ইন্টারভিউ ডেস্ক এ সবাইকে আরও একবার স্বাগতম। বিজ্ঞান প্রযুক্তি ডট কম এর নতুন এই আয়োজনে তথ্য প্রযুক্তি জগতের সাথে যুক্ত বিভিন্ন ব্যক্তিত্বের ইন্টারভিউ নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে যার যাত্রা শুরু হয় ব্লগার আমিনুল ইসলাম সজীব এর ইন্টারভিউ এর মাধ্যমে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ আমাদের ইন্টারভিউ ডেস্ক এ আমন্ত্রিত হয়েছেন সম্মানিত ব্লগার জিন্নাত উল হাসান। চলুন তার সাথে কিছুক্ষন গল্প করা যাক…

ব্লগার ইন্টারভিউ ডেস্ক
আজকের অতিথি

জিন্নাত উল হাসান

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ প্রথমেই আপনার নিজের সম্পর্কে কিছু বলুন।

জিন্নাত উল হাসানঃ আমার পুরো নাম জিন্নাত উল হাসান। আমার বাবা সরকারী কর্মকর্তা, মা গৃহিনী, ছোট ভাই ও বোন দুজনই ডাক্তার। আমি এসএসসি এবং এইচএসসি রংপুর ক্যাডেট কলেজ, বিএসসি ইস্ট ওয়েস্ট ইউনির্ভাসিটি এবং এমএসসি লন্ডন মেট্রোপলিটান ইউনিভার্সিটি থেকে পাস করেছি। আমি পেশায় লন্ডনে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কনসালটেন্ট হিসেবে কর্মরত আছি। এছাড়াও আমি কাজের ফাঁকে ফাঁকে ব্লগিং করি এবং অন্যদেরকেও ব্লগিংয়ে প্রশিক্ষণ দেই।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ ব্লগিং জগতে কিভাবে আপনার আবির্ভাব ঘটে?

জিন্নাত উল হাসানঃ ২০০৫ সালের শেষের দি কে আমি সামহোয়ারইনের সন্ধান পাই। সেখানেই টুকটাক ব্লগিং করতাম। সেখানে রাগিব হাসান, সাদিক আলম, হীরক লস্কর (ছদ্দনাম) প্রখ্যাত ব্লগারদেরকে দেখা ব্লগিং-এ অনুপ্রেনিত হই। তখন সামহোয়ারইনে লেখার সাথে সাথে blogger.com এ ব্লগ খুলি যেখানে সামহোয়ারইনের ব্লগ পোস্টগুলো জমা রাখতাম। এভাবেই কোনো এক সময় ওয়ার্ডপ্রেসের প্রেমে পড়ে যাই। এরপর SEO সেই প্রেমে ভাগ বসায়। তখন থেকেই মূলত আমার জীবনের ত্রিভূজ প্রেম শুরু হয়।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ শখের বসে ব্লগিং আর টাকা আয়ের জন্য ব্লগিং, আপনি কোনটির সাথে যুক্ত?

জিন্নাত উল হাসানঃ আমি আসলে দুটোর সাথেই যুক্ত। আমার কিছু ব্লগ আছে, যেগুলোতে শুধু আয়ের জন্যই পোস্ট করি। এজন্য ওগুলোকে ব্লগ না বলে সাইট বলতে পারেন, আর অন্য সাইটগুলো নিজের শখে লিখি।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ বাংলা ব্লগ থেকে অনেকে আয়ের চেষ্টা করে সহজেই ব্যর্থ হচ্ছে। আপনি কি মনে করেন ভবিষ্যতে বাংলা ব্লগ থেকে আয়ের সহজতর কোন পদ্ধতি বের হবে?

