এন্ড্রয়েড এমন একটি অপারেটিং সিস্টেম যা দিয়ে আপনি অনেক কিছুই করতে পারেন, আজ আপনাদের জানাবো ৮ টি কাজ যা আপনি এন্ড্রয়েড মোবাইল দিয়ে সহজেই করে নিতে পারেন।

আপনি আপনার এন্ড্রয়েড স্মার্ট ফোনকে রুট করে নানান কাজে লাগাতে পারেন, এতে দিতে পারেন আলাদা বৈচিত্র্য। এবার চলুন জেনে নিই এন্ড্রয়েড মোবাইল দিয়ে যে ৮ টি কাজ আপনি করে নিতে পারেন।

এন্ড্রয়েডে ওয়েব সার্ভার চালানঃ আপনি কি জানেন আপনি আপনার এন্ড্রয়েড সেট দিয়েই সম্পূর্ণ ডেক্সটপ কম্পিউটারের মতোই ওয়েব সার্ভার চালাতে পারবেন? এন্ড্রয়েড হচ্ছে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমের থেকে উদ্ভুত, ফলে আপনি চাইলে এন্ড্রয়েড দিয়েও full-fledged ওয়েব সার্ভার চালু করতে পারবেন সাথে mySQLডাটাবেজ, PHP সাপোর্ট এবং FTP ব্যবহার করতে পারবেন ফাইল ট্র্যান্সফারের ক্ষেত্রে।

এন্ড্রয়েড সেটেই এন্ড্রয়েড প্রোগ্রাম তৈরি করুনঃ সাধারণত আইফোন অ্যাপ বানাতে হলে আপনাকে এর জন্য প্রয়োজনীয় কোডিং করতে হয় অ্যাপেল ম্যাকে। অপর দিকে উইন্ডোস ফোন কিংবা ব্ল্যাকবেরি স্মার্ট ফোনের জন্য অ্যাপ তৈরি করতে হলে আপনাকে কম্পিউটারে বসে কোডিং করতে হয় কিন্তু আপনি যদি এন্ড্রয়েড অ্যাপ বানাতে চান তবে কম্পিউটারে না বসেও আপনার অ্যাপ বানাতে পারবেন সরাসরি এন্ড্রয়েড সেট থেকেই! আপনি আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইলে এন্ড্রয়েড প্রোগ্রামের কোডিং করে একে একই সেটে টেস্ট করে সেখানেই ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি HTML, PHP, Javascript ইত্যাদি ল্যাঙ্গুয়েজ আপনার এন্ড্রয়েডে লিখতে এবং এডিট করতে পারবেন।

এন্ড্রয়েড সেট দিয়ে আপনার কম্পিউটারকে নিয়ন্ত্রণ করুনঃ  আপনি চাইলে এন্ড্রয়েড মোবাইল দিয়ে আপনার কম্পিউটার দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। এর জন্য প্রয়োজন হবে রিমোট কন্ট্রোল কম্পিউটার সফটওয়্যার যেমন এক্স২ কিংবা Splashtop 2

পেডোমিটার হিসেবে এন্ড্রয়েড মোবাইল ব্যবহারঃআপনি চাইলে স্যমসাং গ্যালাক্সি এস৪ এর মত আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইলটিকে করে ফেলতে পারেন পেডোমিটারে। আপনি গুগল প্লে থেকে Accupedo নামের এই সফটওয়্যারটি নামিয়ে নিয়ে আপনার মোবাইলে ইন্সটল করে নিলেই হয়ে গেল পেডোমিটার। যা আপনার ওজন উচ্চতা হিসেব করে আপনাকে জানিয়ে দিবে কি পরিমাণ শক্তি আপনার প্রয়োজন এবং কি পরিমাণ শক্তি আপনি খরচ করতে পারবেন।

imageshiouh

নিরাপত্তা ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহার করুন এন্ড্রয়েড মোবাইলঃ  আপনার কাছে যদি একটি পুরোনো মডেলের এন্ড্রয়েড মোবাইল থাকে এবং আপনি তা ব্যবহার করছেন না কিন্তু আপনার কাছে নতুন মডেলের একটি এন্ড্রয়েড সেট ও রয়েছে তবে অবশ্যই আপনি পুরোনো মোবাইলটি ফেলে না রেখে সেটি নিরাপত্তা ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন এবং নতুন এন্ড্রয়েড স্মার্ট ফোন থেকে একটি বিশেষ অ্যাপ এর সাহায্যে ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে নিরাপত্তা ক্যামেরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ হিসেবে ব্যবহারঃ আপনি চাইলে আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইলেই সরাসরি ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ থেকে ডাটা ট্র্যান্সফার করে নিতে পারবেন। অনেকেই জানেনা যে কেবল মাত্র একটি সাধারণ USB OTG কেবলের সাহায্যে আপনার এন্ড্রয়েড ডিভাইজের চার্জ পয়েন্ট থেকেই ইউএসবি ডাটা ট্র্যান্সফার করে নিতে পারবেন।

এন্ড্রয়েড মোবাইলেই মাউস এবং কীবোর্ড ব্যবহার করুনঃ  আপনি চাইলে আপনার এন্ড্রয়েড স্মার্ট ফোনকে মাউস এবং কীবোর্ড এর সাহায্যে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। এর জন্য প্রয়োজন হবে একটি এন্ড্রয়েড ইউএসবি OTG পোর্ট যা বাজারে পাওয়া যায়। এর মাধ্যমে যেকোনো মাউস কিংবা কীবোর্ড ব্যবহার করতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইলকে রুট করে নিতে হবে।

বাড়িয়ে নিন এন্ড্রয়েড ব্যাটারির ক্ষমতাঃ এন্ড্রয়েড মোবাইল সেট সমূহ নানান অ্যাপ রান করে ফলে এর ব্যাটারির ক্ষমতা অনেক বেশি ব্যবহার হয়ে যায়। কিন্তু আপনি যদি আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইলটিকে রুট করে নেন এবং এর সিপিইউ ভোল্টেজ কমিয়ে দিন তবে আপনি খুব সহজেই ৭০ থেকে ১০৫ মিনিট বাড়তি চার্জ পাবেন।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.