আমার লেখা আনলাকি 13 টপিকে দেখিয়েছিলাম ১৩ এর অনেকগুলি কাকতালীয় বিষয়ের সমাহার। আজ সেই ধারাবাহিকতায় লিখতে বসেছি ১৩ এর আরো কিছু কাকতালীয় বিষয়, যা সরাসরি আমেরিকার সাথে জড়িত। তাই শিরোনাম দিয়েছি আমেরিকার 13 প্রীতি

এখানে সকলেই মনে রাখবেন এই ধরনের কাকতালীয় বিষয়গুলি শুধু ১৩ এর জন্যই প্রযোজ্য তা নয়, বরং অন্য যেকোনো সংখ্যাকে নিয়ে খুঁজলেও আপনি এই ধরনের অহরহ কাকতালীয় বিষয় খুঁজে পাবেন। তাই আবারো বলছি- “সংখ্যার কোনো ক্ষমতা নেই ভালো বা মন্দ করার, সকল সংখ্যাই নিরিহ সংখ্যা”।
তাহলে শুরু করা যাক…….

আমেরিকার পতাকা দেখেছেন সকলেই, পতাকাতে লাল আর সাদা রং এর স্টেপগুলি (Stripes) সকলেই দেখেছেন। কিন্তু আপনি কি জানেন এই স্টেপের সংখ্যা কত? মাত্র ১৩টি স্টেপ আছে পতাকাতে। আমেরিকা আদি বা original কলনি (colonies) ছিলো ১৩টি, আর এই ১৩টি কলনির প্রতিক পতাকার এই ১৩টি স্টেপ।

আমেরিকার পতাকাতে এখন দেখতে পাবেন ৫০টি তারা (stars), কিন্তু একসময় এই তারার সংখ্যাও ছিলো ১৩টা। দেখুন সেই ১৩ তারাযুক্ত পতাকাটি নিচে।

On June 14, 1777, the Marine Committee of the Second Continental Congress passed the Flag Resolution which stated: “Resolved, That the flag of the United States be thirteen stripes, the design is among the oldest of any U.S. flags.

এতো গেলো পতাকার কথা এবার আসা যাক প্রথম এক ডলারের কাগুজে নোটের (U.S. one-dollar bill) কথায়।

দেখুন এই নোটের ডান দিকে একটি ঈগলের ছবি আছে।

ঈগলের ছবি

(১) ঈগলটির মাথার উপরে একটি বৃত্তের মত দেখা যাচ্ছে। এই বৃত্তের ভিতরে আছে ১৩টি তারা।

(২) ঈগলটির বুকের সামনে লাল-সাদা স্টেপ আকা আছে, এই স্টেপের সংখ্যাও কিন্তু ১৩টি।

(৩) ঈগলটির ডান পাঁয়ের দিকে তাকান। একটি অলিভের ডাল ধরা আছে। গুণেফেলুন ১৩টি অলিভের পাতা আছে ডালটিতে।

(৪) এই ডালটিতে কিছু অলিভ ফলও দেখতে পাবেন, গুণলে পরে এদের সংখ্যাও হবে ১৩টি।

(৫) এবার আসুন ঈগলের বাম পাঁয়ে। কি দেখতে পাচ্ছেন? একগুচ্ছ তীর ধরা আছে। গুচ্ছ-টুচ্ছ নয় মনযোগ সহকারে গুণলে দেখবেন মাত্র ১৩টি তীরই আছে সেখানে।

(৬) ঈগলটি তার ঠোঁটে একটি রিবন বা ফিতা ধরে আছে, আর সেখানে লিখা আছে E Pluribus Unum। এখানেও ১৩টি অক্ষর আছে।
ঈগল কাহিনী এখানেই শেষ, এবার দেখুন নোটের বাম পাশেই আছে একটি পিরামিডের ছবি।

