দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলা প্রযুক্তি নির্ভর এই পৃথিবীতে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন প্রযুক্তি মানুষের দৈনন্দিন জীবনকে সহজ করে তুলতে দারুন ভূমিকা পালন করছে।  শুধু মানুষেরই নয়, সমগ্র প্রাণীকুলের জন্য আশীর্বাদ হয়ে কাজ করছে আধুনিক প্রযুক্তি।

এরকম একটি প্রযুক্তি নিয়ে এসেছে পরিবেশ সংরক্ষণবাদীরা, যা বন্যপ্রাণী নিয়ে অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ করতে সাহায্য করবে বিশ্বজুড়ে।

ওয়াইল্ডলাইফ উইটনেস নামের এই অ্যাপটি বণ্যপ্রাণীর অবৈধ ব্যবসা বন্ধে সাহায্য করবে বলে ধারনা করছেন পরিবেশ  সংরক্ষণবাদীরা। পরিবেশ সংরক্ষণবাদীরা এজন্যে সাধারণ লোকজনকে ভূমিকা রাখার আহবান জানিয়েছেন। তারা এই স্মার্টফোন অ্যাপ তৈরি করেছেন যাতে বন্যপ্রাণীর অবৈধ ব্যবসা হচ্ছে এরকম সন্দেহ হলেই তার ছবি ও তথ্য তুলে ধরতে পারে।

1-velvet-monkey
অস্ট্রেলিয়ার একটি সংস্থা বন্যপ্রাণীর ব্যবসার ওপর নজর রাখে এরকম একটি নেটওয়ার্কের সাথে মিলে এই অ্যাপটি তৈরি করেছে। বলা হচ্ছে, এই তথ্য ও ছবি ব্যবহার করে সংশ্লিষ্ট বাহিনী যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পারে। জাতিসংঘ বলছে, অর্থের হিসেবে প্রতিবছর এই বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় হাজার হাজার কোটি টাকা।

পরিবেশ সংরক্ষণবাদীদের মতে, বন্যপ্রাণীর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিক্রি বন্ধে নানা ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও এই ব্যবসা দিনে দিনে বাড়ছে। যেসব প্রাণী প্রায় হারিয়ে যেতে চলেছে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সেসব প্রাণীর শিকারও বেড়ে গেছে।

তারা বলছেন, বাঘ, গণ্ডার ও হাতি শিকার গত কয়েক বছরে বৃদ্ধি পেয়েছে কারণ এসব প্রাণীর বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের চাহিদাও আগের তুলনায় বেড়েছে। বলা হয় চীনেই এর সবচেয়ে বড় বাজার।

যুক্তরাজ্যে সুপরিচিত একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান চ্যাটাম হাউজ তাদের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলেছে, এই চাহিদা বাড়ছে অত্যন্ত উদ্বেগজনক হারে।

প্রতিবেদনের গবেষকরা বলেছেন, হাতির দাঁতের ব্যবসা ২০০৭ সালের তুলনায় দ্বিগুণ হয়েছে। গণ্ডারের শিং এর দাম এখন সোনা ও প্লাটিনিয়ামের চেয়েও বেশি। যুক্তরাষ্ট্রে এক কিলোগ্রাম শিঙ এর দাম প্রায় ৬৬ হাজার ডলার।

অপরাধ প্রতিরোধী সংস্থাগুলো বলছে, অপরাধীরা এখন বন্যপ্রাণীকে এমনভাবে টার্গেট করছে যা ড্রাগ, অস্ত্র ও মানব পাচারের প্রায় সমান পর্যায়ে পৌছে গেছে।

স্মার্টফোন অ্যাপটি বিশেষ নজর রাখবে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দিকে কারণ এই এলাকাকে বন্যপ্রাণীর অবৈধ বাণিজ্যের কেন্দ্র বলে মনে করা হয়।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.