আলো আঁধারে লাল রঙা মঙ্গল গ্রহ

এই তো, আর একদিন পরেই মঙ্গলের পৃষ্ঠে অবতরণ করবে দ্য এক্সোমার্স ২০১৬। নতুন কি চমকপ্রদ তথ্য বিজ্ঞানীদের সামনে এসে হাজির হয়, তা নিয়ে কৌতুহলের অন্ত নেই। তবে মঙ্গল সম্পর্কে এ পর্যন্ত যা কিছু জানা গিয়েছে, তাই বা কম কি? তাই এবারে মঙ্গল গ্রহ নিয়ে কিছু তথ্য আপনাদের সামনে উপস্থাপন করা হল।

১) মঙ্গল গ্রহ সূর্য থেকে প্রায় ১৪ কোটি ২০ লক্ষ মাইল দূরে অবস্থিত। এর নামকরণ করা হয়েছে রোমান যুদ্ধ দেবতার নামানুসারে। মঙ্গল গ্রহ তার রক্তলাল রং এর জন্য বেশি পরিচিত।
২) চীনের জ্যোতির্বিদরা একে “Fire Star” বলেও অভিহিত করতেন।
৩) মঙ্গল পৃথিবীর তুলনায় আয়তনে অনেক ছোট। সমগ্র পৃথিবীর মাত্র ১৫ শতাংশ এর সমগ্র অংশ। মঙ্গল গ্রহের আকৃতির মোট ছয়টি গ্রহ লাগবে পৃথিবীর সমগ্র অংশ পূরণ করতে।
৪) মঙ্গলের আকৃতির কারণে আপনার ভরেরও তারতম্য হবে। পৃথিবীতে আপনার ভর যদি ১০০ হয়, তবে মঙ্গলে সেটি হবে মাত্র ৩৮!
৫) “অলিম্পাস মোনা” নামক ৬৮,৮৯৭ ফিট উঁচু আগ্নেয়গিরিটি লক্ষ লক্ষ বছর আগে মঙ্গলের পৃষ্ঠে তৈরি হয়েছিল। আমাদের সৌরজগতে আবিষ্কৃত যতগুলো পর্বত আবিষ্কৃত হয়েছে, তার মধ্যে এটিই সবচাইতে উঁচু।

মঙ্গলে অলিম্পাস মোনার অবস্থান
মঙ্গলে অলিম্পাস মোনার অবস্থান

৬) বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন যে আমাদের সৌরজগতে পৃথিবীর পরেই হচ্ছে থাকার জন্য সবচাইতে উপযুক্ত গ্রহ হচ্ছে এটি। মঙ্গল পৃষ্ঠে পানি পাবার কারণে বিজ্ঞানীদের এই ধারণাটি আরো পোক্ত হয়।
৭) সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে মঙ্গল গ্রহের সময় লাগে ৬৮৭ দিন। মঙ্গলে চারটি ঋতু বছরজুড়ে থাকে। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে প্রতিটি ঋতু সময় নেয় পৃথিবীর একটি ঋতু যে সময় নিয়ে থাকে তার দ্বিগুণ। মঙ্গলের পরিবেশ ৯৬% কার্বন ডি অক্সাইড, ১% আর্গণ ও ১% নাইট্রোজেন নিয়ে গঠিত।

সূত্রঃ অ্যামেজিং ফ্যাক্টস.কম

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.