সারা বিশ্বে ভার্চুয়াল ফুটবল গেমভক্তদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে গত ২৭ সেপ্টেম্বর বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে ইলেক্ট্রনিক আর্টস (ইএ)-এর ফুটবল গেম ফিফা-এর সর্বশেষ সংস্করণ ফিফা-১৭। ইএ-এর প্রতিপক্ষ গেম সংস্থা জাপানি প্রতিষ্ঠান কোনামি’র প্রো-ইভোলিউশন সকার (পেস) সিরিজকে টেক্কা দিতে ফিফা-১৭তে আনা হয়েছে নতুন কিছু ফিচার, যা আগের গেমগুলোকে সবদিক দিয়েই ছাড়িয়ে যাবে বলে জানা গিয়েছে।

যেসব নতুন ফিচার আনা হয়েছে নতুন এই গেমটিতে-

ফ্রস্টবাইট গেমিং ইঞ্জিনে তৈরি ফিফা-১৭ এর সবচেয়ে লক্ষণীয় দিক হচ্ছে এর দুর্দান্ত গ্রাফিক্স আর উন্নততর গেমপ্লে। ফটোরিয়ালিস্টিক প্লেয়ার মডেল, প্লেয়ার ও মাঠের ক্ষেত্রে আনা আরও বাস্তবধর্মী অ্যানিমেশন, স্টেডিয়াম রেন্ডারস আর লাইটিং গেমটির আবেদন বাড়িয়ে তুলেছে অনেক পরিমাণ বেশী।

গেইমপ্লে-এর দিক থেকে পূর্ববর্তী গেম ফিফা-১৭ এর প্রায় সব ঘাটতিই পূরণ করেছে ফিফা ১৭। খেলোয়াড়, বল ও মাঠের মধ্যে খেলার গতি ও শক্তির ধারা অব্যাহত রাখতে কলিশন ডিটেকশন সিস্টেম সম্পর্কিত ত্রুটি দূর করা হয়েছে। এ ছাড়াও গেমটির পাসিং সিস্টেমের ডিফিকাল্টি লেভেল এবং ডিফেন্ডারদের দক্ষতা বাস্তবের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই বাড়িয়ে তোলা হয়েছে।

ফিফা ১৭-এ ‘সবচেয়ে আকর্ষণীয় হিসাবে আনা হয়েছে ‘দ্যা জার্নি’ মোড। এ মোডে খেলোয়াড় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে নবাগত ‘আলেক্স হান্টার’ চরিত্রে খেলবেন। এ রোল-প্লেয়িং মোডটি কিছুটা বাঁধাধরা গল্পের মত, মাঠ ও মাঠের বাইরে খেলোয়াড়ের সিদ্ধান্তই গড়ে দেবে চরিত্রটির ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার। এ ছাড়াও প্রতিটি ম্যাচের শুরুতেই গোটা দল অথবা আলাদাভাবে শুধু হান্টার চরিত্রটিকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে বাছাই করার সুযোগ পাবেন খেলোয়াড়রা। এর সঙ্গে কাটসিন, ভয়েস অ্যাক্টিং, চরিত্রগুলোর মুখের নড়াচড়া ও শব্দের মধ্যে ‘অসাধারণ সামঞ্জস্য ও আকর্ষণীয় স্ক্রিপ্ট’ গেমটিকে নিয়ে গেছে অন্য লেভেলে।

উন্নত ভিস্যুয়াল, নিখুঁত গেমপ্লে এবং ‘দ্যা জার্নি মোড’– প্রতিটি ক্ষেত্রেই অনবদ্য অর্জনই বলে দেয় ভার্চুয়াল ফুটবল দুনিয়ায় দাপটের সঙ্গে রাজত্ব করতেই এসেছে ফিফা 17। এই গেমটি খেলতে যা লাগবে, প্লেস্টেশন ফোর, প্লেস্টেশন থ্রি, এক্সবক্স ওয়ান, এক্সবক্স থ্রিসিক্সটি, পিসি

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.