বিজ্ঞান হল বিশেষ জ্ঞান, যা মানুষের কর্মকান্ডকে সহজ করে  এবং জীবনযাত্রার মান উন্নত করে। আর প্রযুক্তি হচ্ছে বিজ্ঞানের ব্যবহারিক প্রয়োগ। বর্তমানের এই আধুনিক পৃথিবীতে উন্নয়নের অন্যতম প্রধান হচ্ছে মাপকাঠি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি। এই ব্লগে লেখা আমার আগের একটি নিবন্ধ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিক্ষেত্রে আমাদের অবস্থান এর মাধ্যমে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রগুলোতে আমাদের পিছিয়ে পড়ার কারণ সমূহ তুলে ধরার চেষ্টা করেছি । আমাদেরকে শুধুমাত্র পিছিয়ে পরার কারণ অনুসন্ধান করলেই হবে না আমাদেরকে দ্রুত এসকল কারণ সমূহ বিশ্লেষণ করে সমাধানের চেষ্টা করে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদেরও সময় এসেছে বিজ্ঞানকে অন্তরে ধারণ করে প্রযুক্তিকে হাতিয়ার বানিয়ে বিজয়ের মিছিলে একত্রিত হবার।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে এগিয়ে নিতে আমাদের করণীয়:tec24

  • ছোটবেলা থেকেই একটি শিশু যেন মাতৃভাষার মত করে ইংরেজি ভাষা শিখতে পারে এমন পারিবারিক ও সামাজিক পরিবেশ সৃষ্টি করা।
  • পারিবারিক পরিবেশ এবং সামাজিক পরিবেশের উপদান সমূহ বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সহায়ক উপকরণের সমন্বয় ঘটিয়ে এমনভাবে পরিবেশকে গড়ে তুলতে হবে যাতে করে একজন শিশু খুব সহজেই প্রকৃতিকভাবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির মৌলিক বিষয়বস্তু সম্পর্কে শিখতে পারে।
  • পিতামাতাকে তার সন্তানদের বিজ্ঞানমনস্ক করে গড়ে তোলার জন্য নিজেদেরকেও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে জ্ঞানভান্ডার সমৃদ্ধ করতে হবে এবং শিশুদের কৌতুহলের উপযুক্ত সমাধানের ব্যপারে সতর্কতা বৃদ্ধি করতে হবে।
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি চর্চাকে জনপ্রিয় করতে এ বিষয়ক বই-পুস্তক, ম্যাগাজিন, শিক্ষা উপকরণ সহজলভ্য এবং শুল্কমুক্ত করতে হবে প্রয়োজনে সরকারকে বিশেষ ভর্তুকি প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।
  • শিক্ষার্থীদের জন্য ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েব সাইট, কমিউনিটি ব্লগের সংখ্যা বৃদ্ধি ও মান বৃদ্ধি করার জন্য সরকারীভাবে স্বীকৃতি প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিক্ষেত্রে অবদানের জন্য আর্থিক বরাদ্দ প্রদান করতে হবে।
  • বিভিন্ন অঞ্চল, এলাকা এবং বিভাগ ভিত্তিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক ক্লাব, গবেষণাগার, সংগ্রহশালা, লাইব্রেরী, তথ্যকেন্দ্র, নলেজ ব্যাংক, টেকনোলজি ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এবং থানা, উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় এবং জাতীয় পর্যায়ে বিজ্ঞান মেলা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রদর্শনী, বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রতিযোগিতা আয়োজন বৃদ্ধি করে সচেতনতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বিজ্ঞানমনস্ক প্রযুক্তিপ্রেমী প্রতিযোগীদের মধ্যে উৎসাহ বৃদ্ধি করতে হবে।
  • কারিগরি এবং ব্যবহারিক শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বৃদ্ধি, শিক্ষানীতির আধুনিকায়ন, শিক্ষাদান পদ্ধতিতে মাল্টিমিডিয়ার প্রয়োগ ঘটানো, উপযুক্তভাবে প্রশিক্ষিত শিক্ষকের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং ল্যবরেটরী সমূহকে ডিজিটালাইজ করার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদেরকে শুধুমাত্র সার্টিফিকেট অর্জন নয় বরং স্বশিক্ষার মাধ্যমে দক্ষতা নিশ্চিৎ করার ব্যবস্থা করতে হবে।
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় নিয়োজিত শিক্ষকদের বেতন এবং অন্যান্য আর্থিক সুবিধা বৃদ্ধির পাশাপাশি গবেষণা ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।
  • শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে এবং সার্বক্ষণিকভাবে শিক্ষার্থীরা যেন ল্যবরেটরী সমূহকে উপযুক্তভাবে ব্যবহার করতে পারে এজন্য প্রয়োজনীয় ইনফরমেশন, মডিউলর, এক্সপ্রেরিমেন্ট সিটের পাশাপাশি মাল্টিমিডিয়া টিউটোরিয়ালের ব্যবস্থা করতে হবে। এতে করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি হবে এবং তারা স্বশিক্ষায় আগ্রহী হয়ে উঠবে।

