গত সপ্তাহ মজিলার চেয়ারপারসন ও প্রাক্তন সিইও মাইকেল বাকার প্যারিসের এক সংবাদ ওয়েব কনফারেন্সে মজিলার বেশ কিছু  পরিকল্পনার কথা ঘোষনা দেন। তিনি ব্রাউজারকে নতুনভাবে তৈরী করার পরিকল্পনা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন যে অনেক সৃজনশীল বিষয় আসবে পরবর্তিতে। মজিলা ফায়ারফক্সেও অনেকে এর কিছু নতুননত্ব আঁচ করতে পেরেছেন। তিনি জানান যে ব্রাউজারকে তারা তাদের ব্যবসা থেকে আলাদা করে ফেলবেন।

তার ভাষায়,

mitchell-baker-mozilla-225“On the innovation side, the area where I think you will see Mozilla look different from everyone else is that the focus of our innovation is much more integrative across the web,”

“We’re not trying to integrate our browser with our business stack or our services; we’re trying to build an innovative way for people to manage their experience across multiple websites.”

পরবর্তিতে আরও  ব্রাউজারগুলো আরো অনেক বেশি ওপেন থাকবে। আরও বেশি  ইউজার সুবিধা দেখবে। তিনি মনে করেন “ব্রাউজার” শব্দটাই ভুল। ওয়েবের সাথে যুক্ত করে দেয় ব্রাউজার। ব্র্উজার দিয়ে আমরা শুধু ওয়েবসাইট ব্রাউজই করি তা না। অনেক সময় এটার মাধ্যমে শুধু অনলাইনে যুক্ত হই।

সামাজিক নেটওয়ার্কের নিরাপত্তার বেপারটা যতটা গুরুত্ব দেওয়া হয় ততটা গুরুত্ব দেওয়া উচিৎ না বলে তিনি মন্তব্য করেন। অনেক বিষয়ে তিনি কথা বলেন তার ২০ মিনিটের ভিডিওটিতে দেখতে পাবেন।

আলোচনাঃ

নিরাপত্তার বেপারটি অনেক সহজ করে তোলাটা জরুরী। এখনকার সময় প্রায় সবারই ব্যক্তিগত কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইজের মাধ্যমে ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত হয়। প্রত্যেকের প্রতিদিন নিয়মিতভাবে ১০/১২ টা বা তার কিছু বেশি ওয়েবসাইট ব্যবহার করে। আর সেই সব সাইটে প্রতিবার লগইন করাটা একটা বিশাল ঝামেলা। তিনি কি ব্রাউজারকে ওয়েব এপ্লিকেশের মতো কিছু একটা বানানোর কথা ভাবছেন? আগেই ভবিষ্যতে ওয়েবের চরিত্র সম্পর্কে একটি পোষ্টে বলেছিলাম ওয়েব এপ্লিকেশনগুলো হয়তো অনেক দূর এগিয়ে যাবে। অনেক ওয়েবসাইটের মালিকেরা তাদের ওয়েবসাইট ব্রাউজ করার জন্য নিজস্ব সফটওয়্যার বানাবে। এমন কোন সম্ভাবনার কথাই কি তিনি বলেছেন?

দেখা যাক,  কি করতে চায় মজিলা, ভবিষ্যতের ব্রাউজার কেমন হয়?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here