মৃত্যুর পরেও জীবন?

মৃত্যুর পরেও কি চেতনা থাকা সম্ভব? আশপাশটা উপলব্ধি করা সম্ভব? আপনার কাছে অস্বাভাবিক হতে পারে বিষয়টি কিন্তু ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা কিন্তু বলছেন ভিন্ন কথা।
মৃত্যুর পরের সাময়িক একটা জীবনের কথা ‘নিশ্চিত’ করেছেন তারা। মারা যাবার পরও একজন মানুষের চেতনা কিছুক্ষণ থাকে বলে জানিয়েছেন তারা। ২০০০ এরও বেশি ব্যক্তিকে নিয়ে গবেষণা করার পর বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন ডাক্তাররা কোন ব্যক্তিকে মৃত হিসেবে ঘোষণা করবার পরও কিছু সময় তারা আশপাশটা উপলব্ধি করতে পারে।
বিজ্ঞানীরা এতদিন ভাবতেন যে মৃত্যুর ৩০ সেকেন্ড পর মস্তিষ্কের সকল কার্যক্ষমতা বিলোপ পায় এবং চেতনাও ঠিক একই সময়ে চলে যায়।
কিন্তু সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা কিন্তু বলছেন অন্য কথা। তারা বলছেন, মৃত্যুর পরের তিন মিনিট পর পর্যন্ত একজন মানুষ তার চেতনাপ্রাপ্ত থাকে। অর্থাৎ, আশপাশটা সম্পর্কে সে তখনো ওয়াকিবহাল থাকে।
অবাক করা এই গবেষণার পক্ষে ডাক্তার স্যাম পার্নিয়া বলেন, ‘মৃত্যু হচ্ছে এমন একটি ধারণা যা কেবলমাত্র একটি সময়ের বিচ্ছেদ নয়। এটি একটি প্রক্রিয়া যার নির্দিষ্ট কিছু কারণ থাকে। দুর্ঘটনা, মস্তিষ্কে আঘাতজনিত কোন কারণ কিংবা ফুসফুসে নানা ধরণের সমস্যার কারণে কোন ব্যক্তির মৃত্যু ঘটতে পারে।’
অস্ট্রিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের ২০৬০ জন রোগীর মাঝে গবেষণা চালাবার পর তাদের মাঝে ৪০ শতাংশই উত্তর দেন যে ডাক্তার তাদেরকে ক্লিনিক্যালি মৃত ঘোষণা করার পরও তারা অনুভব করতে পারছিলেন তাদের চারপাশটা।এসব রোগীদের প্রত্যেকেই তাদের কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের হাত থেকে বেঁচে ফিরেছেন। অর্থাৎ, তাদেরকে মৃত ঘোষণা করা হলেও তারা মৃত্যুবরণ করেন নি।
মাত্র দুই শতাংশ রোগী বলেন যে তারা নিজেদের শরীর ছেড়ে যাবার যে অনুভূতি, তা তারা টের পাচ্ছিলেন। অনুভূতিটা কোন চেতনার নয়, বরং নিরেট একটা ভয়ের অনুভূতি।
ডক্টর পার্নিয়া বলেন, ‘এটা আমাদের যে বিষয়টি জানায় তা হচ্ছে, প্রাথমিকভাবে হয়ত মানুষের মানসিক কার্যাবলী হয়ত তখনো চলতে থাকে কিন্তু যখন তারা তাদের পূর্ণ চেতনা ফিরে পান তখন তারা ঐ স্মৃতিটা খুব একটা মনে রাখতে পারেন না। এটি হতে পারে হয়ত তারা একটি হ্যালুসিনেশনের মধ্য দিয়ে যেতে থাকে, কিংবা মাথায় আঘাত প্রাপ্তির কারণে অথবা কড়া ডোজের ঔষধ সেবন করার মাধ্যমে।’
একটি কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের মধ্য দিয়ে যে যন্ত্রণাটা অনুভব করতে হয়, তা করার পর একজন রোগী জানান তিনি তার ‘সাময়িক মৃত্যু’র পর এক ধরণের অস্বস্তিকর অনুভূতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলেন।
ডক্টর পার্নিয়া জানান যে, ‘এই ঘটনাটা একটু চিন্তার উদ্রেককারী। কারণ এতদিন আমাদের জানা ছিল যে মৃত্যুর পর ৩০ সেকেন্ডের মাঝে মানুষের মস্তিষ্ক তার সকল ধরনের কাজ বন্ধ করে দেয়। কিন্তু এখন আমরা জানতে পারছি যে তারা তিন মিনিট পর্যন্ত সব কিছুই উপলব্ধি করতে পারে। তবে এটি তাদের জন্যই যাদের হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া আবার সচল হয়ে যায়।’
সত্যিই, বিজ্ঞান আমাদের কত কিছু নিয়েই না ভাবাচ্ছে! এমনকি মৃত্যু নিয়েও!

তথ্য সূত্রঃ দ্য সান পত্রিকা

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.