পিরামিডের ছবি

(১) গুণে দেখুন ১৩টি স্টেপ বা ধাঁপ আছে পিরামিডটির।

(২) আবার পিরামিডটির উপরের তিনটি স্টেপ বা ধাঁপের ইটের সংখ্যাও কিন্তু ১৩টিই।

(৩) পিরামিডের উপরে লেখা আছে ANNUIT COEPTIS। এইখানেও ১৩টি অক্ষর ব্যবহার করা হয়েছে।

(৪) পিরামিডের নিচের দিকে রিবন বা ফিতাতে লেখা আছে NOVUS ORDO SECLORUM। মাঝের ORDO টি বাদ দিলে NOVUS SECLORUM তে আছে ১৩টি অক্ষর।

(৫) NOVUS ORDO SECLORUM লেখাটি থেকে সবকটি “O” মুছে দিলে NVUS RD SECLRUM থাকে, যেখানে অক্ষর রয়েছে ১৩টি।

(৬) পিরামিডের সামনেই দেখুন কিছু ঘাসের গুচ্ছ আছে। এই ঘাঁসগুচ্ছের সংখ্যাও ১৩টি।

এসব দেখে অবাক হওয়ার কিছু নেই। খুঁজলে এমন হাজারো কাকতালীয় মিল আমরা বাংলাদেশেও বের করতে পারবো।

আরো কিছু টুকিটাকি-
আমেরিকায় প্রতি মাসের ১৩ তারিখে প্রায় ১০ কোটি ডলারের আর্থিক ক্ষতি হয় মানুষের ট্রেন ও বিমান যাত্রা বাতিল,কাজে যোগদান না দেয়া এবং অপেক্ষাকৃত কম বাণিজ্যিক কর্মকান্ডের জন্য।

আপনি জানেন কি, আমেরিকার বেশিরভাগ দালানেই ১৩নং ফ্লোর বলে কিছু নেই। অর্থাৎ ১২ তালা থেকে সরাসরি ১৪তালা গুণে ফেলে ওরা ১৩কে বাদ দিয়ে। ফলে ওদের লিফ্টগুলিতে ১৩নং বাটন থাকে না। মজার তাই না? আমেরিকার অনেক যায়গাতেই একই ভাবে ১৩নং রোড নেই, নেই কোনো ১৩নং বাড়িও।

হায়রে মানুষ- এতো আধুনিক তবুও এতটাই …….

comments

12 কমেন্টস

  1. বেশ মজার কাকতালীয়, এমন আরও লিখুন। আমার ভাল লেগেছে। ধন্যবাদ।

  2. বেশ মজার জিনিস, নতুন কিছু জানলাম, অসংখ্য ধন্যবাদ।
    চালিয়ে যান, নতুন কিছু জানার জন্য অপেক্ষায় থাকলাম।

  3. ভালো ভালো , ১৩ তো হল , এবার কোন সংখ্যা দেখাবেন ??? আপনার এ শুভাকাঙ্ক্ষী অপেক্ষায় রইল ।

  4. এইগুলো ফ্রী মেসন(Free Meson) দের সাইন। ফ্রী মেসন বোলতে দাজ্জাল এর বংশকে বোঝায়।

      • ফ্রী মেসনদের সম্পর্কে জানলে আপনি রীতিমত ভয় পাবেন।সারা প্রিথিবি নিয়ন্ত্রন করছে এরা। এরা শয়তানের বংশধর। আপনি free meson দিয়ে গুগল এ সার্চ দিন কিছুই পাবেন না। কারন সমস্ত কিছু নিয়ন্ত্রন করছে এরা। ওরা লর্ড আর আমরা স্লেভ। আপনি এই নিয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে রাইফেলস স্কয়ার এ গিয়া একটা ডিভিডি কিনে আনুন। নাম হল The Arrivals নেট এ পাবেন না। ডিভিডি’র কভার ওয়ান ডলার এর পিরামিডের ছবি। পিরামিডের ছবির মাঝে লক্ষ করুন শয়তানের চোখ আছে যাকে আমরা Egale Eye বলি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.