ঠিকমত না ঘুমাতে না পারলে নানা ধরণের সমস্যা হয় ছবি সূত্রঃ ইন্টারনেট

ঘুম আমাদের জীবনে অতি প্রয়োজনীয় একটি অনুষঙ্গ। সারাদিন নানা কাজ করবার পর আমাদের প্রয়োজন হয় বিশ্রামের। আর একটু ঘুমের চাইতে প্রয়োজনীয় বিশ্রাম আর কিছুই হতে পারে না। কিন্তু এই ঘুম নিয়েও যদি মানুষের মাঝে রোগ সৃষ্টি হয়, তাহলে কেমন হবে? গত দুই পর্বে আপনাদের এই ধরণের চারটি রোগের কথা বলা হয়েছিল। আজ দেয়া হল এর তৃতীয় পর্বঃ

৫) স্লিপি হ্যালুসিনেশনঃ

নানা ধরণের সমস্যা হিতে পারে স্লিপি হ্যালুসিনেশনে  ছবি সূত্রঃ ইন্টারনেট
নানা ধরণের সমস্যা হিতে পারে স্লিপি হ্যালুসিনেশনে
ছবি সূত্রঃ ইন্টারনেট

ঘুমের মাঝে আমরা নানা ধরণের আজব আজব স্বপ্ন দেখে থাকি। মজার কথা কি জানেন? আপনি যত বড় স্বপ্নই দেখুন না কেন, আপনার স্বপ্নের স্থায়িত্বকাল কিন্তু মাত্র ৬ সেকেন্ড! কিন্তু যারা জেগে জেগে স্বপ্ন দেখে তাদের কি হবে? বলছি হ্যালুসিনেশনের কথা।
হিপনাগজিক হ্যালুসিনেশন ঠিক তখন দেখা যায় যখন আপনি আধবোজা চোখের অবস্থা থেকে ঘুমের দিকে যাচ্ছেন। আর হিপনোপম্পিক হ্যালুসিনেশন হচ্ছে যখন আপনি ঘুম থেকে উঠবেন। এই সময় মানুষ নানা ধরণের অদ্ভুত জিনিস দেখতে পায়। যেমন, দেয়াল বেয়ে কেউ হেঁটে যাচ্ছে, ঘরের মাঝে অনেক পোকা, কোন একটি ছায়া আশেপাশে নড়াচড়া করছে- এমন নানা অদ্ভুত জিনিস তারা দেখতে পায়। এই ধরণের সমস্যা হলে দ্রুত ডাক্তার দেখার পরামর্শ দিয়েছেন নিল ক্লাইন, ঘুম বিশেষজ্ঞ।

৬) রাতের আতঙ্ক বা নাইট টেররসঃ

এই রোগে পরিচিত কেউ থাকলে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হন  ছবি সূত্রঃ ইন্টারনেট
এই রোগে পরিচিত কেউ থাকলে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হন
ছবি সূত্রঃ ইন্টারনেট

চিৎকার, দেয়ালে মাথা ঠুকে দেয়া, নড়াচড়া করা পাগলের মত- এই সব কিছুই নাইট টেরর রোগের অপর নাম। এই অবস্থার মধ্য দিয়ে যদি কেউ যান তাহলে ওপরের তিনটি অভিজ্ঞতাই বা যে কোন একটি অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে তাকে যেতে হয়।

সাধারণত বাচ্চাদের মাঝে এই ধরণের রোগটি বেশি দেখা যায়। আগেই আপনাদের বলা হয়েছে আমাদের ঘুম হয় দুই ধরণের। একটি হচ্ছে র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট স্লিপ ও অন্যটি হচ্ছে নন র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট স্লিপ। নাইট টেরর রোগটি সাধারণত নন র‍্যাপিড আই মুভমেন্টের সময় ঘটে থাকে। এই সময় আক্রান্ত ব্যক্তি সারারাত ঘুমাতে পারে না। তার মাথায় ঝি ঝি পোকার ডাকের মত এক ধরণের ডাক চলতে থাকে। সে মাথা চেপে ধরে এবং মাঝে মাঝে দেয়ালে নিজের মাথা ঠোকা শুরু করে দেয়। নারকীয় এক অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে ১০-১৫ মিনিট যাবার পর ব্যক্তি অচিরেই ঘুমিয়ে পড়ে। মজার ব্যাপার হচ্ছে পরদিন সকালে কি হয়েছিল আগের রাতে, সে কিছুই মনে করতে পারে না।
(চলবে)

সূত্রঃ লাইভ সাইন্স

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.