জিন্নাত উল হাসানঃ অনেকে হয়তো মনে করবেন গুগল এডসেন্স বাংলায় এ্যাড দেয় না বলে হয়তো বাংলায় ব্লগিং বিকশিত হচ্ছে না। আসলে তা নয়। আমার মতে দুটো বিষয় আমাদেরকে এই বিষয়ে পিছিয়ে রাখছে। এক হলো ই-কর্মাসের প্রতুলতা আর অন্যটি হলো আমাদের মনমানসিকতা। ই-কর্মাস নিয়ে নাইবা বললাম, আমাদের মনমানসিকতা নিয়ে বলি। ধরুন, কেউ ওয়ার্ডপ্রেসের উপর একটি ব্লগ বানালো এবং মেম্বারশীপের ব্যবস্থা শুরু করল। মেম্বাররা প্রিমিয়াম কনটেন্ট দেখতে পাবে কিংবা প্রিমিয়াম আইটেমগুলো ডাউনলোড করতে পারবে। আপনার কি মনে হয় আমাদের মধ্য থেকে কেউ ওই সাইটের সদস্য হবেন?
যেহেতু ই-কর্মাস আমাদের দেশে নেই কিংবা খুবই কম, সেহেতু বাংলায় ব্লগ থেকে আয়ের উৎস হতে পারে ব্লগের মেম্বারশীপ প্রথা, অনেকটা কয়েকবছর আগে প্রথম আলো যেমনটি শুরু করেছিল। মেম্বাররা অনলাইনে পত্রিকা পড়তে পারবেন, সর্বশেষ খবর জানতে পারবেন। যেহেতু আমি দেশের বাইরে থাকি, তাই আমি ওটার সদস্য হয়েছিলাম।
ব্লগিংকে যদি পেশা হিসেবে নিতে চান, তাহলে ব্লগারের সাথে সাথে পাঠককেও পেশাদার হতে হবে। এই মনমানসিকতাটি এখনও গড়ে উঠেনি। একজন ব্লগার যদি তার মূল্যবান সময় নষ্ট করে ব্লগ লিখেন, তাহলে পাঠকেরও উচিত লেখকেও সময়ের মূল্য দেয়া নাকি কিভাবে ফ্রিতে প্রিমিয়াম কনটেন্টগুলো পাওয়া যায় সেটার পেছনে লেগে থাকা?

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ অনলাইন মার্কেটিং এবং স্প্যামিং অনেক সময় মিলিয়ে যেতে দেখা যায়। কি কি বিষয়ে সতর্ক থেকে অনলাইন মার্কেটিং করা উচিৎ বলে মনে করেন?

জিন্নাত উল হাসানঃ অনলাইন মার্কেটিং আর স্প্যামিং কথা উঠলে “অল্প বিদ্যা ভয়ংকরী” কথাটি মনে পড়ে। বিশেষ করে দেখা যায়, অফিলিয়েট মার্কেটিং-এ দেখা যায় যে কিছুদিন পর পরই কেউ না কেউ একের পর এক রেফারেল লিংক ফেসবুক, টুইটার কিংবা ব্লগে বসিয়ে ফ্লাডিং করছে। বিষয়টি একে তো বিরক্তিকর, তেমনি টুইটার কিংবা ফেসবুকে একাউন্ট ব্যান হয়ে যেতে পারে।
প্রাসঙ্গিক স্থানেই কেবল রেফারেল লিংক বসানো উচিত। ধরুন আপনি হোস্টিংয়ের উপর ব্লগ লিখছেন, সেখানে লিংক বসিয়ে দিন। কিন্তু ফেসবুকে আপনি যেখানে বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করছেন আর আপনার ৯৯% বন্ধুই ব্লগ সম্বন্ধে জানেন না, সেখানে হোস্টিংয়ের লিংক দিয়ে লাভ কি?
আমি যখন আমার ক্লায়েন্টদের জন্য ডোমেইন, হোস্টিং কিংবা অন্য কোনো পন্য কিনি, তখনই রেফারেল লিংক দিয়ে কিনি। ফলে পারিশ্রমিকের সাথে সাথে রেফারেল থেকেও আয় হয়ে যায়।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ যেহেতু গুগল বাংলা ভাষার সাইটে বিজ্ঞাপন প্রদর্শণ করে না, আমাদের জন্য কি অনলাইন বাংলা বিজ্ঞাপন সংস্থার প্রয়োজন আছে, যারা সরাসরি বা সহজ পদ্ধতিতে

