‘ডাকাতি’ হওয়া সেই ফেসবুক পেজ ১৯ দিন পর ফিরে পেয়েছে সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইট টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজপেপার ডটকম। একদল দুর্বৃত্ত পেজটি কৌশলে ছিনিয়ে নিলেও ফেসবুক কর্তৃপক্ষ তা ধরতে পেরে মূল প্রতিষ্ঠানকে ফেরত দিয়েছে।

টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজপেপারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জামাল উদ্দিন জানান, ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের পর সাক্ষ্য-প্রমাণ মিলিয়ে পেজটি ফিরিয়ে দিয়েছে। এ কাজে সহযোগিতার জন্য এনটিভি অনলাইনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

২০১১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইট টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজপেপার ডটকম (24livenewspaper.com)। পরের বছর ফেসবুক ফ্যান পেজ খোলে ওয়েবসাইটটি। কয়েক বছর ধরে ওই ফ্যান পেজে ৩৯ লাখের বেশি লাইক পড়ে। তবে গত ১৬ সেপ্টেম্বর সকাল থেকেই ফ্যানপেজটি বন্ধ পাওয়া যায়। পরে জানা যায়, কিছু লোক একই নামে একটি ফেসবুক পেজ খুলে তা ভ্যারিফাই করেছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ প্রকৃত ফ্যান পেজের সব লাইক ভুয়া পেজকে (www.facebook.com/24bdliivenews) দিয়েছে।  পরে আসল পেজটির লাইকগুলো হাতিয়ে নেয় ভুয়া পেজটি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভুয়া পেজেও শুরুতে আসল পেজের প্রোফাইল পিকচার, কাভার ফটো ও ওয়েবসাইটের লিংক ব্যবহার করা হয়। ভ্যারিফাই হওয়ার পর সবকিছু পরিবর্তন করা হয়। ভুয়া পেজটির ইউআরএলও দুইবার পরিবর্তন করা হয়েছে। প্রথম ইউআরএল ছিল www.facebook.com/newsbd241। পরে তা বদলে করা হয় www.facebook.com/bangladesh24live, বর্তমানে www.facebook.com/24bdliivenews। ভুয়া পেজটিতে নিজেদের পোর্টাল হিসেবে অন্তত চারটি ওয়েবসাইটের ঠিকানা ব্যবহার করা হয়। কিন্তু কোনোটিতেই সে সময় প্রবেশ করা যাচ্ছিল না।

এ ঘটনায় টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজপেপার কর্তৃপক্ষ ধানমণ্ডি মডেল থানায় সাধারন ডায়েরি (জিডি) করে। এনটিভি অনলাইনকে বিষয়টি জানালে যাচাই-বাছাই করে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ করা হয়। পাশাপাশি এনটিভি অনলাইনের প্রধান খন্দকার ফকরউদ্দীন আহমেদ ও বার্তা সম্পাদক রফিকুল রঞ্জু এ বিষয়ে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগও করেন।

রফিকুল রঞ্জু বলেন, ‘অনলাইনের ক্ষেত্রে এটি ভয়াবহ অপরাধ। এই ঘটনা দেশের জন্যও একটি খারাপ উদাহরণ তৈরি করল। একটি চক্র এই ডিজিটাল ডাকাতিতে নেমেছে। সবারই উচিত বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া, সতর্ক থাকা এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চাপ দেওয়া।’

খন্দকার ফকরউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘আমরা এই ঘটনাটিকে খুবই গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি, কারণ বাংলাদেশে অনলাইন বাজারের ওপর এটি একটি বড় আঘাত। দুর্বৃত্তরা এভাবে দেশের শীর্ষ স্থানীয় অনেক প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি করে ফেলতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘অনলাইন পোর্টালগুলো এখনো পাঠকের কাছে দ্রুত পৌঁছাতে মূলত ফেসবুকের ওপরই নির্ভরশীল, সেই ফেসবুক পেজই যদি হারিয়ে যায়, তবে বলতে গেলে রাতারাতিই সেই প্রতিষ্ঠানটির পতন ঘটে।’

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.