মাইক্রোসফট সহসা নিয়ে আসছে চলেছে চমকপ্রদ একটি খবর। সবাই মুখিয়ে আছে সেদিনের অপেক্ষায় যেদিন একই সাথে ২টি অপারেটিং সিস্টেম একই মোবাইলে চলবে।

বর্তমানে মাইক্রোসফট নতুন নতুন প্রজুক্তি উদ্ভাবনের দিকে খুব বেশি নজর দিচ্ছে। আর তারই ধারাবাহিকতায় এই কোম্পানিটি মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করছে বিভিন্ন খাতে। একটি সময় ছিল যখন, মাইক্রোসফট প্রায় সব ধরনের আইটি খাতে সমান দাপটে অবস্থান করছিলো। কালের বিবর্তে তারা অনেক নিচে নেমে এলেও এখন আবার তারা আগের অবস্থায় ফিরে পাবার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে।

Windows-8-vs-Android

বিগত দিনে আমরা দেখেছি, মাইক্রোসফট নতুন করে বাজার ধরার জন্য “নোকিয়া’র” মতো নামকরা বড় প্রতিষ্ঠান কিনে নিতে। তবে সেখানে খুব একটা সুবিধা করতে পারিনি কারন তারা যেসব ফোন বাজারে ছেড়েছিল তার প্রায় সবগুলোই ছিল উইন্ডোজ নির্ভর। আর বর্তমানে ব্যবহারকারিরা উইন্ডোজ থেকে অ্যান্ড্রয়েড কেই বেশি পছন্দ করে। এর কিছু সুনিদ্দিস্ট কারনও আছে যেমন, উইন্ডোজ থেকে অ্যান্ড্রয়েডে বেশি স্বাধীনতা পাওয়া যায় যেমন গুগল প্লে-ষ্টোরে যে পরিমান ফ্রি অ্যাপ পাওয়া যায় বা প্রতিদিন গড়ে যে পরিমান নতুন অ্যাপ এই মার্কেটপ্লেসে যোগ হচ্ছে তার কেনিকোনাও উইন্ডোজ স্টোর তার কাস্টমার কে দিতে পারছে না। এবং শুধু ব্যবহার কারিরাই না একই সাথে যারা অ্যাপ তৈরি করা তথা অ্যাপ ডেভেলপার তারাও ঠিক একই কারনে উইন্ডোজ থেকে নিজেদের আগ্রহ কমিয়ে আসছে। স্বাভাবিক ভাবেই মানুষ যেখানে বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবে সেখানেই যাবে।

ডুয়াল বুট অপশনটি কিভাবে কাজ করে?

android-windows-multi-os-booting-micrsoft-patent-

উপরের আলোচনা পড়ার পরে স্বাভাবিক ভাবেই ঠিক এই প্রশ্নটিই আপনার মনে ঘুরপাক খাবে। ডুয়াল বুট এমন একটি সিস্টেম যেখানে ব্যবহারকারি একই সাথে তার পছন্দ মতো ওএস নির্বাচন করে নিতে পারবে। এক কথায়, আপনি একই মোবাইলে একই সাথে ২ ধরনের ওএস (উইন্ডোজ-অ্যান্ড্রয়েড) ব্যবহার করতে পারবেন।

মাইক্রোসফট কি ভাবছে?

আশানুরূপ ফলাফল না পাবার কারনে বর্তমানে মাইক্রোসফট ভিন্ন কিছু ভাবছে। তারা ইতিমধ্যে নামকরা একটি অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপার কোম্পানি “সাইনজেন” এর সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি ব্যবহারকারিদের একই সাথে ২ ধরনের সেবা দিতে চাচ্ছে। আর তারই লক্ষে হয়তো এ বছরের শেষের দিকে এমন কিছুই বাজারে আসতে চলেছে। প্রজুক্তিবোদ্ধাদের মতামত ঠিক এমনি।

হয়তো সেদিন আর বেশি দূরে না যেদিন আমরা একই সাথে অ্যান্ড্রয়েড এবং উইন্ডোজ ব্যবহার করতে পারবো। হয়তো এই বছরের শেষের নাগাত এমন কিছু বাজারে আসবে।

ব্যক্তিগতভাবে আমি মাইক্রোসফটের নতুন উদ্যোগকে স্বাগত যানায়। আমার কাছে মাইক্রোসফট বা নোকিয়া মোবাইল ব্র্যান্ড সবথেকে বেশি পছন্দের। আপনি এই নতুন উদ্যোগকে কিভাবে দেখছেন। কি মনে হয় মাইক্রোসফট কি পারবে এবার তাদের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.