ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য ভাল সার্ভার নির্বাচন করা সহজ কাজ নয়। এ কারনে শুরুতে আমরা প্রায় সবাই হোস্টিং নিয়ে খুব সমস্যায় পড়ি। অনেক সময় দেখা যায় প্রথম দিকে সমস্যা না হলেও, সাইটের জনপ্রিয়তা বাড়ার সাথে সাথে হোস্টিং এ সমস্যা দেখা দেয়া শুরু হয়। তখন অনেকেই এক কোম্পানি থেকে আর এক কোম্পানিতে ঘুরে বেড়ায়। অনেকে অনেক টাকাও নষ্ট করেছেন। তারপরেও ভাল হোস্টিং কোম্পানি খুজে পায় না।

2011-02-26_183337

তাই কোন কোম্পানির হোস্টিং নেয়ার আগে এই বিষয় গুলি অবশ্যই  খেয়াল করে নিবেন।

  • সার্ভার কত কোররে সেটা দেখে নিবেন। যেমন 6 core (cpus) or 16 core (cpus) ইত্যাদি। সার্ভার এর কোর যত বেশি হবে তার লোড তত ভাল হবে। এবং তার ব্যাকআপ সিস্টেম তত ভাল হবে। সার্ভার ডাউন হওয়ার আশংকা কম থাকবে।
  • এরপর যে বিষয়টি জানা দরকার সেটি হচ্ছে ব্যাকআপ সার্ভার। ব্যাকআপ সার্ভার কয়টি এবং ব্যাকআপ সিস্টেম কেমন। যেমন- কেউ কেউ বলতে পারে তাদের ব্যাকআপ সিস্টেম Redhat system এ হয়। বলে রাখি এই সিস্টেমে একটি সার্ভারের 2nd hard desk এ file ব্যাকআপ রাখে। এই সিস্টেমে সার্ভার একটি থাকে। যদি সার্ভার কোন কারনে  ক্র্যাশ করে, তাহলে সাইট ডাউন হবে। আর যদি অতিরিক্ত সার্ভার থাকে তাহলে মূল সার্ভার ডাউন হলেও সাইট চালু থাকবে। তাই জেনে নিবেন ব্যাকআপ কি একই সার্ভার এ আছে নাকি অন্য সার্ভার এ।
  • সার্ভার লোড আরেকটি গুরুত্বপূর্ন বিষয়। অবশ্য হোস্টং না নিলে এটি সাধারনত বুঝতে পারবেন না। কারন আমাদের দেশের বেশির ভাগ বলতে পারে না। সবচাইতে মজা পেয়েছি এইবার BASIS SOFTWARE মেলায় যেয়ে।বাংলাদেশে অনেক বড় কোম্পানির stall পেলাম সেইখানে কেউ বলতে পারল না। ৬ কোরের(cpus)  সার্ভার লোড .৬৯% থাকে। আর ১৬ তে ২.৫৮% আরো ভাল সার্ভার হলে এর বেশি থাকি।  তবে ১৬ তে খুব ভাল সাইট চালানো যাই। একটা কথা বলে রাখি এই ধরনের সার্ভারের হোস্টিং প্রাইস বেশি।আমাদের দেশে খুব কম কোম্পানি আছে এই সার্ভারে হোস্টিং দেয়। আমার মতে যারা নির্ভেজাল হোস্টিং ব্যবহার করতে চান। তারা এই ধরনের সার্ভার ব্যবহার করুন। সার্ভার লোড যেভাবে বুঝতে পারবেনঃ Cpanel এর বাম পাশে যেইখানে ব্যান্ডউইথ, পিএইচপি ভার্শন লিখা থাকে, সেখানে একদম নিচে server status নামে একটা লেখা পাবেন। সেই তাতে ক্লিক করলে বিস্তারিত পাবেন।
  • Extra লোডঃ   সার্ভারের অতিরিক্ত লোড নেয়ার জন্য অন্য কোন সার্ভার আছে কিনা। বা লোড ব্যাকআপ সার্ভার কয়টা। অনেক company ব্যাকআপ সার্ভারেই এই system টা দেয়। সেই ক্ষেত্রে ব্যাকআপ সার্ভার ৪টা হলে ভাল। আবার অনেকের ব্যাকআপ সার্ভার আর critical Load server আলাদা থাকে। সে ক্ষেতে critical Load server সার্ভার ব্যাকআপ সার্ভারের চাইতে বেশি থাকে।
  • সার্ভার আপটাইম সম্পর্কেও জানা প্রয়োজন। আপটাইম গ্যারেন্টি কত %। ১০০% গ্যারেন্টির সার্ভার সবচাইতে ভাল। আমরা অনেকেই মনে করি ৯৯.৯৯% বাকি ১% এ কিছু হবেনা। কিন্তু এই ১% এই অনেক কিছু নির্ভর করে। যেইটা অনেকই দিতে পারেনা। যারা ১০০% গ্যারেন্টি দেয়, তাদের সার্ভার ডাউন হওয়ার আশংকা বলা যায় একেবারেই নাই।