জিন্নাত উল হাসানঃ টাকা লেন-দেন করবে এবং বাংলা ওয়েবে বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের ব্যবস্থা করবে?
অবশ্যই। ই-কর্মাসের উন্নতির সাথে সাথে এই ধরনের প্রতিষ্ঠানগুলোর বিকাশ ঘটবে। তবে কোন ধরনের বিজ্ঞাপনগুলো জনপ্রিয় হবে এখনই বলতে পারছি না। পে-পার-ইম্প্রেশন কিংবা পে-পার-ক্লিক টাইপের বিজ্ঞাপনগুলোতে জালিয়াতি হবার সম্ভাবনা খুবই বেশি। এজন্য হয়তো পে-পার-একশ্যান ( সাইন-আপ কিংবা এফিলিয়েট লিংক) বিজ্ঞাপনগুলো সফল হবে।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ ব্লগিং এ কোন কোন বিষয়ে আমরা এখনো উন্নত বিশ্বের চেয়ে পিছিয়ে আছি বলে আপনি মনে করেন?

জিন্নাত উল হাসানঃ তথ্যপ্রযুক্তিতে পিছিয়ে থাকাটাই আমার চোখে সবচেয়ে বড় factor বলে মনে হয়। আমি লন্ডনে আছি প্রায় ৬ বছর, এখানে বসেই দেখতে পাই আমেরিকায় যে মোবাইল আজকে বের হচ্ছে, তা লন্ডনে কিংবা যুক্তরাজ্যে আসতে ২/৩ মাস লেগে যায়। আর বাংলাদেশে হয়তো কোনোদিনই শেষ হ্যান্ডসেটটি পৌঁছায় না। এখন আপনি যদি মোবাইলের উপর কোনো ব্লগ বানাতে চান, তাহলে হাতে না পেলে তার রিভিউ লিখবেন কেমন করে? আর এক বছর পরে যদি মোবাইলটি বাংলাদেশে পৌছায়, তারপর রিভিউ লিখলে কেউ কি সেই রিভিউটি পড়বে?

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ (যেহেতু আপনি বাংলাদেশ সহ বেশ কিছু দেশ ভ্রমণ করেছেন) ওয়েবব্লগ মানুষের মূল্যবোধের উপরে কি রকম প্রভাব ফেলছে বা ভবিষ্যতে এটা কিরকম প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করেন?

জিন্নাত উল হাসানঃ দেখুন এমন একটি কথা আছে যে, ক্যামেরা থাকলেই ফটোগ্রাফার হওয়া যায়, তবে হয়তো পেশাদারী ফটোগ্রাফার কখনই হওয়া যায় না। কিন্তু অপেশাদারী হাতে যে ফটোগুলো তুলছেন, সেটা হয়তো শিল্পমানে উন্নত হচ্ছে না, কিন্তু ছবিগুলো কিন্তু ঠিকই সেই সময়ের একটি ইতিহাসের টুকরো হিসেবে ফ্রেমবন্দী হয়ে গেলো। ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রেও তেমনটি ঘটে। ব্লগ থাকলেই ব্লগার হওয়া যায় না ঠিকই কিন্তু সে ব্লগগুলো সময়ের কথা বলে, ভনিতা ছাড়া মনের কথা বলে সেগুলো এনসাইক্লোপিডিয়ার চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ মিডিয়া হিসেবে ব্লগ কতটা গুরুত্বপূর্ন এবং ভবিষ্যতে এটি কেমন হতে পারে?

