একটি ওয়েব সাইটের সাফল্য এবং ভিজিটর আকর্ষণের ক্ষমতা অনেক কিছুর ওপরই নির্ভর করে। তার মধ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দুটো বিষয় হল সাইটে রঙের ব্যবহার এবং কোন ফন্ট ব্যবহার করা হল সেটি। ওয়েবে রঙের ব্যবহার নিয়ে অনেকেই দ্বিধায় ভোগেন। হাজার হাজার রঙের কম্বিনেশন থেকে কোন কম্বিনেশনটি বেছে নেয়া ভাল হবে তারা চট করে বুঝতে পারেন না। অথচ একটু ঠান্ডা মাথায় চিন্তা করে দেখুন, আমরা প্রতিদিনই নানা কাজে রঙ নির্বাচন করে থাকি। সেটি বাড়ির দেয়াল রঙ করা বা একটি সুন্দর রঙের নোটবুক বেছে নেয়া যাই হোক না কেন। বভিন্নি রঙের সঙ্গে কিন্তু একটি ইমোশনাল অ্যাটাচমেন্টের ব্যাপারও আছে। একেক রঙ এককে অর্থ বহন করে। যেমন:

*লাল: শক্তি, আবেগ, বিপদ

*নীল: শান্তিভাব, বেদনা, স্থিরতা

*সবুজ: বৃদ্ধি, প্রকৃতি, সজীবতা

*হলুদ: আনন্দ, সূর্যালোক, সজীবতা

*বাদামী: স্থিরতা, ভূমি

*কালো: শোক, রহস্য, শক্তি

ওয়েব সাইটে রঙ প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে আমরা তিনটি প্রচলিত কালার স্কিম ব্যবহার করতে পারি। এগুলো হচ্ছে মনোক্রমকি,অ্যানালগাস এবং কমপিমেন্টারি। মনোক্রমকি কালার স্কিমে দর্শকের মনে একটি সামগ্রিক ভাব বা মুড নিয়ে আসার জন্য একটি প্রাথমিক রঙ (লাল, নীল বা হলুদ) এবং এর বভিন্নি শেডকে ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ এতে যত রঙ ব্যবহার করা হবে তার সবই উপরের তিনটি রঙ ও তার বভিন্নি শেডের মধ্যে থাকবে। এতে সার্বিকভাবে একটি ভারসাম্যতা আসে। একই সঙ্গে কালো, সাদা বা ধূসরের মত প্রাকৃতিক রঙের সঙ্গে মিলিয়েও এসব শেডকে ব্যবহার করা যেতে পারে।

মনোক্রমিক
মনোক্রমিক

অ্যানালগাস বা সাদৃশ্যপূর্ণ কালার স্কিমে কালার হুইল (রঙ চক্র)-এর মধ্যে সাদৃশ্যপূর্ণ বা কাছাকাছি রঙগুলো ব্যবহার করা হয়। এগুলোর মধ্যে প্রাইমারি কালারটি (লাল, নীল বা হলুদ) থাকে প্রধান, আর অন্যগুলো এটিকে পরিপূর্ণতা দেয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়।

অ্যানালগাস
অ্যানালগাস

কমপিমেন্টারি কালার স্কিমে রঙ চক্র বা কালার হুইলের সম্পূর্ণ বিপরীত প্রান্তে অবস্থানকারী, তথা চরিত্রের দিক দিয়ে সম্পূর্ণ বিপরীতধমী দুটি রঙকে একত্র করে ব্যবহার করা হয়। এর ফলে এই কালার স্কিমে একটি হাই-কনট্রাস্ট ইফেক্ট ফুটে ওঠে। এখানে একটি রঙকে প্রধান করে অন্য রঙটিকে ব্যবহার করা হয় প্রথম রঙটিকে আরো ভালভাবে ফোটানোর জন্য। এই টেকনিক প্রয়োগ করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যকে হাইলাইট করা এবং সহজে দর্শকের চোখের সামনে তুলে ধরা যায়।

