একটি সুখী ও সমৃদ্ধশালী দেশ গড়ার জন্য আইসিটি এখন হাতিয়ার এবং এ হাতিয়ার ব্যবহারে মেয়েদেরকেও  দক্ষ হয়ে উঠতে হবে। প্রোগ্রামিং-এর মতো সেক্টরগুলোতে মেয়েদের যোগ্যতা প্রমাণের অনেক সুযোগ রয়েছে এবং একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করলে সেই কাজে সফল হওয়া যায়। চট্টগ্রাম ও খুলনায় তিনদিনব্যাপী মেয়েদের জন্য গ্রেস হপার প্রোগ্রামিং ক্যাম্পের সমাপনীতে অতিথিরা অংশগ্রহণকারীদের এভাবে উদ্ভুত্ত করেন। ক্যাম্প শেষে চট্টগ্রামে মেয়েদের হাতে সদনপত্র তুলে দেন চট্টগ্রাম ইন্ডিপেন্ডেন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিআইইউ) উপাচার্য ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী ও চট্টগ্রামের আনোয়ারার সাংসদ ওয়াসেকা আয়েশা খান। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. নোভা আহমেদ, সিআইইউএর শিক্ষক এমরান আহমেদ প্রমূখ। খুলনার কুয়েটে অনুষ্ঠিত ক্যাম্পে সনদপত্র তুরে দেন কুয়েটের কম্পিউটার কৌশল বিভাগের অধ্যাপক এম এম এ হাশেম। এ সময় আরও উপষ্থিত ছিলেন বিভাগের শিক্ষক বিষ্ণু বাঁধন সরকার। এছাড়া অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে একটি বিশেষ সেশন পরিচালনা করেণ গ্রাশীণ ফোনের ডেটা ও ডিভাইস, রাজশাহী সার্কেলের প্রধান কানিজ ফাতেমা।

মেয়েদের কম্পিউটার বিজ্ঞান তথা  কম্পিউটার প্রোগ্রামিং-এ আগ্রহী করে তোলা এবং প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় মেয়েদের অংশগ্রহণের হার বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের (বিডিওএসএন) উদ্যোগে দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রোগ্রামিং প্রশিক্ষণ ক্যাম্প আয়োজনের অংশ হিসাবে গত ১০ নভেম্বর থেকে এ দুইটি ক্যাম্প শুরু হয়। দুইটি ক্যাম্পে ৬০ জন মেয়ে অংশগ্রহণ করে। ক্যাম্পে অংশগ্রহণকারীরা তিনদিন ধরে প্রোগ্রামিং-এর বিভিন্ন খুটিনাটি বিশেষ করে ডেটা স্ট্রাকচার, এলগরিদম এবং বিভিন্ন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার সমস্যা সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করে।

দেশব্যাপী এই ক্যাম্পের সমন্বয়কারী বিডিওএসএনের কর্মসূচী সমন্বয়কারী আল রাব্বী জানান, এরই মধ্যে ৭টি জেলায় এ আযোজন সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ২৪ নভেম্বর পরবর্তী ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে।

ক্যাম্পে অংশ নিতে আগ্রহী মেয়েদের www.bdosn.org এই ওয়েবসাইটে নজর রাখার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

 

 

 

comments

কোন কমেন্ট নেই

LEAVE A REPLY

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.