স্মার্টফোন ব্যবহারে খুব সহজেই ডিজিটাল জীবনযাপন করা যায়।তাই স্মার্টফোন এখন অনেকেরই নিত্যসঙ্গী।

কিন্তু স্মার্টফোনের স্মার্ট ব্যবহারে অনেকেই সচেতন নন। অথচ ছোট ছোট অচেতনতা বড় মাশুলের কারণ হতে পারে। তাই কিছু বিষয়ে সচেতন থাকুন।

* বেশিরভাগ স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যেই সিকিউরিটি সফটওয়্যার নিয়ে উদাসীনতা দেখা যায়। কাজ তো চলছে, এই মনোভাবই অনেকে পোষণ করেন। কিন্তু এতেই পারফরম্যান্স ও নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকে।

* স্মার্টফোনের আপডেটের মেসেজ আসলেই সঙ্গে সঙ্গে তা করে নেওয়া উচিত। না হলে ফোন তো স্লো হয়ে যায়, ডিভাইসেও নানা সমস্যা দেখা দেয়।

* অনেকেই ফোনের লক সিস্টেম-এ পিন বা পাসওয়ার্ডের ব্যবহার করেন না। কিন্তু, খুব বেশি সোয়াইপ করলে ফোন স্ক্রিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

* জেল ব্রেক বা রুটিং করার ক্ষেত্রে বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত। প্রত্যেক স্মার্টফোনের অ্যাপ ডাউনলোড করার নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম-কানুন রয়েছে সেগুলো অবশ্যই মেনে চলা প্রয়োজন।

* নিজের মোবাইল ডেটা বাঁচিয়ে ইন্টারনেট সার্ফিং কে না করতে চায়? তাই অনেকের মধ্যেই ফ্রি ওয়াই-ফাই ব্যবহার করার প্রবণতা দেখা যায়। কিন্তু, সর্বত্র এই বিনা মূল্যের ওয়াই-ফাই থেকেই আপনার স্মার্টফোনে আধিপত্য বিস্তার করতে পারে হ্যাকাররা।

* যে কোনো কম্পিউটারে মোবাইল ফোনের ডেটা কেবিল ঢোকানোর অভ্যাস ছাড়ুন। এতে ভয়ঙ্কর ভাইরাস ঢুকে পড়তে পারে আপনার মোবাইলে।

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.