হুয়াওয়ের কাস্টমার সল্যুশন ইনোভেশন এ্যান্ড ইন্টিগ্রেশন এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার (সিএসআইসি)-তে বার্ষিক প্রতিভা উন্নয়ন প্রোগ্রাম ‘সিড্স ফর দ্যা ফিউচার- ২০১৬’ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করেছে বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড।তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিভাবান শিক্ষার্থীদের সামগ্রিক উন্নয়ন, জ্ঞানের আদান-প্রদান এবং তরুণ প্রজন্মের মধ্যে আধুনিক প্রযুক্তি সম্পর্কিত সক্ষমতা তৈরির পাশাপাশি টেলিযোগাযোগ খাতে আগ্রহী করে গড়ে তোলার উদ্দেশ্যেই উক্ত প্রোগ্রাম আয়োজন করছে হুয়াওয়ে।

বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ছয়টি প্রযুক্তি বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ১০ মেধাবী শিক্ষার্থীকে শিক্ষা সফরের উদ্দেশ্যে পাঠানো হবে। ছয়টি প্রযুক্তি বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ডিইউ), ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি (আইইউটি), খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট), রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)।

‘তথ্য-প্রযুক্তির উদ্ভাবণের মাধ্যমে বাংলাদেশীদের দৈনন্দিন জীবনকে উন্নত করা’ শ্লোগানকে সামনে রেখে হুয়াওয়ে কাজ করছে যাতে করে তরুণ ও পরিশ্রমী শিক্ষার্থীদের মাঝে তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক নতুন চিন্তা ও সল্যুশন বেরিয়ে আসে।প্রাথমিকভাবে আইডিয়া প্রেজেন্টেশন প্রতিযোগিতায় প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে দুটি করে দুই সদস্যের দল অংশ নিতে পারবে।দলগুলোকে যাচাই-বাছাই করবেন সন্মানিত বিশেষজ্ঞ নির্বাচক পর্ষদ।মোট ১২টি দল থেকে পাঁচটি দল নির্বাচন করা হবে শিক্ষা সফরের জন্য।

দুটি পর্বে ভাগ করা হয়েছে উক্ত শিক্ষা সফরটি।প্রথম পর্বে শিক্ষার্থীদের বেইজিং-এ অবস্থিত বেইজিং ল্যাঙ্গুয়েজ এ্যান্ড কালচার ইউনিভার্সিটিতে চাইনিজ ভাষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।দ্বিতীয় পর্বে শিক্ষার্থীরা হুয়াওয়ে থেকে হাতে-কলমে প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষণ নেয়ার সুযোগ পাবে। শিক্ষার্থীরা চীনের শেনঝেনে অবস্থিত হুয়াওয়ের হেডকোয়ার্টারে সফরের সুযোগ পাবে এই পর্বে।সেখানে তারা হুয়াওয়ের সংস্কৃতি, কাজের ধরন, পরিবেশ, কৌশল ও গুরুত্ব বুঝতে সক্ষম হবে। এছাড়া হুয়াওয়ের স্টেট-অব-দি-আর্ট গবেষণা ও উন্নয়ন সেন্টার এবং ফ্যাক্টরিতে ভিজিট করার সুযোগ পাবে যেখানে হুয়াওয়ের অভিজ্ঞ প্রকৌশলীদের সঙ্গে মিলে আইসিটি ও সল্যুশন বিয়ষক প্রশিক্ষণ নিতে পারবে।

‘সিড্স ফর দ্যা ফিউচার-২০১৬’-এর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দিতে গিয়ে আইসিটি ডিভিশনের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, “ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবে এমন প্রতিভাবান শিক্ষার্থীদের উন্নয়নের লক্ষ্যে হুয়াওয়ের এমন পদক্ষেপকে আমি আন্তরিকভাবে সাধুবাদ জানাই। এ ধরণের প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরা হাতে-কলমে বিশ্বের অত্যাধুনিক তথ্য-প্রযুক্তি সম্পর্কিত শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে এবং দেশের নাম উজ্জল করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।”

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত মা মিংচিয়াং বলেন, আমি মনে করি, দারুণ একটি কাজ করেছে হুয়াওয়ে। প্রতি বছর হুয়াওয়ে উক্ত প্রোগ্রামের আওতায় বিশ্বব্যাপি প্রায় ১,০০০ নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে এবং বাংলাদেশের জন্য এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ।”

হুয়াওয়ে টেকনোলজিস কোঃ লিঃ-এর দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার পিএসিডি ডিরেক্টর ডেভিড লিউ বলেন, “‘সিডস ফর দ্যা ফিউচার’ ইতিমধ্যে সফল একটি প্রকল্প হিসেবে সারাবিশ্বে প্রতিষ্ঠিত আর এজন্য আমরা গর্বিত। কর্মক্ষেত্রে হাতে-কলমে কাজের ধরন ও প্রযুক্তি বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে একটি সেতু বন্ধন তৈরির লক্ষ্যে বিশেষভাবে ডিজাইন বা নকশা করা হয়েছে হুয়াওয়ের এই ফ্ল্যাগশিপ সিএসআর প্রোগ্রামটি।”

হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ঝাও হাওফু এক বিবৃতিতে বলেন, “বাংলাদেশে ‘সিডস ফর দ্যা ফিউচার-২০১৬’ আয়োজন করতে পেরে আমরা অনেক খুশি। এটি আমাদের জন্য অত্যন্ত সন্মানের যে, আমরা হুয়াওয়ে বাংলাদেশ পর পর তিনবার ‘সিডস ফর দ্যা ফিউচার’-এর মতো গ্লোবাল প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে পারছি। দেশের মেধাবী শিক্ষার্থীদের তথ্য-প্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন এবং প্রযুক্তি সংক্রান্ত জ্ঞানের আদান-প্রদানে ব্যাপক সাহায্য করবে।”

বিশ্বব্যাপি ৬৭টি দেশ ও অঞ্চলে ইতিমধ্যে ‘সিড্স ফর দ্যা ফিউচার’ প্রোগ্রাম ইতিমধ্যে বাস্তবায়ন করেছে হুয়াওয়ে।উক্ত প্রোগ্রামের আওতায় বিশ্বব্যাপি ১৫০টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় ১,৫০০০ শিক্ষার্থী উক্ত প্রোগ্রমে দ্বারা উপকৃত হয়েছে। গত ২০১৫ সালে ৮০০ জনের বেশি দর্শনার্থীসহ বিশ্বের ১,৭০০-এরও বেশি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা হুয়াওয়ের গ্লোবাল হেডকোয়ার্টারে শিক্ষা সফর করার সুযোগ পেয়েছে।উল্লেখ্য, বাংলাদেশে গত ২০১৪ সালে ‘সিড্স ফর দ্যা ফিউচার প্রোগ্রাম’ প্রথম চালু করে হুয়াওয়ে আর ইতিমধ্যে এ ক্ষেত্রে ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.