জিন্নাত উল হাসানঃ কিছুদিন আগেও ব্লগকে বিকল্প মাধ্যম হিসেবে গন্য করা হতো। এখন ধীরে ধীরে ব্লগিং কিংবা সোশাল ব্লগিং প্রধান মাধ্যমে রূপ নিচ্ছে। বছর খানেক আগেও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো অনেকটা SEO এর কারনেই বলতে গেলে ব্লগিংকে ওয়েবসাইটের কোনো একটি কোনায় জায়গা দিত। আর আজ ব্লগিং যেকোনো প্রতিষ্ঠানের public relation (pr) এর কাজে লাগছে। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো ব্লগার নিয়োগ করছে। PR agency গুলো রীতিমতো অনুষ্ঠান করে ব্লগারদের কাছে তাদের চাওয়া পাওয়া জানতে চাচ্ছে।
মানুষ আজ সংবাদপত্র পড়ছে ঠিকই সেইসাথে টুইটার কিংবা ফেসবুকে সংবাদের সত্যতা যাচাই করে নিচ্ছে। একটা কথাই চিন্তা করুন না, প্রথম আলো একটি সংবাদপত্র, এর কাজ হলো সংবাদ পরিবেশন করা। তাহলে ওদের ব্লগ খোলার প্রয়োজন হলো কেন?
কারন ব্লগের ফলে প্রথম আলো তাদের প্রকাশিত সংবাদ, ব্রেকিং নিউজগুলো বিষয়ে ব্লগার, লেখক পাঠকদের মন্তব্যের মাধ্যমে প্রতিক্রিয়া জানতে পারছে। সংবাদকে নতুনভাবে প্রকাশের কিংবা যাচাইয়ের মাধ্যম খুঁজে পাচ্ছে। খুবই সাম্প্রতিক একটি মাধ্যম হিসেবে ব্লগিংয়ের গুরুত্ব কি তাতে বৃদ্ধি পাচ্ছে না?

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ ব্লগিং নিয়ে আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

জিন্নাত উল হাসানঃ আগেই বলেছি নিয়মিত ব্লগিং করা খুবই অধ্যাবসায়ের কাজ, যা প্রায়শই আমার পক্ষে সম্ভব হয় না। যখন যে বিষয় ভাল লাগে, তাতেই ব্লগ খুলে বসি। কিন্তু চালিয়ে যেতে পারি না। একারনে যতটুকু জ্ঞান অর্জন করেছি, সেটাকে পুঁজি করে ব্লগিং এবং সোশাল মিডিয়াতে কাজ করতে চাই। সেই সাথে অর্গানিক SEO তে কম মনোযোগ দিয়ে PPC তে কনসালটেন্সী শুরু করার ইচ্ছে আছে।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ আগামী ৫ বছর পর, নিজেকে আপনি কোন পর্যায়ে দেখতে চান?

জিন্নাত উল হাসানঃ আমি ভাই এত লম্বা পরিকল্পনা করি না। তাই ৫ বছর পরের চিন্তা দূরে থাক, ৫ মাস পরে কি হবে তাই জানি না! দেখা যাক না, জীবন কোনদিকে যায়। আমি জীবনকে টানি না, জীবন আমাকে টেনে নিয়ে যায়…. হাহাহাহাহা।

ইন্টারভিউ ডেস্কঃ যেখানেই টেনে নিয়ে যায়, সেটি যেন ভাল কিছু হয় সেই শুভকামনা রইলো।

আপনাকে আমাদের মাঝে পেয়ে অনেক ভাল লাগলো। আপনার মূল্যবান সময় এবং মতামত গুলোর জন্য বিজ্ঞান প্রযুক্তি ডট কম এবং ইন্টারভিউ ডেস্ক এর পক্ষ থেকে অনেক শুভেচ্ছা এবং ধন্যবাদ।

comments

21 কমেন্টস

  1. প্রিয় ব্লগার সম্পর্কে অনেক কিছুই জানলাম আজ। সাথে অনেক গুরুপ্তপূর্ণ তথ্যও। ধন্যবাদ ইন্টারভিউ ডেস্ক। 🙂

      • কনক,

        ইন্টারভিউটি পড়ে ভাল লেগেছে শুনে আনন্দিত হলাম। দেখুন আমি সহজ করে কথা বলতে চেষ্টা করি। সহজ করে কথা বলাটাই কঠিন। নিজের এবং নিজের কাজ সম্বন্ধে যতটুকু জানি, তাই নিজের ভাষায় লিখেছি।

