আউটারনেট” বর্তমানে নামটা সবার কাছে অপরিচিত, কিন্তু আর কিছুদিনের ভেতরে এই নামটি’ই থাকবে সবার মুখে মুখে। অবাক হচ্ছেন? ফ্রি ওয়াইফাই তাও আবার পৃথিবীর যে কোন প্রান্তে। কিভাবে সম্ভব?

হ্যাঁ বিজ্ঞানের খাতায় অসম্ভব নামটি আর হয়তো থাকছে না। অন্তত এই বিষয়ে নিশ্চিত থাকুন।

NEWS_wifi_final

 

আসল কথায় যাবার আগে চলুন একটি ছোট্ট গল্প শুনি-

কেমন হয়? ধরুন বন্ধুদের সাথে সুন্দরবনে ঘুরতে গেলেন। হটাৎ করে দেখা মিলল “বাধ মামার” খুব আগ্রহ নিয়ে ডিএসএলআর ক্যামেরা দিয়ে তার ছবিও তুললেন। এবার ক্যাম্পে ফিরে ল্যাপটপ অন করে দেখলেন মোডেম আনতে ভুলে গেছেন, এবার? এতো সাধের ছবি কি তবে ফেসবুকে আপলোড দেওয়া হবেনা?

নো চিন্তা জাস্ট চিল, আছে “আউটারনেট” মডেম নেই তাতে কি হয়েছে ওয়াইফাই কানেকশন তো আছে।

“আউটারনেট” কিভাবে কাজ করে?-

এটি এমন একটি ডিভাইস যা সরাসরি স্যাটেলাইট এর সাথে সংযুক্ত হয়ে আপনাকে দিবে ইন্টারনেট সেবা। তা সে আপনি পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুন না কেন। আউটারনেট টি সাথে রাখবেন ব্যাস ইন্টারনেট আর কোন ব্যাপারী না। এটি মূলত “মোডেম+রাউটারের” উন্নত সংস্করণ যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে স্যাটেলাইটের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারে। মজার ব্যাপার হল এটি চালাতে কোন বারতি চার্জের প্রয়োজন পরে না এমকি এটি ব্যবহার করে আপনি আপনার মোবাইল ও চার্জ করে নিতে পারবেন। কিভেব? কারন ডিভাইসটিতে লাগানো আছ সোলার প্যানেল যা আপনার মোবাইল ফোনটিকে অনায়াসে চার্জ করে দিবে।

বর্তমানে ইউরোপের অনেক দেশে আউটারনেট সংযোগ পাওয়া যাচ্ছে। আবিষ্কারকেরা মনে করেন যে, যদি তাঁরা পর্যাপ্ত পরিমানের ফান্ডের ব্যবস্থা করতে পারে তবে ২০১৫ সাল নাগাত পুরো পৃথিবীজুড়ে ফ্রি ওয়াইফাই ইন্টারনেট সেবা দিতে পারবে। বর্তমানে প্রতি একজন “আউটারনেট” ব্যবহারকারি প্রতিদিন সর্বচ্চ ২০০এমবি পর্যন্ত ফ্রি ডাটা ব্যবহারের শুজক পাচ্ছে।

আউটারনেট কর্তিপক্ষ জানিয়েছে, তাঁরা জেহুতু স্টার্টআপ কোম্পানি তাই তাদের মূলধনের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তবে তাঁরা চেষ্টা করে যাচ্ছে কিভাবে ফান্ডরাইজিঙের মাধ্যমে আরও বেশী অর্থের জোগাড় করা যায়।

একবার তাদের পর্যাপ্ত অর্থের যোগান হয়ে গেলে পুরো পৃথিবীজুড়ে তো বটেই এমনকি বর্তমানের চেয়ে কয়েকগুণ বেশী ডাটা ব্যবহারের সুবিধা পাবেন আর সাথে থাকবে ৪জি স্পীড।

সত্যি বলতে খবরটি জানার পরে ব্যক্তিগত ভাবে খুব বেশী এক্সাইটেড। আশা করছি অতি দ্রুত তাদের কার্যক্রম আমাদের মতো স্বল্পউন্নত দেশে চলে আসবে। প্রোজেক্ট টির আরও ভালো দিক হচ্ছে, তাদের নজর বর্তমানে আমাদের মতো গরিবে দেশের প্রতি। কারন এশিয়া মহাদেশ তুলনামূলক স্বল্পউন্নত এবং এখানে ইন্টারনেটের সহজলভ্যতা নেই।

আউটারনেট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানার আগ্রহ থাকলে ঘুরে আসতে পারেন এই লিংক থেকে।

comments

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.