শুধু মাত্র একটি মাইক্রোপ্রসেসর নিজে নিজে কিছু করতে পারে না, তাকে কাজ করতে হলে আলাদা আলাদা মেমরী, কাউন্টার, A/D ও D/A কনভার্টার ইত্যাদির সাহায্য নিতে হয়। কিন্তু মাইক্রোকন্ট্রোলার নিজেই স্বয়ংসম্পূর্ণ। প্রয়োজনে মাইক্রোকন্ট্রোলারে এক্সটার্নাল মেমরী শেয়ারের ব্যবস্থাও আছে এবং মাইক্রোপ্রসেসরের চেয়ে অনেক দ্রুত কাজ সম্পাদন করে। তাই আমরা খুব সহজেই মাইক্রোকন্ট্রোলারকে ছোট ছোট এবং অল্প শক্তির মেশিনে, যেখানে খুব সুক্ষ নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজন হয় সেখানে ব্যবহার করতে পারি। ফলাফল হিসেবে আমাদের পাওয়ার অপচয় কম হবে, যান্ত্রিক জটিলতা হ্রাস পাবে, ইন্সট্রুমেন্টের আকৃতি ছোট হবে এবং সর্বপরি ব্যায় হ্রাস পাবে।

c2a………………………………………………………………

বর্তমান সময়ে মাইক্রোকন্ট্রোলার আধুনিক ইলেকট্রনিক্সের এক নতুন ধারার সৃষ্টি করেছে। এখন এমন সময় এসেছে যখন যে কোন প্রতিষ্ঠিত ইলেকট্রনিক্স ম্যাগাজিনের প্রজেক্টগুলোর দিকে তাকালেই দেখা যায় তার মূল ডিভাইসটি মাইক্রোকন্ট্রোলার। আমরা প্রজেক্টগুলোর সুন্দর নাম দেখে যখন একটু গভীরভাবে তা পর্যবেক্ষণ করার করার চেষ্টা করি বা সেটাকে নিজে নিজে তৈরি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি তখনই আমাদেরকে পিছিয়ে আসতে বাধ্য হতে হয়। এর একমাত্র কারণ মাইক্রোকন্ট্রোলার।

মাইক্রোকন্ট্রোলার কি?

মাইক্রোকন্ট্রোলার কি? এ প্রশ্নের উত্তর খোজার আগে একটা কম্পিউটারের মৌলিক গঠনের দিকে একটু দৃষ্টি ফেরানো যাক। একটা মাইক্রো কম্পিউটার নিম্নবর্ণিত উপকরণ সমূহ নিয়ে গঠিত।

  • Microprocessor (কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রক)c1
  • RAM (অস্থায়ী মেমরী)
  • ROM বা EEPROM (স্থায়ী মেমরী)
  • Timing and Control Unit (সঠিক সময়ে সঠিক অপারেশন নির্দেশ করে)
  • Input Port (যে সকল Port এ আমরা Keyboard, mouse, Microphone ইত্যাদি সংযোগ করি)
  • Output Port (যে সকল Port এ আমরা Monitor, Speaker, Printer ইত্যাদি সংযোগ করি)

আমরা মাইক্রোপ্রসেসর বলতে একটা চিপকে বুঝি, যাকে বলা হয় মাল্টিপারপাস প্রোগ্রামেবল ইন্ট্রিগেটেড ডিভাইস। তাহলে মাইক্রোকন্ট্রোলার কি? মাইক্রোকন্ট্রোলার ও মাইক্রোপ্রসেসরের মতই একটা চিপ, কিন্তু একে বলা হয় সিঙ্গেল চিপ মাইক্রোকম্পিউটার।

c3মাইক্রোকন্ট্রোলারকে সিঙ্গেল চিপ মাইক্রোকম্পিউটার বলার কারণ

“সিঙ্গেল চিপ মাইক্রোকম্পিউটার” শব্দ সমষ্টিকে বিশ্লেষণ করে পাওয়া যায় এমন একটি কম্পিউটার যা শুধু একটা মাত্র চিপ দ্বারা গঠিত। অর্থাৎ মাইক্রোকন্ট্রোলার একটি মাত্র চিপ যা কম্পিউটারের মতই একইসাথে ডাটা Input Port এর মাধ্যমে গ্রহণ করে তাকে ডিকোড করে গানিতিক ও লজিক্যাল কার্যাবলী সম্পাদনের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে, প্রয়োজনে মেমরিতে সংরক্ষিত তথ্য পর্যালচনা করে ও ফলাফল মেমরিতে সংরক্ষণ করে এবং সর্বশেষে গৃহীত সিদ্ধান্ত Output Port এ প্রেড়ণের মাধ্যমে আউটপুট ডিভাইসকে পরিচালনা করে। একটি CPU এর মূল গঠনে যা কিছু আছে একটি মাইক্রোকন্ট্রোলারের অভ্যন্তরেও তা আছে। অর্থাৎ বিষয়টি আমাদের কাছে পরিষ্কার যে শুধু মাত্র একটি মাইক্রোপ্রসেসর নিজে নিজে কিছু করতে পারে না, তাকে কাজ করতে হলে আলাদা আলাদা মেমরী, কাউন্টার, A/D ও D/A কনভার্টার ইত্যাদির সাহায্য নিতে হয়। কিন্তু মাইক্রোকন্ট্রোলার নিজেই স্বয়ংসম্পূর্ণ।

c4

প্রয়োজনে মাইক্রোকন্ট্রোলারে এক্সটার্নাল মেমরী শেয়ারের ব্যবস্থাও আছে এবং মাইক্রোপ্রসেসরের চেয়ে অনেক দ্রুত কাজ সম্পাদন করে। তাই আমরা খুব সহজেই মাইক্রোকন্ট্রোলারকে ছোট ছোট এবং অল্প শক্তির মেশিনে, যেখানে খুব সুক্ষ নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজন হয় সেখানে ব্যবহার করতে পারি। ফলাফল হিসেবে আমাদের পাওয়ার অপচয় কম হবে, যান্ত্রিক জটিলতা হ্রাস পাবে, ইন্সট্রুমেন্টের আকৃতি ছোট হবে এবং সর্বপরি ব্যায় হ্রাস পাবে।

comments

15 কমেন্টস

  1. আসাধারন এই পোস্ট করার জন্য অসীমদা কে আনেক ধন্যবাদ।

  2. অসীম দা মারাত্বক হয়েছে। আপনি কি দয়া করে মাইক্রোকন্ট্রোলার এর প্রোগ্রামিং নিয়ে কিছু বলবেন ???? অপেক্ষাতে থাকলাম…

    • রিয়াজুল হাশেম ভাই ধন্যবাদ,
      আমি পর্যায়ক্রমিকভাবে মাইক্রোকন্ট্রোলার প্রোগ্রামিং সম্পর্কে লেখার চেষ্টা করব।

  3. আনেক কিছু জানতে পারলাম। তাই আনেক ধন্যবাদ

  4. I just want to say I am all new to blogging and seriously loved this blog site. Very likely I’m planning to bookmark your website . You absolutely come with superb writings. Bless you for sharing your blog site.

  5. *Not often do I encounter a weblog that is both educated and entertaining, and let me tell you, you may have hit the nail on the head. Your concept is excellent; the issue is something that not sufficient individuals are speaking intelligently about. I am very happy that I stumbled across this in my quest for something relating to this.

  6. Thanks for another magnificent post. The place else may anybody get that kind of info in such an ideal method of writing? I’ve a presentation next week, and I am at the search for such info.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.