হাম্পব্যাক তিমি নিজে শুধু গান গায়ই না বরং অন্যান্য তিমি কে গানও শিখায়। এবং কিছু কিছু গান বিশ্ব বিখ্যাতও হয়েছে এবং জনপ্রিয়তার (মূলতঃ তিমিপ্রিয়তা ) জন্য সেই গান বিশ্বের বিভিন্ন সাগর মহাসাগরের অন্যন্য তিমিদের কাছে পৌছে গেছে এবং সেই গান বিশ্বের বিভিন্ন জায়গার তিমিদের শিখাচ্ছে অন্যন্য তিমিরা।

প্রশান্ত মহাসাগরের নিচে গান শেখানো হয়

প্রশান্ত মহাসাগরী অঞ্চলে হ্যাম্পব্যাক প্রজাতীর তিমিদের মধ্য থেকে ১১ টি জনপ্রিয় গান রেকর্ডিং করেছে গবেষক দল। গানগুলো ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০৮ সালে অনেক বেশি বিখ্যাত ছিল তিমিদের রাজ্যে। গত বৃহস্পতিবার ১৪ই এপ্রিল’১১ তাদের পর্যবেক্ষণের তথ্য প্রকাশ করা হয়। এতে জানানো হয়- গানগুলো এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে যেতে এক বছরের মতো সময় লেগে যায়। পূর্ব অস্ট্রেলিয়াতে যে গান শোনা যায় এক বছর পরে সেটা আবার ফ্রান্স পলিনেশিয়াতে শোনা যায়।

অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড বিশ্ব বিদ্যালয়ের গারল্যান্ড জানান সম্ভবতঃ প্রজননের জন্যই এই সময় লাগে। শুধুমাত্র পুরুষ তিমিই গান গায় এবং সম্ভবতঃ স্ত্রী তিমিদের আকৃষ্ট করারা জন্য। বিশেষ করে তারা একই দলভুক্ত হয়ে থাকার কারনে গান প্রচার করা বা অন্য দলের তিমিকে শিখানোতেও দেরী হয়ে যায়।

আরো একটি মজার তথ্যও জানা গেছে- মানুষ যেমন গানগুলোর সুরকে একটু পরিবর্তন বা রিমিক্স যোগ করে ঠিক তেমনিভাবে, এক প্রজাতী থেকে অন্য প্রজাতীতে গানগুলো ছড়ানোর পরে বেশ কিছু বিকৃতিও লক্ষ্য করা যায়।

তাহলে শুনে নেই তিমি রাজ্যের জনপ্রিয় একটি গান

comments

3 কমেন্টস

    • চলেন তিমিগো একটা লাইফ কনসার্টের আয়োজন করি… 🙂 টাইটানিকের মতো জাহাজে বসিয়ে তাদের খাবার খাওয়ামু। কিন্তু স্টেজটা কিভাবে বানানো যায়.. ❓ বুদ্ধি দেন তো 😉

  1. এক কাজ করেন স্টেজ টা পুরা সমুদ্রের পানি বরফ বানিয়ে তা তুলে এনে বানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.