technology2010

  • সিলেবাসের অন্তর্ভুক্ত ক্লাসের পাশাপাশি প্রতি সপ্তাহে বাধ্যতামূলক নুন্যতম একটি বিশেষ ক্লাসের ব্যবস্থা করতে হবে যেখানে শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের সাথে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে তাদের সৃজনশীল কর্মকান্ড নিয়ে মুক্ত আলোচনা করবে। শিক্ষক মন্ডলী শিক্ষার্থীদের তৈরি বিভিন্ন প্রজেক্ট পর্যবেক্ষণ করবেন, প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করবেন, তাৎক্ষণিকভাবে সম্ভাব্য সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করবেন, প্রয়োজনে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করবেন। মাঝে মধ্যে সময় ও সুযোগ বিবেচনা করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মুক্ত আলোচনায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গকে আমন্ত্রণ জানানো যেতে পারে, ফলশ্রতিতে শিক্ষার্থীতা অনুপ্রাণিত হবে এবং তাদের জ্ঞানভান্ডার সমৃদ্ধ হবে । প্রয়োজন অনুসারে বিভিন্ন সময়ে শিক্ষার্থীদেরকে বিভিন্ন শিল্প কারখানা পরিদর্শনের ব্যবস্থা করতে হবে যেন তারা তাদের পাঠিত তাত্বিক বিষয়গুলোর ব্যবহারিক প্রয়োগ সম্পর্কে ভাল ধারণা অর্জন করতে পারে।
  • সরকার কতৃক পরিচালিত অথবা নিয়ন্ত্রিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক ট্রেনিং সেন্টারের সংখ্যা বৃদ্ধি করে স্বল্প মেয়াদী এবং দীর্ঘ মেয়াদী কোর্সের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনীয় আধুনিক শিক্ষা উপকরণ দ্বারা সজ্জিত উপযুক্ত পরিবেশে দক্ষ এবং উচ্চ প্রশিক্ষিত প্রফেশনাল ট্রেনার দ্বারা মাল্টিমিডিয়া পদ্ধতিতে ট্রেনিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। সর্বস্তরের মানুষ যেন এই সুবিধা লাভ করতে পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা প্রণয়ন করে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
  • গবেষণার ফলাফল প্রদর্শনের জন্য একটি জাতীয় রূপরেখা তৈরি করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রে অবদানের জন্য উপযুক্ত স্বীকৃতি প্রদান এবং এক কালীন অথবা দীর্ঘ মেয়াদী ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে। বিভিন্ন স্তরে বিভিন্ন বিষয়ে ব্যক্তিগত এবং সমন্বিত পর্যায়ে গবেষণা প্রকল্পের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং তা পরিচালনার জন্য সরকারী আর্থিক বরাদ্দের ব্যবস্থা করতে হবে। গবেষণার ফলাফল বিশ্লেষণ করে তাকে বানিজ্যিক রূপ দানের ব্যবস্থা করতে হবে।
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ভিত্তিক শিল্প প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে শিল্পোদ্যোক্তাদের কারিগরি সহায়তা, অর্থনৈতিক সুবিধা, সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা এবং প্রাকৃতিক ও রাষ্ট্রীয় সম্পদ ব্যবহারের ক্ষেত্রে সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করে ছোট আকৃতির অথবা বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে উচ্চ শিক্ষিত মেধাবীদের জন্য উপযুক্ত কর্মক্ষেত্রের ব্যাবস্থা করতে হবে।
  • সরকারের সদিচ্ছা ও দূরদর্শী পরিকল্পনার সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমে দ্রুত উন্নয়ন নিশ্চিৎ করতে হবে।
  • বিনিয়োগের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে দেশি বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নিতে হবে।
  • বিদেশে কর্মরত মেধাবীদের ফিরিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।techno