আজ এই পর্যন্ত। আমার চাইতেও অনেক ভাল কেউ বলতে পারবেন হয়তো।

comments

20 কমেন্টস

  1. আপনার পোস্টের শেষের প্যারাটি নিয়ে আমার একটু প্রশ্ন আছে। যদি ১০০% আপটাইম গ্যারান্টি দেয় তাহলে আবার আশংকার কথা আসছে কেন?
    ১০০% দেয়া কি সত্যিই সম্ভব? সার্ভার কি মেইনটেইনেন্সের জন্যও ডাউন রাখা হয় না?

    • ধন্যবাদ আপনাকে। আমি আশংকা কথাটি এই জন্য ব্যবহার করেছি কারন এটি আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি।অনেকের সার্ভার ব্যবহার করেছি। বর্তমান যেইটা ব্যবহার করেছি সেই টা তে আশা করি স্যমসা হবে না। তবে ১০০% দেয়া যাই। সার্ভার cofiguration এর উপর। আর মেইনটেইনেন্সের এর জন্য সার্ভার ডাউন থাকলে সেই সার্ভারের কি দরকার।? তাহলে তো বছরে ৫ বার মেইনটেইনেন্সে হলে ৫ বার সাইট বন্ধ থাকবে। ভাই আরো অনেক কথা আছে। টাইপ করতে অনেক কষ্ট হচ্ছে তাই লিখতে পারলাম না।

    • কনফিগারেরশনের উপর ভিত্তি করে কিভাবে ১০০% আপটাইম গ্যারান্টি দিবে এটা আমার ঠিক বোধগম্য হল না। ১৬ কোর – ৮ গিগা একটা মেশিনে যদি কাল ডিডস এটাক হয় তাহলে কোম্পানী কি করবে? বা যদি হ্যাক হয়ে যায় তাহলে? কোন অকারেন্সই কি ঘটতে পারে না? আর যদি ঘটতে পারে তাহলে কেন সেটা ১০০% আপটাইম গ্যারান্টী হবে?
      আর আমার অবশ্য এমন সার্ভারের কথা জানা নেই যে সার্ভার মেইনটেইনেন্সে যায় না।
      আমি এখন যে সার্ভারে সাইট রেখেছি সেটায় এখন পর্যন্ত কোন ডাউনটাইম পাইনি। একবার শুধু ডেটাবেজ সার্ভারটা ক্র্যাশ করেছিল। অবশ্য ৩ মিনিটের মাঝে সেটা ঠিক করে ফেলা হয়। তারপরও আমার প্রোভাইডার আমাকে ১০০% আপটাইম গ্যারান্টি দিতে পারছে না।

      • ভাইয়া এই ক্র্যাশ এর জন্য ব্যাকাআপ সার্ভার দরকার হয়। যদি ব্যাকআপ সার্ভার থাকে তাহলে ব্যাক লিংক এর মাধ্যমে সেইটা অন্য সার্ভারে চলে যাই। যার ফলে সাইট ডাউন হওয়ার কোন possibility thake na.আর ভাই হ্যাক হওয়ার কথা বলছেন। world ar amon kono server nai jaita akdin ar jonno o hack hoy nai.

