বিসমিল্লাহির রহমানীর রাহিম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। প্রযুক্তির দৌড়ে আমরা সবসময় চেষ্টা করি অন্যকে পিছনে ফেলে দেওয়ার। আর এই দৌড়ে মানুষের সাথে সাথে কিন্তু বাজারের পণ্যও কিন্তু পিছিয়ে নেই। আর এরই ধারাবাহিকতায় মাউস আর কীবোর্ড কে বিদায় দিয়ে টাচ প্যাড জাতীয় পণ্য ব্যবহার করা শুরু হয়েছে। বর্তমানে যে হারে ট্যাবলেট পণ্য ব্যবহার করা শুরু হয়েছে তাতে বোঝা যাচ্ছে হয়তবা আগামী দিনে পিসি বলতে কোন শব্দই শোনা যাবে না। অর্থাৎ এর অর্থ হচ্ছে টাচ কম্পিউটিং যুগের সূচনা।

ট্যবলেট পণ্যের অগ্রগতি বাড়ছেঃ

প্রতিনিয়তই ট্যাবলেট পণ্যের বিক্রি বেড়ে চলছে। এ বছর ট্যাবলেট পণ্য বেড়েছে ৫ কোটি ৮০ লাখ ইউনিট। যা কিনা শতকরা বৃদ্ধি ২৫৫ ভাগ। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ইনসাআল্লাহ আগামী ২০১৫ সালের মধ্যে এ বৃদ্ধির হার ৭৫০ ভাগে উন্নীত হবে। কিন্তু দুঃভাগ্য হলেও সত্যি যে, একই সময়ে ল্যাপটপ বৃদ্ধির হার হতে পারে মাত্র ৮৩ ভাগ।

যে কারণে টাচ কম্পিউটার ব্যবহার করা হচ্ছেঃ

এর প্রথম কারণটা হলো টাচ কম্পিউটার ব্যবহারে অনেক সহজ, আরামদায়ক এবং অনেক মজাদার। অন্যকথায় বলতে গেলে, টাচ কম্পিউটার হলো ‘ন্যাচারাল ইউজার ইন্টারফেস’ অর্থাৎ প্রযুক্তি গ্রাহকদের জন্য এটি খুবই সহজসাধ্য। এ ধরনের পণ্যেগুলো প্রযুক্তিভক্তদের গণতান্ত্রিক অভিজ্ঞতা থেকে বাঁক না নিয়ে প্রতিবন্ধকতা দূর করতে শিখিয়েছে। যা বৈশিষ্ট্যগতভাবে নতুন প্রযুক্তির আহব্বান।

টাচ কমপিউটিংয়ের বৈশিষ্ট্যঃ

আইপ্যাড বয়স্ক, প্রাপ্তবয়স্ক, তরুণ এবং শিশুদের মধ্যে নিজের বৈশিষ্ট্য প্রকাশ করে সকলের উপর নিজেদের আস্থা অর্জন করে নিয়েছে। এছাড়াও শিশুদের শিক্ষায় সহজতম পাঠ দানে অবদান রেখেছে। কারণ আইফোন এবং আইপ্যাডের সুবিধা সমূহ সাধার বাংণ পিসির তুলনায় অনেক সহজতর। সম্প্রতিক এক গবেষণায় জানা গেছে, সব বয়সের মানুষ কম্পিউটার চালানোর জন্য টাচ পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন স্বাচ্ছন্দ্যে। শিশুরা মাউস কিংবা কিবোর্ড ব্যবহারের জন্য তাদের শিক্ষকের কাছে পরামর্শ নেয়। কিন্তু আইপ্যাডের ক্ষেত্রে এ ধরণের কোন পরামর্শের প্রয়োজন পড়ে না।
বর্তমানে আইটিউনস অ্যাপলিকেশন স্টোরে সেরা ৫০টি এডুকেশন অ্যাপলিকেশনের ৪১টি ১০ বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য তৈরি। এছাড়া ওই ৪১টি অ্যাপলিকেশনের ৩২টি ৬ বছরের কম বয়সী শিশুদের ব্যবহারযোগ্য। গবেষণায় পাওয়া গেছে, শিশুরা টাচের মাধ্যমে জ্ঞানচর্চাকে খুব দ্রুত মানিয়ে নিতে পারে।

টাচ কম্পিউটিং সুবিধা সম্পন্ন ট্যাবলেট পিসিগুলো এখন বাজারে অনেক সহজলভ্য। ফলে ট্যাবলেট পণ্য এসময়ের প্রজন্মকে সহজেই আকৃষ্ট করতে পারছে। কিন্তু কমপিউটার তা পারছে না। আর এর অর্থ হচ্ছে অচিরেই পুরো কম্পিউটিং ব্যবস্থাপনা ট্যাবলেট পণ্যের আওতায় চলে আসবে।

ধন্যবাদ…
মোঃ আব্দুর রহিম
তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক আমার (আপডেট) বাংলা ব্লগঃ www.itworld24.tk

comments

14 কমেন্টস

  1. পোস্টটির জন্য ধন্যবাদ। আমি জানি এই পরিসংখ্যান দিন দিন বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু আমাদের প্রযুক্তি প্রেমী ভাইদের আমি একটা কথা না বলে আর পারলাম না। PC নামক বস্তুটি কখনই বিলুপ্ত হবে না, এর উন্নত সংস্করন তৈরি হবে। কিন্তু ট্যাবলেট কোনদিনই PCর জায়গা নিতে পারবে না। একটু ভেবে দেখুন, সুপার কম্পিউটার কিন্তু এখনও কয়েক টন ওজনের বিশাল আকৃতির মেশিন, সুপার কম্পিউটার এখনও পিসিতে পরিনত হয় নি।

  2. যাদের ট্যাবলেট পিসি আছে, তাদের প্রায় সবারই ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ আছে। ট্যাবলেট মোবাইল বা পিসির কোন বিকল্প নয়। এগুলো সব ভিন্ন প্ল্যাটফর্ম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.