ফ্লাইং সসারঃ একটি বিস্ময়

আন আইডেন্টিফাইং ফ্লাইং অবজেক্ট বা ইউ এফ ও নিয়ে আমরা সবাই কমবেশি কৌতুহলী। আসলেই কি এমন কিছু ছিল বা আছে? মহাবিশ্বে বুদ্ধিমান প্রাণী কি একমাত্র আমরাই নাকি আমাদের মতই জীব ছড়িয়ে আছে অন্য গ্রহ থেকে গ্রহান্তরে? থাকুক বা নাই থাকুক, এ নিয়ে আলোচনা সমালোচনা কিংবা বিতর্ক কম হয় নি। কেউ কেউ তো রীতিমত ছবি তুলে এনে ফ্লাইং সসারের অস্তিত্ব প্রমাণ করতে চেয়েছেন। তবে এই ছবিগুলো একেকটি বিস্ময়। ফটোশপ করা নাকি আলাদা কোন কারসাজি করা হয়েছে ছবিগুলোর মধ্যে সেটি একটি রহস্য।

তবে যতদিন পর্যন্ত এটি প্রমাণ না হবে, মানুষ মেতে থাকবে ইউ এফ ও নিয়ে। তাদের একটি ছবি নিয়ে আজকের এই আয়োজনঃ

র‍্যান্ডি এটিং একজন বিমানচালক। এই পেশায় তার ৩০ বছরের অভিজ্ঞতা। তবে অবসর নেবার পর থেকে তিনি আর বিমান চালান না এখন আর। রাতের বেলা হাঁটতে বের হলে আকাশে এখনও চোখ রাখেন। কোন বিমানটি উড়ে যাচ্ছে কিংবা কোন মডেলের নতুন উড়োজাহাজ এল, তাই নিয়ে তার আগ্রহের সীমা নেই। একদিন তিনি রাতের আকাশে দেখলেন অদ্ভূত একটি দৃশ্য। একটি অর্ধ বৃত্তাকার বস্তু আকাশের বুক চিরে এগিয়ে আসছে তার দিকে। তার গাড়ির মডেল নাম্বার ছিল i-84. তার গাড়ির ওপর থেকে এই অদ্ভূত বস্তুটিকে দেখা যাচ্ছিল। এটির আলোয় এমন একটি বোধ তার হচ্ছিল যে এটি হয়ত তার ইঞ্জিন চালু করছে কিন্তু তিনি কোন শব্দ শুনতে পাচ্ছিলেন না। তার আশে পাশের যে গাড়িগুলো ছিল, সেগুলোর ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে যাচ্ছিল।

কানক্টিকাটের সেই ইউ এফ ও
কানক্টিকাটের সেই ইউ এফ ও

তবে দেরি করেননি তিনি। হাতের কাছেই ক্যামেরা ছিল। সে ক্যামেরা দিয়েই তুলে ফেললেন ইউ এফ ওর ছবি। পৃথিবীর দশটি সেরা ইউ এফ ও ছবির মাঝে এটি অন্যতম।

সূত্রঃ Ufopictures.com

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.