বিজ্ঞানের উদ্দেশ্য বিজ্ঞানী তৈরি করা, বিজ্ঞানীর হাত দিয়ে প্রযুক্তিকে সমৃদ্ধ করা। আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে অনেক বিজ্ঞান অনুরাগীকে দেখেছি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে এগিয়ে নিতে আপ্রাণ চেষ্ট করতে, গতানুগতির বাইরে বেরিয়ে এসে কিছু করে দেখানোর প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যেতে। কিন্তু প্রযোজনীয় সুযোগ ও সীমবদ্ধতার করাণে তাদেরকে পিছিয়ে যেতে হয়েছে বারবার। তবে আমি তাদের কাছ থেকে কখনো খালি হাতে ফিরে আসিনি। যখনই কোন সাহায্যের জন্য গিয়েছি চাহিদার থেকে অনেক বেশিই পেয়েছি। আজ যতুটুকু বিজ্ঞানকে নিয়ে চিন্ত করেতে শিখেছি তাও তাদেরই কৃতিত্ব। নিচের ভিডিও ক্লিপটি আর এক শ্রদ্ধেয় বড় ভাই Nasrullah Shamim ভাই এর । যিনি রোবটিক্স এর উপর অনেকখানি এগিয়েও যেন তাকে পিছিয়ে যেতে হয়েছে।

যদিও সরকার এবং দেশের নীতিনির্ধারণী মহলের শুভদৃষ্টি আমাদের সকলের পরম কাঙ্খিত এবং অপরিহার্য সত্য তারপরও আমাদের শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ঠদের আশায় বসে থাকলে চলবে না। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে এগিয়ে নিতে আমাদের করণীয় কার্যাবলীর বেশিরভাগই মানষিকতা,পরিবার এবং পরিবেশের উপর নির্ভরশীল। তাই আমাদেরকে স্ব স্ব অবস্থান হতে আমাদের দুর্বলতা এবং অলসতাগুলো নির্ণয় করে কাজ শুরু করে দিতে হবে। আমার মত হয়তবা আপনিও স্বপ্ন দেখেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ, দারিদ্র মুক্ত, দুর্নীতি মুক্ত, সন্ত্রাস মুক্ত একটি স্বাধীন সমৃদ্ধ বাংলাদেশের।

comments

24 কমেন্টস

  1. সরকারের আশা না করে আমাদেরই কিছু করতে হবে। তারাতো নিজেদের বস্তায় $ তুলতেই ব্যস্ত। আর দেশের ভেতরে গবেষনার সুযোগ তৈরি না হলে অনেক মেধাবী দেশের বাইরে চলে যাবে। যারা বাইরে আছে তারাতো উন্নত বিশ্বের সুযোগ-সুবিধা ছেড়ে আসবেই না। সামগ্রিক অবস্থার উন্নয়নের জন্য দেশপ্রেমও প্রয়োজন যেটি আমাদের মাঝে নেই বললেই চলে।

    • ভাই, আপনি ঠিকই বলেছেন। আমাদের মাঝে দেশ প্রেম নেই। কিন্তু আপনি আমাকে একটা কথা বলেন, যে ছেলে টা চার- পাচ বছর ধরে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়লো, তাকে আপনি কি কাজ করতে দিবেন দেশে ????????
      নেটওয়ার্ক ট্রাবলশুটিং ???? নাকি কম্পিউটার এর RAM চেঞ্জ ??? নাকি OS Installation ?এগুলো ছাড়া দেশে আর কি করবে ??

      অপর দিকে , সেই ছেলেকে যদি বলা হয়, আমাদের দেশে তুমি চিপ ডিজাইন করবে। R&D করবে। আমরা তোমাকে Computer System Architecture এর উপরে কাজ করতে দিব……

      সে ছেলেটি কি করবে ??? ছেলেটির হাতে দুটি অপশন আছে……

      • ধন্যবাদ রিয়াজুল হাশেম ভাই। বেশ কিছুদিন আগে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনে ভি এল এস আই গবেষণাগারে ওয়েফার ফেব্রিকেশনের জন্য ক্লিন রুম তৈরির কাজ শুরু হয়েছে জেনেছিলাম, সেটা যে কি পর্যায়ে আছে আমার জানা নেই ।

    • ধন্যবাদ ইমতিয়াজ ভাই । আমাদের মত তরুনদের মাঝে দেশপ্রেম যে নেই কথাটি পুরোপুরি ভাবে মেনে নিতে পারছি না । একরকম তারা নিজেদের প্রমান করার সুযোগের অপেক্ষায় আছে। তবে নীতিনির্ধারণী মহলের দেশপ্রেমটা জরুরী।

  2. আসলে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। অতিতের সৃষ্টিগুলো সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে করতেই আমাদের সময় চলে যায়। নতুন কিছু উদ্ভাবন তো দুরের কথা আমরা অআধুনিক অনেক কিছুর সাথে পরিচিতই না।
    ইলেক্টনিক্সের কথা বলতে গেলে বলতে হয়, আমাদের দেশ যেখানে সামান্য রেজিষ্টার বানানোর কারকানা নাই সেখানে মাইক্রোচিপ কিভাবে বানানোর চিন্তা করবো?
    তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশের ভবিষ্যত ভাল হবে বলেই মনে হচ্ছে। এর অনেকগুলো সম্ভাবনাময় কারনের মধ্যে একটি হলো- যে কোন জায়গায় বসে সমান পরিমান কাজ করা সম্ভব।

