মধ্যকার্ষণ শক্তির ভিত্তিতে বিজ্ঞানীরা পৃথিবীর একটি সুনির্দিষ্ট আকৃতি তৈরী করেছেন। মূলতঃ  বিভিন্ন অবস্থানে  ভূ-পৃষ্ঠে কোন বস্তুর ওজনের উপরে ভিত্তি করে এই ম্যাপ তৈরী করা হয়। যা দেখতে আলুর মতো, যদিও  বাস্তবে পৃথিবী দেখতে কমলা লেবুর মতো। জলবাযুর পরিবর্তন, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি ও ভূ-প্রকৃতির পরিবর্তনের ভিত্তিতে পৃথিবীর বিভিন্ন অবস্থানে মধ্যকার্ষণ শক্তির পরিবর্তন হয়েছে। এবং এই নতুন তথ্যগুলো দিয়ে ভূপৃষ্ঠের গ্রাভিয়েশন ম্যাপ ( বা জিওসি ম্যাপ) তৈরী করা হয়।

geoce-map

Gravity Field and Steady-State Ocean Circulation Explorer (GOCE) দির্ঘ্য দুই বছর কাজ করে এই ম্যাপ তেরী করেন।

টেকনিশি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর রুমেল জানান, এই মানচিত্র সমুদ্রের পানির চলাচল সম্পর্ক্ও ধারণা দিবে। তাছাড়া পৃথিবীর গভীরদেশের অবকাঠামো সম্পর্কেও আমরা ধারণা করতে পারবো।

জিওসি ম্যাপ নিয়ে দুই দিনের একটি কনফারেন্সে জানানো হয়,

এই ম্যাপের মাধ্যমে কোন অবস্থানের ভূমিকম্পের  পূর্ববর্তি ও পরবর্তি মধ্যকার্ষণের মানের মাধ্যমে সেই অবস্থানের ভূমিকম্পের কারন সম্পর্কেও ধারণা লাভ করা যাবে।

ভিডিওঃ পৃথিবীর মধ্যকার্ষণ মানচিত্র

comments

2 কমেন্টস

  1. মধ্যকার্ষণ শক্তি কমবেশি হতে পারে ভূ-অভ্যন্তরে অবস্থিত বিভিন্ন প্রকার মেটারিয়ালের জন্যও। ফলে মধ্যকার্ষণ শক্তির উপর ভিত্তি করে কখনোই পৃথিবীর সঠিক আকার নিণর্য় করা যাবে না।

  2. কেউ বলে পৃথিবী আলুর মতো। কেউ বলে কমলা লেবুর মতো কেউ বলে থালার মতো আমি বলি পৃথিবী কচুর মতো। হা হা হি হা….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.