ইদানিং অন্যান্য হোস্টিংকে ছাপিয়ে ক্লাউড হোস্টিং বেশ আলোচিত হচ্ছে। হোস্টিং বিষয়ে অনেকের আগ্রহের কারনে এ বেপারে কিছু কথা বলছি। কয়েকদিন আগের ভিপিএস সার্ভারের উপরে আলোচনায় শেয়ার, ভিপিএস এবং ডেডিকেটেড সার্ভারের বেপারে আলাপ করেছিলাম। আজ মূলত ক্লাউড হোস্টিং এর ধারণা, সুবিধা ও অসুবিধা নিয়ে কিছু কথা বলবো।

cloud-host

ক্লাউড হোস্টিং কি?

মেঘ যেখানে বৃষ্টি সেখানে। কখনো বা এক জায়গায় বৃষ্টি অন্য জায়গায় বৃষ্টিহীন। সার্ভারগুলোকে যদি মেঘের ভিতরে রাখা যেত, আর যেখানেই ব্যবহারকারী সেখানে বসেই খুব কাছে থেকে ডাটাগুলো নিতে পারতো তাহলে বেপারটা কতই না মজা হতো! ক্লাউড হোস্টিং প্রোভাইডাররা অনেকটা এরকম চেস্টাই করে যাচ্ছে।

ক্লাউড হেস্টিং মূলত: একাধিক সারভার ব্যবহার করার সুবিধা দেয়। আমরা সাধারনত একটা সার্ভারে আমাদের তথ্যগুলো সংরক্ষন করি আর সেটা কখনো সমস্যা দেখা দিলে সাইট আর দেখা যায় না। অন্য দিকে ক্লাউড সারভার বিভিন্ন জায়গায় অবস্থিত থাকে, আপনার ওয়েব একাধিক সারভারে সংযুক্ত থাকবে। ভিজিটরের কাছের সারভার থেকেই সে সাইট দেখতে পাবে আর তাই সাইট চলবে দুর্দান্ত গতিতে। সারভার ডাউন হওয়ার সম্ভাবনা নাই বা কম। সাধারনত ক্লাউড হোস্টিং সারভারের সিপিইউ ব্যবহারের কোন সীমা পরিসীমা বেধে দেওয়া থাকে না। যত খাবে তত খরচ – অনেকটা এই ধরনের বলা যায়। বিভিন্ন সারভারের ব্যন্ডউইথ খরচের উপরে টাকা দিতে হয়।

এই ভিডিওটিতে ছবির মাধ্যমে সুন্দর ভাবে উপস্থাপনা করা হয়েছে ক্লাউড সারভারের ব্যবহারিক দিক, দেখে নিতে পারেন।

সুবিধা

আপনি যদি ডেডিকেটেড সারভার ব্যবহার করেন কখনো সারভার ক্র্যাশ করলে আপনার অবস্থা খারাপ হয়ে যাবে। কখনো সাভারে বেশি চাপ পড়লে তা সহ্য করতে পারবে না। ক্লাইড হোস্টিং এ বিভিন্ন সারভারে আপনার একই সাইট থাকাতে এর ব্যবহারে একটা ব্যালেন্স থাকে। অনেক সময় প্রতিষ্ঠান থেকেই হার্ডওয়্যার আপগ্রেড করা হয়। আপনাকে অবশ্য সেই হার্ডওয়্যারের সম্পূর্ণ মূল্য দিতে হবে না। তাদের সারভারের এক এক অংশের জন্য যে পরিমান খরচ হয়েছে তার টাকা দিতে হবে। অনেকটা বাসায় বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার মতো।

সমস্যা

আপনার ওয়েবসাইট বাস্তবে কোথায় থাকবে তা আপনার কন্ট্রোলে নেই। তাই নিরাপত্তার বেপারে অনেকেই সমস্যাজনক মনে করে। এ বেপারে George Reese এর ইন্টারভিউটি দেখতে পারেন। খরচের কারনে অনেকের পক্ষে ক্লাউড সারভার ব্যবহার করাও সম্ভব হয় না। কখনো কখনো কিছু কিছু সারভার ভিপিএসের সারভারই নাকি ক্লাউড নাম দিয়ে চালিয়ে দিচ্ছে বলে জানা গেছে। বেপারটা নতুন বোতলে পুরানো মদ।

আশা করি ক্লাউড হোস্টিং সম্পর্কে প্রাথমিক কিছু কথা বলেতে পেরেছি। আরও জানতে বিভিন্ন ইংরেজী ওয়েবে (লিংক এক, লিংক দুই) গিয়ে দিখতে পারেন ।

*********

আমার সবচেয়ে বেশি সমালোচিত লেখা দেখে আপনিও একটু সমালোচনা করুন:

মেয়েদের কাছ থেকে শিখে নিন ৭ টি জিনিস (১১৪+ মন্তব্য)

মেয়েদের কাছ থেকে শিখে নিন ৭ টি জিনিস

ছোট বেলা থেকে মেয়েদের গুছিয়ে চলার বেপারটা দেখে আসতেছি। নিয়মিতই ওদেরএই গুছিয়ে চলাটা আমার কাছে বিরক্তের কারন ছিল। কোথাও এক সাথে বের হতে গেলে কয়েক ঘন্টা সাজগোজেই আপচয় হয়ে যাবে…….

আপনাকে লিখতে নিষেধ করছি, বাকিটা আপনার ইচ্ছা (২৭+ মন্তব্য)

ছাত্র জীবনের শেষ মূহুর্ত থেকেই ছোট কোন একটা আয়ের পথ খুঁজতেছিলাম। টাকা আয়ের ব্যাপারটা কখনোই আমার কাছে মূল উদ্দেশ্য হিসেবে ধরা দেয়নি। সেই সময়ে টাকা আয়ের উদ্দেশ্যটা ছিল নিজের বাড়তি খরচটাকে চালানোর জন্য…

হোস্টিং এবং ওয়েবসাইট বিষয়ক কোন বেপারে সহযোগিতার প্রয়োজনে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

comments

3 কমেন্টস

  1. হুম …ভাল হয়েছে। ধন্যবাদ মাহবুব টিউটো ভাই, আপনার লেখাগুলু থেকে পরিষ্কার ধারণা পেলাম !

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.