  3. ধন্যবাদ মাহাবুব ভাই ।একটি শিশু না কাদলে কিন্তু তার মা বুঝতে পারে না যে শিশুটির ক্ষুধা লেগেছে, তাকে খেতে দিতে হবে। আসলে আমাদেরকে প্রথমেই চিন্তা করতে হয় আর্থিক চাহিদা পূরণের দিকটা, একটা বিষয়ে আমি দক্ষতা অর্জন করলাম তার বিনিময়ে আমি কতটা মূল্য পেতে পারি। বাংলাদেশের একজন ব্যক্তি হয়তবা ৬ মাস চেষ্টা করে গ্রাফিক্স ডিজাইন কিংবা ওয়েব প্রোগ্রামিং শিখে প্রফেশনাল হতে পারেন কিন্তু একজন ব্যক্তি ৬ মাস ভি এল এস আই ডিজাইন শিখে কিছুই কিন্তু করতে পারবে না। বেশ কিছু ফ্রিল্যান্সিং সাইটে দেখেছি ইলেকট্রনিক্সের পি সি বি ডিজাইন, সার্কিট ডিজাইন, প্রজেক্ট ডেভলপমেন্ট সহ অনেক ধরণের কাজ পাওয়া যায় যা বাংলাদেশে বসে করা যে একেবারে সম্ভব নয় তা কিন্তু না। কিন্তু যদি কেও এই কাজ গুলো করতে চায় তাকে অনেক বেশি ধর্য্য ধারণ করতে হবে জ্ঞানের পরিধী বাড়াতে হবে। অপনি একবার চিন্তা করে দেখুন যে আপনি ১০ বছর কোন আয় রোজগার করবেন না সাথে আপনি কোন বিয়য়ে এই ১০ বছর একটা গবেষণা কার্য পরিচালনা করবেন সেটা কতটা বাস্তবতার সাথে মিলবে অথবা আমাদের দেশের কয়জন ব্যক্তির পক্ষে সেটা সম্ভব হবে? ঠিক এই কারনেই হয়তবা আমরা এতদিন সেভাবে চাইতেই পারিনি যে আমাদের দেশেই মাইক্রোচিপ তৈরির মত প্রতিষ্ঠান তৈরি হোক। কিন্তু এভাবে আর কত দিন। আসুন সবাই মেলে একটা চিৎকার দেই হয়তবা কিছ পাওয়া গেলেও যেতে পারে।

  4. আপনার লেখাটি অনেক ভালো হয়েছে। এটি যেকোন সংবাদ পত্রে পাঠিয়ে দিন। সরকারের সব মহলের নজরে আসা উচিৎ ব্যাপারটি। 🙂

  5. ধন্যবাদ অসীম ভাই লেখাটি অনেক ভালো হয়েছে ধন্যবাদ

  6. I just want to tell you that I am just beginner to blogging and certainly enjoyed you’re web site. More than likely I’m likely to bookmark your site . You actually have incredible well written articles. Thanks a bunch for sharing with us your website.

  7. It is awesome that Gong Ross watches can well-known international reputation inside of twenty years. Even though the reputation Bell Ross different watches is faster than a great many other well known designer watches, there’s no denying which the availability of these trendy timepieces can carry assessment with numerous centuried top quality designer watches.
    Relogios Rolex Cellini

  8. Imitation Rolex watch GMT in grün au?en ist perfekt durch einem Luxus- Gelbgold Geh?use und Armband , perish K?nigswürde vollst?ndig frei abgestimmt. Verglichen mit der letzten Technology , diese Replik Rolex timepiece GMT steht mit einem Journey -Fasten Krone statt eines Twin-Locking mechanism Krone. Was mehr ist, wenn Sie eine Test out tragen haben , finden Sie das Armband mit einem neuen Verschluss , pass away Sie mit der M?glichkeit , das Armband zu erweitern bietet sowie hier k?nnen Sie Feineinstellung machen konzipiert. Und pass away kreative Funktion der Replik Watch-Uhren zu drei verschiedenen Zeitzonen zu lesen ist unn?tig zu sagen .
    breitlingreplicauhren.beepworld.de

  9. Make an surroundings that is definitely rest helpful. Try to restriction the application of your bedroom to rest. It has to be held quiet and cool, and also as dark-colored as is feasible. If you have large windows or they face the sun, invest in a set of blackout curtains. This will help to maintain your lightweight out so you can get to sleep extra peacefully.

  10. It is normal for people to face tough times in this economy. Whether you’re in financial trouble or not, coupons can save you a load of money. As cliche as it sounds, coupons really do provide tons of savings. Keep reading for more on this.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.