        • vai ar akta ডিডস এটাক বা যেকোন ধরনের problem ar জন্য ব্যাকআপ সার্ভার কাজ করে।এই জন্য ব্যাকআপ সার্ভার ও same cofiguration ar হওয়া দরকার। + সার্ভার ও বেশি থাকার দরকার।

  2. পোষ্টটি সত্যিই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে ধন্যবাদ এই বিষয়ে লেখাটি প্রকাশ করার জন্য।

  3. এখনতো বেশিরভাগ সার্ভার এর কোর থাকে ১৬টি। আর এগুলো তেমন ব্যায়বহুলও নয়। ১০০% আপটাইম এর কোন হোস্টিং প্রোভাইডার আছে বলে মনে হয় না।

    • জি না ভাই। বাংলাদেশের শুধু একটি কোম্পানি তে ২৬ কোর সার্ভার আছে। তা বাদে কারোর না। এমন কি ইকরা তাদের ও না।তাদের ৬ কোরের সার্ভার।এমন কি ১ কোরের সার্ভার ও আছে অন্য এক সনামধন্য কোম্পানির।

      • বাংলাদেশের সার্ভার এর কথা বলছে কে? এখন নামকরা সব হোস্টিং প্রোভাইডারের সার্ভার এর কোর কমপক্ষে ১৬টি। আর এগুলোতে হোস্টিং খুবই সস্থা।

        • জি ভাই এই লেখাটি আমার বাংলাদেশে কে কেন্দ্র করে লেখা। কারন আমার যারা বাংলাদেশ থেকে হোস্টিং নিই তাদের জন্যই মুলত এই লেখাটা

  4. ভাইয়া একটা প্রশ্ন করব উত্তরটা দিতেই হবে! বাংলাদেশের কোন সার্ভারের কোর ১৬ টা? উত্তরটা সাইটে লিখতে সমস্যা হলে আমার মেইলে পাঠাতে পারেন। ইমেইল: jahangir_033@yahoo.com

  5. ফয়সাল ভাই সত্যিই পোষ্ট অসাধারণ হয়েছে।
    এতকিছু জেনেও সবশেষে যে কথাটি লিখেছেন_
    “”আজ এই পর্যন্ত। আমার চাইতেও অনেক ভাল কেউ বলতে পারবেন হয়তো”‘

    ভীষণ ভালো লেগেছে আমার কাছে এই কথাটি

    • ধন্যবাদ ভাই আমি সবকিছু জানি তা না। আমার চাইতেও ভাল কেউ জানতে পারে।

  6. এই লেখাটি ভুল তথ্যে ভরপুর। কারণ কোরের সাথে আপটাইমের কোন সম্পর্ক নাই।

    Redhat System এ ব্যাকআপ কি জিনিস জানি না। Redhat হচ্ছে এন্টারপ্রাইজ অপারেটিং সিস্টেম। একটা সার্ভার ডাউন হলো আরেকটা আপ হতে ৫/১০ মিনিট সময় লাগবে, আর হোস্টিং কোম্পানি গুলো হোস্টিং ব্যবসায় এ ধরনে কনফিগারেশন সেটাপ করে না। কারণ এধরণের সেটাপে অনেক টাকা খরচ হয়।
    শেয়ার্ড হোস্টিংয়ে লোড ব্যালান্স করার প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় না। ব্যাকআপের দায়িত্ব কাস্টমারের, হোস্টিং কোম্পানির না। তাই আপনার একাউন্টের ব্যাকআপ রাখার জন্য ৪ টা সার্ভার রাখবে না। ব্যাকআপ রাখা হয় লো কনফিগারেশনের সার্ভারে।

    ১০০% আপটাইম দেয়া কোন ভাবেই সম্ভব না। থিওরিটিক্যালি সম্ভব কিন্ত প্র্যাকটিক্যালি ক্লাউড এনভায়রনমেন্ট ব্যবহার করেও ১০০% রাখা সম্ভব হয়নি।

    আর আপনার লেখাটা পড়ে মনে হলো আন্দাজের উপরে ঢিল ছুড়ে লিখেছেন। এবং বিশেষ একটি কোম্পানির ভাষ্য অনুযায়ী লেখা। তারা বলে ২৬ কোরের সার্ভার, ১৬ কোর দেখা যায় সিপ্যানেলে বাকি ১০ কোর ব্যবহার হয় ক্রিটিকাল লোড নিতে। তারা এমন কি প্রযুক্তি ব্যবহার করে যে কোর লুকিয়ে রাখতে পারে। আমার বোধগম্য না।

    সব শেষে একটা কথা বলব যতবেশি কোরই হোক তাতে কাস্টমারের তেমন লাভ হবে না। যদি কোম্পানির ভাল সার্ভিস দেয়ার ইচ্ছা না থাকে। ৪ কোরের সার্ভারেও ভাল সার্ভিস পাবেন। কোম্পানি যদি সবকিছু ঠিক মতো মেইনটেইন করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.