বিশ্বের প্রায় অর্ধেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ওয়েবসাইট দেখার সফটওয়্যার বা ব্রাউজার হিসেবে বেছে নেন গুগল ক্রোম।জনপ্রিয়তার বিচারে তাই এটি যে শীর্ষে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আবার কম্পিউটারের গতি কমিয়ে দেয় বলেও দুর্নাম আছে একসঙ্গে অনেক ট্যাব খুলে রাখা, অপ্রয়োজনীয় এক্সটেনশন যুক্ত করা এবং অনেক প্লাগ-ইনসের ব্যবহার আপনাকে ঝামেলায় ফেলতে পারে। এখানে তাই কিছু চট-জলদি পরামর্শ দেওয়া হলো।এগুলো অনুসরণ করে গুগল ক্রোমের গতি বাড়িয়ে আপনার কম্পিউটারের কর্মক্ষমতা বাড়াতে পারেন।

১।অব্যবহৃত প্লাগ-ইন সরিয়ে ফেলুন

ক্রোমের অ্যাড্রেস বারে ‘chrome://plugins’ লিখে এন্টার করুন। প্লাগ-ইনসের তালিকা দেখাবে। প্লাগ-ইন ব্যবহার করেন না কিংবা কম ব্যবহার করা হয়, সেটি Disable করে দিন।বাকি প্লাগ-ইন আয়ত্তে রাখুন অপ্রয়োজনীয় প্লাগ-ইনস মুছে দেওয়ার পর যেগুলো থাকে,সেগুলো যেন ক্রোমের ওপর কম প্রভাব ফেলে সে ব্যবস্থা করে রাখতে পারেন।প্রয়োজন বাদে বাকি সময় এগুলো থামিয়ে রাখা যায়।এ জন্য সেটিংসে গিয়ে একদম নিচে show advanced settings-এ ক্লিক করে privacy-এর নিচের content settings-এ ক্লিক করুন।এরপর plugins থেকে Let me chose when to run plug-in content নির্বাচন করে দিন। এরপর থেকে ফ্লাশ ভিডিওর মতো প্লাগ-ইনসগুলো কার্যকর হওয়ার আগে আপনার অনুমতি নেবে।

২।অপ্রয়োজনীয় এক্সটেনশন সরিয়ে ফেলুন

এক্সটেনশন অনেক সময় কম্পিউটারের মেমোরি ব্যস্ত রাখে।ফলে কমে যেতে পারে কম্পিউটারের গতি।ক্রোমের অ্যাড্রেস বারে ‘chrome://extensions’ লিখে এন্টার করুন। প্রতিটা এক্সটেনশনের পাশে enabled-এর টিক চিহ্ন তুলে দিলে সেটি কাজ করা বন্ধ হয়ে যাবে। একেবারে মুছে ফেলতে পাশের ডাস্টবিন আইকনে ক্লিক করুন।

৩।অদরকারি ট্যাব বাতিল করুন

Great suspender-এর মতো এক্সটেনশন ব্যবহার করতে পারেন, যা নির্ধারিত সময়ের বেশি অকার্যকর থাকলে নিজে থেকেই ট্যাব অকার্যকর (সাসপেন্ড) করে দেয়। ফলে ট্যাবটি মেমোরি দখল করে রাখবে না। আবার দরকার পড়লে শুধু একটি ক্লিকই যথেষ্ট, পুনরায় লোড হয়ে যাবে ট্যাবটি। সমস্যা একটাই, ওয়েবসাইটটির ঠিকানা পরিবর্তন হলে কিংবা ইন্টারনেট সংযোগ না থাকলে ওই ট্যাবের ওয়েবপেজটি তখন আর লোড হবে না।

৩।ব্রাউজার সেশন সংরক্ষণ করে রাখুন

একটি একটি করে ট্যাব সাসপেন্ড না করে কম্পিউটারের মেমোরির ব্যবহার কমিয়ে রাখতে ব্যবহার করতে পারেন TabCloud+ (https://goo.gl/MUXz7o) এবং Session Buddy (https://goo.gl/wCa5Rj)-এর মতো এক্সটেনশন।এগুলোর সাহায্যে গোটা ব্রাউজারের সবগুলো ট্যাবের তথ্য একসঙ্গে সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। এরপর ট্যাব মুছে ফেললেও সমস্যা নেই।

৫।ব্যাকগ্রাউন্ড প্রিফেচিং বন্ধ রাখা

আপনার ব্রাউজিংয়ের অভ্যাস পর্যবেক্ষণ করে ক্রোম নিজে থেকেই বুঝতে চেষ্টা করে এরপর আপনি কোথায় যেতে পারেন। সে অনুযায়ী ব্যাকগ্রাউন্ডেই কিছু পেজ খুলে রাখে ক্রোম। এই সুবিধার নাম প্রিফেচিং। এটি বন্ধ করতে আগের মতোই Show advanced settings-এর প্রাইভেসিতে গিয়ে Use prediction service to load pages more quickly এর পাশের টিক তুলে দিন। তবে এতে ব্রাউজিং গতি কমে যেতে পারে।

৬।ডেটা সেভার ব্যবহার করুন

ওয়েবসাইট লোড হতে বেশি সময় লাগার পেছনের কারণ ইন্টারনেটের ধীর-গতিও হতে পারে।ডেটা সেভার কাজে আসতে পারে।এতে ক্রোমের প্রতিটি পাতায় কম তথ্য লোড হয়। ডেটা সেভার এক্সটেনশন নামিয়ে নেওয়ার ঠিকানা: https://goo.gl/RQzk75

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.