শিল্পীর তুলিতে হাইশাম ছবি সূত্রঃ ইন্টারনেট

বর্তমানে আমরা চোখে কোন সমস্যা হলে চশমা ব্যবহার করি কিংবা চোখের ডাক্তারের কাছে যাই। আচ্ছা, মাইওপিয়া কিংবা হাইপারমেট্রোপিয়ায় (ক্ষীণ দৃষ্টি ও দূর দৃষ্টি) হলে যে উত্তল লেন্স কিংবা অবতল লেন্স ব্যবহার করতে হয়, তা আমরা জানি। কিন্তু সর্বপ্রথম কে এই তথ্যের জানান দিলেন তা কি আমরা জানি? মহান এই বিজ্ঞানী একজন আরব। তার নাম আল হাসান ইবন আল হাইশাম। আসুন আজ তার সম্পর্কে সংক্ষেপে কিছু আমরা জেনে নেইঃ

১) হাইশাম দক্ষিণ ইরাকের বসরা নামক শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

২) তিনি ৯৬৬ অব্দে জন্মগ্রহণ করেন।

৩) তিনি একাধারে একজন শারীরতাত্ত্বিক, জ্যোতির্বিদ ও গণিতবিদ।

৪) হাইশাম কিশোর বয়সেই পদার্থবিজ্ঞানের প্রতি এতোটা দক্ষতা অর্জন করেছিলেন যে তৎকালীন মিশরে তাকে নীলনদের পানি প্রবাহিত হবার জন্য যে সমস্যা দেখা দিয়েছিল তার সমাধান জানার জন্য তলব করেছিলেন।

৫) তিনি স্ক্রাইবাল আর্টের ওপর কাজ করার জন্য বিখ্যাত।

৬) ১০২৪ অব্দে তিনি বনু মুসার “কনিকস” নামক ম্যানুস্ক্রিপ্টটি অনুবাদ করেন।

৭) পদার্থবিদ্যা ও অধিবিদ্যার ওপর তার নিজস্ব লেখা বেশ কিছু সংকলন রয়েছে এবং ইবন আবি উসাইবিয়া হাইশামের এই কাজগুলো যত্ন করে সংরক্ষণ করেন।

৮) আমাদের দৃষ্টি রঙ ও আলোর মাঝে পার্থক্য ধরতে পারে- এই তত্ত্বটি তিনিই দিয়েছিলেন। এছাড়াও চাঁদের নিজস্ব কোন আলো নেই, সূর্য তার নিজস্ব আলোতে বলীয়ান এই কথাটি তিনিই বলেছিলেন।

৯) হাইশাম টলেমীর দেয়া গণিত ও পদার্থবিদ্যার তত্ত্বের ওপর বেশ গবেষণা করেন।

১০) আজকে যে আমরা চশমা ব্যবহার করছি, তার খসড়া মূলত হাইশাম তৈরি করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন আলো পড়লে আমাদের দৃষ্টিশক্তির ওপর নানা ধরণের প্রভাব পড়ে এবং এর ফলে দৃষ্টিশক্তির তারতম্য হতে পারে।

১১) মহান এই বিজ্ঞানী ১০৩৯ অব্দে মৃত্যুবরণ করেন।

সূত্রঃ এনসাইক্লোপিডিয়া ডট কম

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.