কমপিমেন্টারি।
কমপিমেন্টারি।

টাইপোগ্রাফি

একটি ওয়েব সাইটে কোন ফন্ট তথা টাইপোগ্রাফি ব্যবহার করা হচ্ছে সেটি ওয়েব সাইটটির সাফল্য বা ব্যর্থতার অন্যতম নিয়ামক হয়ে দাঁড়াতে পারে। এমন ফন্ট ব্যবহার করতে হবে যা পড়া এবং দেখার জন্য খুব আরামদায়ক হয়। মনে রাখতে হবে, একটি বইয়ে যে ফন্ট ব্যবহার করলে পাঠক সহজে পড়তে পারবেন ওয়েব সাইটে ঠিক সেই ফন্ট ব্যবহার করলে হিতে বিপরীত হতে পারে। কারণ বই আর ওয়েব সাইট চরিত্রগত দিক দিয়ে ভিন্ন। আবার অনেক ওয়েব সাইটে ইউজার ইচ্ছে করলে নিজের ইচ্ছেমত ফন্ট পরিবর্তন করেও নিতে পারে। বইয়ে এ সুযোগ নেই। এছাড়াও, এক কম্পিউটারে একেক ওয়েব সাইটি একেক রকম দেখা যেতে পারে। কোন ব্রাউজার ব্যবহার করা হচ্ছে, কোন রেজল্যুশনে দেখা হচ্ছে এসবের ওপর নির্ভর করবে এটি। যাই হোক, ওয়েব সাইটের টাইপ ফেসের ক্ষেত্রে এটা বলা যেতে পারে, যে সমস্ত টাইপ ফেস দুটি ভাগে বিভক্ত: সেরিফ (serif) এবং সানস সেরিফ (sans-serif)। ফন্টের প্রান্তভাগে মূল দাগের শেষে বাড়তি দাগ (সাধারণত আড়াআড়িভাবে) ব্যবহার করা হয় যেসব ফন্টে, সেগুলোকে বলা হয় সেরিফ ফন্ট। আর যেসব ফন্টে মূল দাগের প্রান্তে বাড়তি দাগ যোগ করা হয় না সেগুলোকে বলে সানস সেরিফ। বইয়ের জন্য সেরিফ ফন্ট ভাল, কারণ এর ফলে পাঠকের চোখ কোনো লেখাকে সহজে অনুসরণ করতে পারে। আবার ওয়েব সাইটের ক্ষেত্রে এসে এটা হয়ে যাচ্ছে পুরো উল্টো। কারণ ওয়েব সাইটে সানস সেরিফ ফন্টকেই ঝরঝরে এবং পরিষ্কার দেখা যায়। সেরিফ ফন্টের উদাহরণের মধ্যে আছে টাইমস নিউজ রোমান, গ্যারামন্ড, সেঞ্চুরি: Times News Roman, Garamond,

Century আর সানস সেরিফ ফন্টের মধ্যে আছে: Arial,Century Gothic,Verdana

ওয়েবসাইট সম্পর্কিত আমার লেখা দুইটি পোস্ট পড়তে পারেন-

ব্যক্তিগত পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরির আগে কিছু কথা

সফল ওয়েবসাইট তৈরীর জন্য প্রয়োজনীয় রেসিপি

comments

7 কমেন্টস

  1. যদিও আমার নিজের ওয়েবসাইট নেই, তবে পোস্টটা পড়ে ভাল লাগল, ভবিষ্যতে কাজে লাগবে। ধন্যবাদ ভাইয়া।

    • মতামতের জন্য ধন্যবাদ। ওয়ার্ডপ্রেসে একটা ব্লগ সাইট খুলে ফেলেন।আমি মাঝে ট্রাই করেছিলাম কিন্তু এখানেই ব্লগিং করতে বেশী ভালো লাগে।

  2. খুবই গুরুত্বপূর্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। ওয়েব সাইটের রঙ, ফন্ট এবং সর্বোপরি ডিজাইন খুবই গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। ওয়েব সাইটের সাফল্য-ব্যর্থতা অনেকাংশে এর উপর নির্ভর করে।


    • খুবই গুরুত্বপূর্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। ওয়েব সাইটের রঙ, ফন্ট এবং সর্বোপরি ডিজাইন খুবই গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। ওয়েব সাইটের সাফল্য-ব্যর্থতা অনেকাংশে এর উপর নির্ভর করে।

      রং ও ফন্ট ওয়েবসাইটের অন্যতম দুইটি উপাদান যা দিয়ে ভিজিটরকে আকৃষ্ট করা যায়।মিষ্টিতে যত বেশী গুড় দেওয়া যায় তত মজা লাগে। ব্যাপারটা অনেকটা সেরকম

  3. According to Cutler, We are going to use the full force of Manufacturing Media Consortium, more than 2000 journalists writing about trends in the manufacturing sector, to tell the stories of thousands of American Manufacturers. Cutler is considered the nations leading manufacturing journalist writing hundreds of feature articles each year and the author of The Manufacturers Public Relations and Media Guide. Cutler as is a regular contributing editor dozens of leading manufacturing magazines. The Manufacturing PR Advantage program will profile U. S.
    cheap world cup soccer shirt http://cheapworldcup.ucoz.com/cheapworldcupjerseys.html
    cheap world cup soccer shirt

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.