বর্তমান সময়ে প্রকৌশলের বিভিন্ন বিষয়ের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় বিষয় হয়ে উঠেছে তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং, আমরা যেটা ট্রিপল-ই নামে চিনি। সব সরকারি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে পাশাপাশি  এখন এ বিষয়ে পড়ার সুযোগ প্রসারিত হয়েছে বেশ কটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও। অনেকেই এখন স্বপ্ন দেখে একজন ভালো মানের ইঞ্জিনিয়ার হবার। আমাদের দেশের সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সবার পড়ার শুজক হয়না তবে দেশের ভেতরে যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় গুলো আছে সেগুলো কিন্তু কোন অংশে কমা না। একটি উজ্জল ভবিষ্যতের জন্য আমি মনেকরি ইঞ্জিয়ারিং পেষাটি যথেষ্ট সম্মান দায়ক। এবং বর্তমানে এটি খুব চাহিদা সম্পন্ন একটি পেশা।

IMG_70331-e1368021336436

একজন ট্রিপল-ই ইঞ্জিনারের কাজের ক্ষেত্র কেমন হতে পারে-

ইলেকট্রনিকসের বিপ্লবের এই যুগে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে এমন কোনো কাজ পাওয়া যাবে না, যেখানে তড়িৎ প্রকৌশলীর প্রয়োজন নেই। সাধারণ বিদ্যুৎ, গ্যাস বা নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট থেকে শুরু করে টেলিকমিউনিকেশন বা কম্পিউটার ফার্ম—দেশে-বিদেশে কোথায় নেই দক্ষ তড়িৎ প্রকৌশলীর চাহিদা। বিদেশি কোম্পানিগুলোর কথা যদি বাদও দেওয়া হয়, শুধু বাংলাদেশেরই একটি টেলিকম কোম্পানিতে পাঁচ হাজারেরও বেশি প্রকৌশলী কর্মরত আছেন। অনেকে তড়িৎ প্রকৌশলী হওয়ার পর প্রোগ্রামার বা কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবেও কাজ করে থাকেন বিভিন্ন বড় বড় কোম্পানিতে। মূল কথা, তড়িৎ প্রকৌশলের আলোচনা ও পড়ালেখার ক্ষেত্র বিস্তৃত হওয়ায় কাজের ক্ষেত্রটিও তাই বেশ বিশাল। তাই দেশে বা বিদেশে সবখানেই একজন দক্ষ তড়িৎ প্রকৌশলী চাকরিক্ষেত্রে অত্যন্ত চাহিদাসম্পন্ন ব্যক্তি।

bridge_full_wave_rectifier

কোথায় পড়লে ভালো হয়-

অনেকগুলো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্রিপল-ই পড়ার সুযোগ রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হচ্ছে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এআইইউবি), আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (আইইউবি), নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি চিটাগাং, এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় ইত্যাদি।

এসব বিশ্ববিদ্যালয়েই চলতি ভর্তি মৌসুমে পরবর্তী সেমিস্টারের জন্য পরীক্ষা বা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল থেকে তৈরি মেধাতালিকার মাধ্যমে ভর্তি-প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে শিগগিরই। ভর্তি-সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ওয়েবসাইটে।

 

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়: www.ewubd.edu

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ: www.aiub.edu

আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়: www.aust.edu

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়: www.bracuniversity.ac.bd

ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ: www.iub.edu.bd

ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি চিটাগং: www.ustc.edu.bd

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়: www.northsouth.edu

এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়: www.uap-bd.edu

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি: www.iub.edu.bd

ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়: www.daffodilvarsity.edu.bd

সূত্রঃ প্রথমআলো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here