বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এবং বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত আয়োজিত হচ্ছে স্পেস অ্যাপস নেক্সট জেন।

রাজধানীর ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রাঙ্গণে জানুয়ারির ২৭ এবং ২৮, ২ দিনব্যাপী ৩৬ ঘন্টার হ্যাকাথন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বাংলাদেশে এই প্রথমবারের মত আয়োজন করা হলেও, এর আগে বিশ্বের ৫ টি দেশ আন্তর্জাতিক এই হ্যাকাথনের আয়োজন করেছে।

২ দিনব্যাপী এই হ্যাকাথনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রনালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান সবুর খান, মোঃ হারুনুর রশিদ ( অতিরিক্ত সচিব, আইসিটি অনুবিভাগ ), বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু।অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন স্পেস অ্যাপস নেক্সট জেনের প্রধান মেনটর ডঃ তৌহিদ ভূঁইয়া,  পিবাজার ডট কমের সিইও মোঃ শাহীন, মেনটর শামসুল হক সহ প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার দেশের সকল উদ্ভাবকদের নিয়ে নতুন মাত্রায় চিন্তা করছে। উন্নয়নের দ্বারপ্রান্তে এসে আমরা এখন প্রজ্বলিত। তরুণ উদ্ভাবকদের এমন উদ্ভাবন দেখে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেন। জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরণে আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করে চলেছি। শুধু বিজয়ীরাই নয়, সকল উদ্ভাবকদের পাশে সমানভাবে তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় থাকবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তিনি এছাড়া ও স্পেস অ্যাপস নেক্সট জেন এখন থেকে প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন মন্ত্রী।উদ্বোধন শেষে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী হ্যাকাথন প্রাঙ্গণ ঘুরে সকল শিক্ষার্থীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন এবং প্রজেক্ট নিয়ে আলোচনা করেন।এছাড়াও বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা একসময় মঙ্গল গ্রহ সহ বিশ্ব ভ্রমান্ডে পদচারণ করবে বলেই আশা করেন তিনি। ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান সবুর খান বলেন, প্রযুক্তির ছোঁয়ায় আমরা এখন

উদ্ভাসিত। বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের এমন উদ্যোগ আমাদের শিক্ষার্থীদের আরও অনুপ্রাণিত করবে। এছাড়াও প্রযুক্তির বিকাশে যে কোন সহায়তায় পাশে থাকবেন বলেও আশ্বস্ত করেন তিনি।

হারুনুর রশিদ বলেন, এমন  উদ্যোগে সরকার সবসময় পাশে ছিলো, এবং থাকবে। উদ্ভাবকদের নতুন স্বপ্ন পূরনের এমন স্থান তৈরি করার জন্য বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু বলেন, আধুনিকতার এই যুগে বিজ্ঞান-প্রযুক্তির বিকাশ এখন সমগ্র পৃথিবী জুড়ে। বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম সারা বিশ্ব জুড়ে তাদের কর্মদক্ষতার প্রমান অনেকবার রেখেছে। বাংলাদেশের তরুণদের বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে আরও আগ্রহী করে তোলার জন্য বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরাম কাজ করে যাবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগে, সারা দেশ থেকে ৮৫ টির অধিক  আগত প্রায় ৪০০ টির অধিক প্রজেক্ট থেকে ১০০ টি প্রজেক্ট নিয়ে ব্যুট ক্যাম্প সম্পন্ন হয়। ফাইনাল ব্যুট ক্যাম্পে আগত শিক্ষার্থীরা তাদের আইডিয়া এবং প্রজেক্ট নিয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত অভিজ্ঞ মেন্টরদের সাথে মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করে। অভিজ্ঞ মেনটরদের সাথে তাদের প্রজেক্ট এবং আইডিয়া সম্বলিত বিভিন্ন সমস্যা এবং এর সমাধানের বিষয়ে বিস্তর আলোচনা করেন। পরে, উপস্থিত শিক্ষার্থীদের স্পেস অ্যাপস নেক্সট জেন এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়।

 

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.