প্রথমেই বলে নিই, প্রযুক্তির নতুন খবরাখবরের প্রতি আমার একটু আগ্রহ বেশি। তাই অন্যান্য বিভাগগুলোর বিপরীতে শুধুমাত্র বিভিন্ন ইভেন্ট নিয়ে বিপ্রতে সবার সামনে হাজির হই বেশিরভাগ সময়ে। তেমনই আরেকটি সংবাদ নিয়ে হাজির হলাম। আমার লেখাটি সাড়া না ফেললে লেখার বিষয়টি অবশ্যই প্রযুক্তি বিশ্বকে একদিকে করে রেখেছে। সমগ্র প্রযুক্তিবিশ্ব আজ লাস ভেগাসের দিকে তাকিয়ে। সেখানে কি ঘটছে বা ঘটতে তাই নিয়ে হয়তোবা না জানা অনেকেরই কৌতুহল হচ্ছে! তাহলে বলি শুনুন…

প্রতিবছরই বিশ্বব্যাপী ইলেক্ট্রনিক পণ্য ক্রেতা বিক্রেতাদের মিলনমেলা বসে যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসে। সারাবছর কোনো প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান বিশ্বকে যাই দিক না কোনো এই মিলনমেলাতে ঠিকই আকর্ষনীয় ও সর্বাধুনিক প্রযুক্তির কিছু পন্য দিয়ে থাকে। আর তাই সবাই এই বিশেষ সময়ের অপেক্ষায় থাকে কি পাচ্ছে প্রযুক্তি বিশ্ব। এই বিশেষ সময়টি হলো ‘কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিক শো’। এবছর এই শোটি শুরু হচ্ছে আগামীকাল ১০ জানুয়ারি থেকে। ৪ দিনব্যাপী এই তথ্যপ্রযুক্তি প্রদর্শনী উৎসবে প্রায় ১ লাখ ৪০ হাজার দর্শনার্থী সমাগত হবেন। এছাড়া বিশ্বের প্রায় ২ হাজার ৭০০ প্রতিষ্ঠান উদ্ভাবনী প্রযুক্তিপণ্য নিয়ে অংশ নিচ্ছে।

বিশ্বের প্রযুক্তি পণ্যের নামিদামি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রায় সকলের অংশগ্রহণে সিইএস অনুষ্ঠিত হয়। ফলে বছরের পুরোটা সময় থেকে এই সময়ে একটু বেশি আকর্ষনীয় ও আধুনিক প্রযুক্তি পণ্যটি পাবার আশায় থাকেন সবাই। এবারের আসরে উন্মাদনার মাত্রাটা অনেক বেশি হয়ে আছে। প্রায় প্রতি প্রতিষ্ঠানই ভালো কিছু দিতে চাচ্ছে বলে বিভিন্ন সাইটটে প্রকাশ হচ্ছে। তবে সবচেয়ে বেশি আলোড়ন তুলতে পারে ট্যাবলেটসহ পোর্টেবল ডিভাইসগুলো।
এখনো জানামতে, এবছর মেলার সবচেয়ে বেশি আকর্ষন হিসেবে আসছে ‘প্রত্যেক শিশুর জন্য একটি ল্যাপটপ’ প্রকল্পের ১০০ ডলারের ল্যাপটপটি। সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেমের প্রথম ট্যাবলেট কম্পিউটার উন্মুক্ত করা হবে এবারের উৎসবে। মাইক্রোসফটের প্রকাশিতব্য উইন্ডোজ ৮ এ প্রদর্শিত হবে এখানে। তবে হতাশার কথা হলো এবারই শেষবারের মতো সিইএস’এ অংশ নিচ্ছে এই প্রযুক্তি জায়ান্টটি।
উৎসবে তোশিবা আনছে পৃথিবীর সবচেয়ে পাতলা ট্যাবলেট কম্পিউটার। ৮০০ ডলারের এ ট্যাবলেটটি ব্যবহারকারীর প্রয়োজনীয় প্রায় সকল সুবিধা নিয়ে আসছে। এছাড়া টোশিবা তাদের নতুন এলসিডি টেলিভিশন ও আল্ট্রাবুক ল্যাপটপ প্রদর্শন করবে বলে নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে। সবমিলিয়ে এবারের উৎসবে ট্যাবলেট, পরবর্তী প্রজন্মের টেলিভিশন, বাসা বাড়ি নিয়ন্ত্রনের আধুনিক সব প্রযুক্তি ও সর্বশেষ উদ্ভাবিত পণ্যগুলো প্রদর্শিত হবে। এতে ভোক্তাদের সরাসরি মতামতও নেওয়া হবে। উপস্থিত থাকবেন মাইক্রোসফটের স্টিভ বালমার, কুয়ালকমের ড. পাউল, মার্সিডিজ বেঞ্জের ড. ডিয়েটার ডেটসি, ইন্টেলের পল অটেলনি, অ্যারিকসনের হ্যান্স ভেস্টবার্গ, ইউটিউবের রবার্ট নিকেলসহ প্রধান প্রধান প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর নির্বাহী কর্মকর্তারা। থাকবেন বাক্সেটবল তারকা ডেনিস রোডম্যান, রবার্ট হরি, জন শ্যালি, সংগীত তারকা জাস্টিন বিবার, টেলিভিশন তারকা জ্যামি মিশেলসহ নামি দামি ব্যক্তিবর্গ। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত দর্শনার্থীদের জন্য থাকছে নানা সুবিধা। হোটেলগুলো ছাড়সহ বেশ কিছু বাড়তি খাবারের আইটেম যোগ করা হয়েছে। সিইএস’র ওয়েব থেকে উৎসবের সকল তথ্য পাওয়া যাবে। আশাকরি আমার মতো আপনারাও অনেকেই ওয়েবে ঢু মারবেন শোতে কি ঘটছে, কি পাচ্ছি আমরা!

নিশ্চিত এই মিলনমেলায় দারুণ কিছু পাবো আমরা। যা প্রযুক্তি বিশ্বকে মাতিয়ে রাখবে সামনের দিনগুলোতে। এসব খবরাখবর নিয়ে হয়তোবা দেখা হবে আবারো। সবাইকে শুভেচ্ছা..

লেখাটি সংবাদ আকারে আমার নিজস্ব বাংলা ব্লগসমকাল পত্রিকায় প্রকাশিত..

comments

2 কমেন্টস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.