পানির নিচে কল্পিত আটলান্টিস শহর

আমাদের এই পৃথিবী এখনো অজানা নানা রহস্য আছে যার সবটুকু সমাধান আমরা এখনো করতে পারি নি। এদের মধ্যে সবচেয়ে বিস্ময়কর হচ্ছে পানির জগত। এই পানির জগতে কত যে অজানা প্রাণী আর রহস্য লুকিয়ে আছে, তার কোন ইয়ত্তা নেই।কিন্তু এদের মধ্যে হারানো শহর “আটলান্টিস”এর কথা সবচাইতে বেশি মানুষের মুখে মুখে ফেরে। সত্যিই কি এমন একটি শহর ছিল যেটি পানির নিচে তলিয়ে গিয়েছে? গ্রীক দার্শনিক প্লেটো এই শহরকে নিয়ে এমনভাবে বলেছেন যেন এই শহরে তিনি নিজে এসে বাস করে গিয়েছেন। এমনই নিখুঁত ও অদ্ভুত ছিল তার বর্ণনা।

বিজ্ঞানীরা বেশ কিছু কথা বলেছেন এই হারানো শহর আটলান্টিসকে নিয়ে। তার কিছু আলোচনা আজ আপনাদের সামনে তুলে ধরা হলঃ

বিশালত্বঃ 

বিজ্ঞানীরা বলেন যে, আটলান্টিস নামে কোন শহর যদি সত্যিই থেকে থাকে, তাহলে তা হবে আজকের সমগ্র এশিয়া মহাদেশ ও লিবিয়াকে যুক্ত করলে যা দাঁড়ায়, ঠিক ততটুকু বড়।

স্বয়ং প্লেটো বলে গিয়েছিলান আটলান্টিস সম্পর্কে
স্বয়ং প্লেটো বলে গিয়েছিলান আটলান্টিস সম্পর্কে

বন্দী কারাগারঃ 

ধারণা করা হয় যে আটলান্টিস শহরটি পানির নিচে বড় বড় পাথুরে পাহাড়ের ওপর অবস্থিত এবং এটিকে ঘিরে আছে পানি ও ভূমির বলয়। এদের মধ্যে একটি পাহাড়ের না “ক্লেইটোর পাহাড়”। বলা হয়ে থাকে যে, সমুদ্রের দেবতা পসেইডন তার স্ত্রীকে এই পাহাড়ের মাঝে কোন এক প্রাসাদে বন্দী করে রেখেছেন।

অসাধারণ ক্ষমতার অধিকারীঃ 

পানির তলদেশের অধিকারী আটলান্টিসের অধিবাসীদের অসাধারণ ক্ষমতা ছিল বলে ধারণা করা হয়। তাদের আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা ছিল। গ্রীক পুরাণে বলা হয়েছে তারা রাগ করলে কিংবা কারো ওপর ক্ষুব্ধ হলে সমুদ্রের তলদেশে নানা ধরণের ঝড় ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় ডেকে আনত।

সত্যিই কি তারা ডাঙার মানুষের চাইতে ক্ষমতাধর?  

ধারণা করা হয় যে, তারা হয়ত ডাঙার মানুষের চাইতেও অধিক ক্ষমতাধর। কিন্তু বিজ্ঞানীরা বলেন অন্যকথা। তাদের মতে আটলান্টিস বলে যদি আদৌ কোন শহর থেকে থাকত, তবে সে শহরের মানুষ হত বর্বর প্রজাতির জলজ জাতি।

আটলান্টিস মিথ সত্য না মিথ্যে এটা নিয়ে তর্ক বিতর্ক এখনো চলছে। যদি এমন একটি শহরের সন্ধান যদি আদৌ পাওয়া যায় পানির নিচে, কি বিস্ময়কর ব্যপারই না ঘটবে!

সূত্রঃ Amazingfacts.com

 

 

 

 

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.