এপ্রিল থেকে এমন এক অবস্থায় পড়েছে ফেসবুক যাকে বলা হচ্ছে ‘কনটেন্ট কলাপস’। ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলতে আগের প্রোফাইল চালাতে ব্যবহারকারীদের নিজের সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য প্রদান করতে হয়।

আর এ কাজটি করতেই চাচ্ছেন না তারা। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা নিজের কোনো তথ্যই দিতে চাইছে না ফেসবুককে।পাশাপাশি যেসব তথ্য ইতিমধ্যে দিয়েছেন, তার মাধ্যমে বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো আপনাকে খুঁজে নেবেন।

সেপ্টেম্বর থেকে প্রোপাবলিকা ফেসবুকের ৫২ হাজার ফিচার সংগ্রহ করেছে। এসব অনন্য ফিচারের মাধ্যমে ফেসবুক তার ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে। বিভিন্ন ধরনের তথ্য থাকে এখানে। বিভিন্ন উৎস থেকে এসব তথ্য নেয় ফেসবুক এবং তা থার্ড-পার্টিগুলো সংগ্রহ করে থাকে।

কিন্তু যে বিষয়টি সবাই জানেন না তা হলো, বাণিজ্যিক যেটা ব্রোকাররা ফেসবুক ব্যবহারকারীদের আচরণসংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে। এর মধ্যে রয়েছে ব্যবহারকারী কোন রেস্টুরেন্ট পছন্দ করেন, কোন ধরনের স্থানে বেশি ভ্রমণ করেন এবং তার শখ ইত্যাদি। ফেসবুকে কেউ কোন মুভি পছন্দ করেন তা জানানোর পর বা কারো পোস্টে লাইকের ছয়টি অপশন থেকে একটি বেছে নেওয়ার পর সেই তথ্য সংগ্রহ করে এই ব্রোকাররা। এসব তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই ডেটা ব্রোকাররা বুঝে নেন, কার কাছে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন পৌঁছাতে হবে। কিন্তু কোনো ফেসবুক ব্যবহারকারী ওই ব্রোকারদের কোনো ডেটা সংগ্রহ করতে পারেন না।

এই বিরক্তিকর বিজ্ঞাপন বন্ধ করতে হলে কোনো উপায় নেই। কেবল ব্যবহারকারীকে ডেটা ব্রোকারদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। ‘ফেসবুকস হেলপ সেন্টার’ নামের একটি পেজও রয়েছে। সেখানে ডেটা ব্রোকারদের সঙ্গে যোগাযোগের নম্বর দেওয়া আছে। এরা মানুষের তথ্য সোশাল মিডিয়ার কাছে বিক্রি করে থাকে।

তবে বাস্তবতা আরো অনেক জটিল। অধিকাংশ ব্রোকার কারো তথ্য না নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে দীর্ঘ সময় খরচ করে। এর পরও আপনি নিশ্চিত হতে পারবেন না যে, তারা আপনাকে নজরদারি থেকে মুক্ত রেখেছে।

তাই নিজের সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য অন্যের কাছে না তুলে দেওয়ার একমাত্র উপায়, ফেসবুকে যতটা পারা যায় কম তথ্য দেওয়া। কিংবা ফেসবুক ব্যবহার করাই বন্ধ করে দিতে হবে। আর এ কারণেই এখন ব্যবহারকারীরা ফেসবুককে মোটেও তথ্য দিতে চাইছেন না।
 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.