ৮৩টি জাতীয় প্রতিষ্ঠান উইটসার সদস্য। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি শিল্পে ৯০ শতাংশর মালিকনা রয়েছে এই সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলোর অধীনে।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.