লাল পিঁপড়া বা বিষ পিঁপড়া (Fire Ant) নামে পরিচিত এক পিঁপড়াদের একটি প্রজাতিতে রয়েছে চরম একতা । এই ক্ষুদ্র প্রানীদের বুদ্ধিমত্তা দেখে অনেকেই অবাক। প্রায় সব প্রজাতীর পিঁপড়াদেরই দলবদ্ধ হয়ে বসবাস ও খাদ্য সংগ্রহ করতে দেখা যায়। তবে এদের মধ্যে রয়েছে বেশ কিছু মজার মজার অনুশীলন যা শুধু মাত্র বিপদের দিনেই দেখা যায়। কাউ আক্রমণ করার ক্ষেত্রেও একত্রিত হয়ে এগিয়ে যাওয়ার বেশ কিছু দৃষ্টান্ত দেখুন।

পনিতে ভেসে থাকা

একটি পিঁপড়া সহজেই পানিতে ডুবে যেতে পারে। তবে তারা দলবদ্ধ হয়ে পানিতে অনায়াসে ভেসে থাকতে পারে। বন্য জলোচ্ছ্বাস বা যে কোন কারনে তাদের ঘর বাড়ি ভেসে গেলে তারা খুব দ্রুত একে অপরের সাথে তাদের পা দিয়ে একটি জালের মতো অবস্থান তৈরী করে। যাতে করে কেউই ডুবে মারা যায় না। এমনকি সবার নিচে যে পিঁপড়াটি থাকে তারও কোন সমস্যা হয় না।

জার্জিয়া ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজীর এমলট কিছু পিঁপড়ার উপরে পর্যবেক্ষণে বিষয়টি নিশ্চত হন। পিঁপড়াদের বাসায় পানি ঢালার পরে দেখা যায়-সব পিঁপড়া তাদের ডিমগুলোকে একত্রিত করে একে অপরের সাথে সবগুলো ডিমও তারা নিজেরা ধরে রাখে এবং সহজেই ভেসে থাকে।

এমন কি কোন একটি পিঁপড়া পানিতে ডুবে যাওয়ার পরেও তাদের হাত বাড়িয়ে দেয় এবং পানির নিচে তাদের অন্যান্যরা থাকলে তাদের সাথে যুক্ত হয়ে ভেসে ওঠে।

তাদের এই একতার মাধ্যমে বেশ কিছু ছবি দেখে নেই

এক.

পিঁপড়া

পিঁপড়াদের এলাকা বন্যায় প্লাবিত হলে তারা এভাবেই একত্রিত হয়

দুই.

পিঁপড়াএকত্রিত হয়ে এখন তারা দিব্যি ভেসে বেড়াচ্ছে

তিন.

পিঁপড়াকোন গাছের কান্ড ভেঙে পড়লে সেটাকেও ভাসিয়ে রাখার প্রচেষ্টা করে তারা, এবং সবাই মিলে একসাথে

চার.

পিঁপড়াপানির নিচে বাতাস আছে এমন কোন বস্তু পেলেও সেখানে তারা একত্রিত হয়, ঠিক এভাবে

পাঁচ.

পিঁপড়াপরীক্ষা করার জন্য এই পিঁপড়াটিকে পানির নিচে সুতা দিয়ে বেধে ছেড়ে দেওয়া হয়। তখনও সে তার সুং গুলোকে প্রসারিত করে রেখেছে,  অন্য কাউকে পেলে একত্রিত হবে এই প্রত্যাশায়।

ছয়.

পিঁপড়াপানির উপরে হেটে চলার প্রচেষ্টা।

সাত.

পিঁপড়ানিজেরাই নিজেদের রাস্তা তৈরী করছে.. শূন্য যাওয়ার জন্য মানুষের মতোই যেন প্রচেষ্টা

আট.

পিঁপড়াহাতে হাতে বন্ধনকে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে

নয়.

পিঁপড়াএবার হয়ে যাক এক কাপ পিঁপড়ার চা…

(আপাততঃ দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে আপনি চা খাবেন, অথচ তারাই চা খাচ্ছে 😀 )

একত্রে আক্রমনের ভিডিও

ভিডিও-একঃ

এই ভিডিওতে পিঁপড়াদের বেশ কিছু আপকর্ম সম্পর্কেও জানতে পারবেন। ওরা একত্রিত হয়ে শর্টসার্কিট তৈরী করেছিল আমেরিকায় এবং সেখানকার ট্রাফিক সিগন্যাল নিজেদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে নেয় 😛 এবং দূর্ঘটনা ঘটায়। মাইক্রোওয়েভ ওভেনের ভেতরেও তারা বেশ ভালভাবেই খেতে থাকে সুস্বাদু খাবার।

ভিডিও-দুইঃ

তারা একত্রিত হয়ে জীবন্ত ঘাস ফড়িংসহ অনকে প্রানীকেই মেরে খাদ্যের চাহিদা মিটায়। এমনকি মানুষকে কামড়ানোর সময়ও একত্রে শুরু করে।

comments

5 কমেন্টস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.