জার্সি ডেভিল একটি মিথের নাম। এমন কোন ভয়ংকর প্রাণীর হদিশ কিংবা অস্তিত্ব আজ পর্যন্ত পাওয়া যায় নি। তবে মানুষ এই অস্তিত্বহীন প্রাণীর অস্তিত্ব নিয়েও মাথা কম ঘামায় নি। জার্সি ডেভিলকে নিয়ে তৈরি হয়েছে নানা চলচ্চিত্র, নানা ধরণের টিভি সিরিজে তাকে উপস্থাপন করা হয়েছে বিভিন্নভাবে। এমনকি ৯০ এর দশকে তৈরি জনপ্রিয় টিভি সিরিজ এক্স ফাইলস-এও জার্সি ডেভিলসকে নিয়ে তৈরি হয়েছে অনেক পর্ব।
অনেকে বলেন যে এই প্রাণীর শারীরিক গঠন হচ্ছে একটু উদ্ভট। এর মুখটা হচ্ছে ঘোড়ার মত দেখতে এবং মাথা থেকে বেশ বড়সড় একটি শিং বের হয়ে থাকে। এটি দ্বিপদী, খুর খুবই ছোট। এটার সমগ্র শরীরটা হচ্ছে ক্যাঙ্গারুর মতন। বনের গহীন স্থানে এরা লুকিয়ে থাকে।

জার্সি ডেভিলের ইতিহাসঃ
১৮ শতকের শুরু থেকে জার্সি ডেভিলের উত্থান শুরু হতে থাকে। এর নানা ধরনের গল্প আছে তবে যেটি সবচাইতে প্রচলিত তা হচ্ছে মাতা লীড নামের একজন নারী তার ১৩তম সন্তানের জন্ম দেন একটি গভীর ঝড়ো রাতে। মিথ অনুযায়ী বলা হয়ে থাকে যে এই লীড হচ্ছেন একজন ডাইনী যিনি শয়তানের সন্তান প্রসব করেন। ধীরে ধীরে এই সন্তানের আকৃতি পরিবর্তন হয়ে যায় এবং তার পিঠে ডানা গজায়। আস্তে আস্তে সে পুরো গ্রামে হত্যাযজ্ঞ চালানো শুরু করে।
ব্রায়ান ডানিং বলেন যে, ‘স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে যে এ ধরনের কোন ঘটনা আসলে সম্ভব না। তবে হ্যাঁ, আপনি যদি চলচ্চিত্র বানাতে চান কিংবা কোন মসলাদার খবর, তবে জার্সি ডেভিলের চাইতে উত্তম আর কোন কিছুই হতে পারে না। বিনোদনের সকল উপাদান আপনি এর মাঝে পাবেন।’
এটি একটি মিথ হলেও কেউ কেউ আবার দাবি করে বসেন যে তারা জার্সি ডেভিলকে দেখেছেন। ১৯০৯ সালের দিকে কিছু খবর আসতে শুরু করে যে পোর্টমাউথের কোন গ্রামে নাকি জার্সি ডেভিলকে দেখা গিয়েছে। সেখানে গিয়ে দেখা গেল যে একদল ব্যক্তি একটি ক্যাঙ্গারুকে সবুজ রঙ করে তার মাথায় নকল শিং দিয়ে তাকে জার্সি ডেভিল হিসেবে মানুষের কাছে উপস্থাপন করছে আর অজ্ঞ মানুষরাও তা দেদারসে বিশ্বাস করে যাচ্ছে।

মিথ হচ্ছে মিথ। তা বিশ্বাস করবার কোন কারণ নেই। এ ধরনের গল্প কেবল দাদী নানীর মুখেই মানায় তবে কে জানে হয়ত এই মিথ চালু হবার পেছনেও লুকিয়ে আছে কোন বাস্তব সত্য? অপেক্ষায় থাকি সামনের দিনগুলোর দিকে।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.