প্রিমিয়াম ডিভাইস তৈরিতে বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে হুয়াওয়ের অংশীদারিত্ব

কনজিউমারদের জন্য মোবাইল ইকোসিস্টেম, পেমেন্ট, সাউন্ড ও ফ্যাশনেব্ল ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস তৈরির লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তির কথা জানিয়েছে এবারের কনজিউমার ইলেক্ট্রনিক শো (সিইএস) ২০১৬-তে। চুক্তির বিভিন্ন দিক এবার তুলে ধরেছে হুয়াওয়ে।

প্রথমেই হুয়াওয়ে এম২ ট্যাবলেটের কথা বলতে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, ১০ ইঞ্চি ডিসপ্লের ট্যাবলেটটিতে উন্নত সাউন্ড ফিচার দেয়ার লক্ষ্যে বিখ্যাত হারম্যান/ কার্ডোন-এর সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। ব্যাক্তিগত সনিক অডিও প্রযুক্তি তৈরিতে হারম্যান ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিখ্যাত।

স্মার্টওয়াচের ব্যবহার প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। সেই লক্ষ্যে হুয়াওয়ে নিজেদের স্মার্টওয়াচে দৃষ্টিনন্দন ডিজাইন দিতে জনপ্রিয় অলংকার নকশা করার প্রতিষ্ঠান সোয়ারভ্স্কি’স জেমস্টোন বিজনেস-এর সঙ্গে মিলে কাজ করছে হুয়াওয়ে। সোয়ারভ্স্কি’স জেমস্টোন বিজনেস মূলত মেয়েদের অলংকার নকশা করে থাকে। আর তাই হুয়াওয়ের তাদের স্মার্টওয়াচকে বলছে ‘ওয়াচ ফর দ্যা লেডি’।

অন্যদিকে সার্চ জায়ান্ট গুগলের সঙ্গে মিলে নতুন গোল্ড সংস্করণের নেক্সাস ৬পি উন্মোচণ করেছে হুয়াওয়ে। নতুন এই ফোনটিতে দেয়া হয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ৬.০ মার্শম্যালো অপারেটিং সিস্টেম, ৫.৭ ইঞ্চির কোয়াড এইচডি ডিসপ্লে, ৩ গিগাবাইট র‌্যাম এবং ৩২/৬৪/১২৮ গিগাবাইট রম। এছাড়া ছবি কিংবা ভিডিও ক্যাপচার করতে আছে ১২ মেগাপিক্সেল রিয়ার ও ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। পুরো ফোনের বডিতে ব্যবহার করা হয়েছে উন্নত মেটাল উপাদান। আছে দ্বিতীয় প্রজন্মের ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর প্রযুক্তি। সব মিলিয়ে আধুনিক সবকটি ফিচার রয়েছে গুগল নেক্সাস ৬পি-তে।

হুয়াওয়ে টেকনলোজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড-এর ডিরেক্টর অব ডিভাইস বিজনেস ইংমার ওয়্যাং বলেন, ‘গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা ও প্রযুক্তি দিতে হুয়াওয়ে সবসময় কাজ করে। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে মিলে আমরা আমাদের পণ্যে সেরা আধুনিক ফিচার যুক্ত করে থাকি। বর্তমানে গ্রাহকরা অনেক সূক্ষ্ম বিষয় বিবেচনা করে স্মার্টফোন ক্রয় করে, যাতে নির্দিষ্ট বাজেটে সেরা ডিভাইসটি ব্যবহার করা যায়। এরই ধারাবাহিকতায় আমরা আমাদের গ্রাহকদের বাজারের অন্যান্য ব্র্যান্ডের তুলণায় সেরা পণ্য ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে সর্বাত্মক চেষ্টা করি।

সম্প্রতি বাংলাদেশের বাজারে মেইট এইট ও জিআর ফাইভ নামের দু’টি ভিন্ন মডেলের স্মার্টফোন বাজারজাত শুরু করেছে হুয়াওয়ে। উল্লেখ্য, দু’টি মডেলই অল্প দিনে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজনেস গ্রুপ

হুয়াওয়ে বর্তমানে ১৭০টিরও বেশি দেশে নিজেদের পণ্য ও সেবা পরিচালনা করছে, যেখানে সারাবিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ অন্তর্ভুক্ত। গত বছর সারাবিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ মোবাইল ফোন রফতানি করেছে প্রতিষ্ঠানটি। যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, সুইডেন, রাশিয়া, চীন ও ভারত মিলে বর্তমানে হুয়াওয়ের ১৬টি রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আরঅ্যান্ডডি) সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। তৃতীয় বিজনেস ইউনিট হিসেবে হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজি-এর আওতায় আছে স্মার্টফোন, মোবাইল ব্রডব্যান্ড ডিভাইসেস, হোম ডিভাইসেস এবং ক্লাউড সার্ভিসেস। প্রায় ২০ বছর ধরে টেলিকম খাতে সফলতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে হুয়াওয়ের গ্লোবাল নেটওয়ার্ক। সারাবিশ্বের মানুষকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে অগ্রগামী করার জন্য হুয়াওয়ে নিরলসভাবে কাজ করছে।

বিস্তারিত অনুসন্ধানের জন্য ভিজিট করুন: consumer.huawei.com/en/

বিস্তারিত জানতে:
ফারহাত আহমেদ
ফোরথট পিআর
ইমেইল: farhat@forethoughtpr.com
মোবাইল: +৮৮০ ১৭১৯৩১০৬৭৯

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.