        শুভ কামনা রইল।

  2. বিজ্ঞান প্রযুক্তি ডট কম এর নতুন এই আয়োজন অসাধারণ। জিন্নাত উল হাসান ভাইয়ের সাথে কথোপোকথনে বাংলা ভাষায় ব্লগিং সম্পর্কে অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে এসেছে। বালা ভাষায় ব্লগিং কে টিকিয়ে রাখতে এবং এর গুণগত পরিবর্তন করতে এ ধরণের আলোচনা সব সময়ই চলা উচিৎ। ধন্যবাদ ইন্টারভিউ ডেস্ক ………

  3. আমার তো মনে হয়, সেটাই সবথেকে ভাল ব্লগ,যাতে সব রকমের আলোচনার পথ খোলা থাকে। বিজ্ঞান প্রজুক্তিকে এই ব্যাপারে উদ্যোগী হতে হবে।

  4. কতটুকু নতুন কিছু পাঠকেরা জানতে পেরেছেন জানি না, তবে প্রতিটি প্রশ্নের জবাবে আমি উত্তর honestly দিতে চেষ্টা করেছি।

    বাংলা ভাষাকে ইন্টারনেটে প্রতিষ্ঠা করতে চাইলে ইন্টারনেটে এর ব্যবহার আরও বহুগুনে বাড়াতে হবে, পড়তে হবে, লিখতে হবে, সার্চ করতে হবে। এজন্য আমরা যারা বাংলায় ব্লগিং এবং ওয়েব ডেভেলপমেন্টের সাথে জড়িত তাদের দায়িত্ব অনেক বেশি।

    বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি চমৎকারভাবে এ দায়িত্ব পালন করছে। তাই সকল পাঠকের সাথে সাথে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

    • apnar sathe ek mot hasan bhai ” ইন্টারনেটে এর ব্যবহার আরও বহুগুনে বাড়াতে হবে, পড়তে হবে, লিখতে হবে, সার্চ করতে হবে”

  5. জিন্নাত ভাইকে অনেক ধন্যবাদ এতো সুন্দর করে উপস্হাপন করার জন্য সেই সাথে এরকম আরো ইন্টারভিউ চাই।

  6. ইন্টারনেটে এর ব্যবহার আরও বহুগুনে বাড়াতে হবে, পড়তে হবে, লিখতে হবে, সার্চ করতে হবে”

  7. প্রথমে অশেষ অশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ব্লগকে এরকম একটা বিভাগ খোলার জন্য সেই সাথে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি জিন্নাত ভাইয়াকে, যিনি সহজ-সরল উপস্হাপনায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরেছেন। আর বিজ্ঞান-প্রযুক্তিকে অনুরোধ করে বলব মাসে অন্তত করে হলেও যেন একটা ইন্টরভিউ প্রকাশ করা হয়।

  8. খুব আগ্রহ আর আনন্দ নিয়ে পড়ছিলাম । যেন ছিলাম রূপকথার গল্পের তেপান্তরের মাঠে ! অনেক জ্ঞান ,অভিজ্ঞতা আমাদের এগিয়ে নিল ,আমাদের জানাকে সমৃদ্ধ করল । ইংরেজি কম জানা বা কম আতস্থ করা আমাদের দেশের বা শরীরের যে অংশ অতি উৎসাহী হয়ে পথ খুজে ফিরে তাদের জন্য এই ধরনের আলোচনা , প্রতিবেদনের । অনেক জানার আছে অভিজ্ঞ জনদের থেকে ।
    যারা সাতার জানে না ,তাদের কাছে ছোট্ট পুকুরও বিশাল নদী । তাই যারা জানে তারা অনেক মমতা নিয়ে এগিয়ে এলে বাংলাদেশ লাফিয়ে এগিয়ে যাবে ! গারমেন্স শিল্প যেমন সাহায্য ছাড়া দাড়িয়ে গেছে তেমনি স্বপ্ন পুরন করবে শিখিত মেধাবীদের দ্রুতই ।সেই দিন হয়ত দূরে নয় । আর যারা বিনামুল্যে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ,যারা পোস্ট লিখেও কোন ধন্যবাদ পর্যন্ত পান না ,তাদের স্মরণ করিয়ে দেই সেই গান টি ” হয়তবা ইতিহাসে তোমাদের নাম লেখা হবে না , , , , ” !

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.