সময়ের সাথে সাথে আমাদের যোগাযোগের ব্যবস্থাটাও পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে। এখন সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে আমাদের নিত্য দিনকার বসবাস। এখানেই আমারা আমাদের বন্ধুদের জানাই আমরা কোথায় আছি, কি করছি, রাতের খাবারে কি খাচ্ছি এমন সব সবকিছুই! আপডেট পোস্ট করি বিভিন্ন সাম্প্রতিক ইভেন্টের উপর এবং আমাদের ভাল লাগা বিভিন্ন আর্টিকেল শেয়ার করি ( এই কাজে যেনো কখনোই দ্বিধান্বিত না হন, লেখা পছন্দ হলে অবশ্যই সব সময় শেয়ার করবেন সবার সাথে 😛 )

social1কিন্তু ফেসবুক, টুইটার, ফ্লিকার দাদার আমলের মাইস্পেস এগুলো ব্যবহার করার সময় কখনো কি ভেবেছেন কিভাবে আমাদের এই প্রতিদিনকার অভ্যাসগুলো নিজেদের কাজে লাগানো য়ায়? ঠিক এই জায়গায়ই চলে আসে বিশেষায়িত সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোর কৃতিত্ব (বানান!)। রান্না করতে ভালো লাগে? লোকজন কখন কি কিনলো সেটা জানতে পছন্দ করেন? বিশ্বব্যাপী ক্ষুধার্ত লোকগুলোকে সাহায্য করতে চান কিন্তু নিজের একার সাধ্যে কুলায় না? এইসব প্রত্যেকটা কাজের জন্য আলাদা আলাদা নেটওয়ার্ক আছে এবং সংক্যার দিক দিয়েও সেগুলো প্রচুর। আজকে আমি আপনাদের এরকমই ৫ টি বিশেষায়িত সামাজিক যোগাযোগের নেটওয়ার্কের সাথে পরিচয় করিয়ে দিব।

BakeSpace

bakespace1ব্যাকস্পেস প্রথম অফিশিয়ালি লঞ্চ করা হয় ২০০৬ সালের আগস্ট মাসে। লঞ্চ করেন মিডিয়া প্রডিউসার Babetee Pepja. এটা ঘাটলে দেখা যায় এটা নামের পাশাপাশি অন্যান্য দিকেও প্রচুর হিন্ট নিয়েছে মাইস্পেস থেকে। এটা মূলত যারা খেতে পছন্দ করেন এবং খাবার বানাতে পছন্দ করেন তাদের সবার জন্য একটা বিশেষায়িত নেটওয়ার্ক। এখানে আপনি আপনার ছবি এবং ভিডিওগুলো আপলোড করতে পারবেন, ব্লগ  লিখতে পারবেন, অন্যদের সাথে বন্ধুত্ব করতে পারবেন এবং নিজের রেসিপি বানাতে পারবেন। এটা বিশেষ নামের অধীনে আপনাকে নিজের ইচ্ছামত ফিচার ডেভেলপ এবং কাস্টমাইজেশনের সুবিধা দেয়, যেমন আপনার নিজস্ব “অনলাইন কিচেন” এবং ভার্চুয়াল প্যানট্রিতে ( ফোরাম ) ঘোরার সুযোগ করে দেয়। যারা রান্না করতে পছন্দ করেন এবং পছন্দ করেন নিজের রেসিপি রান্নার অভিজ্ঞতা সবার সাথে শেয়ার করা তাদের জন্য একটা অসাধারণ  অনলাইন কমিউনিটি এটা।

লিংকঃ http://bakespace.com/

Blippy

blippy1লোকজন কি শপিং করছে তা জানার জন্য আলোচনার জন্য সহজ এবং মজার একটা জায়গা হচ্ছে ব্লিপ্পি। এটা মূলত কাজ করে এভাবে, আপনি কি কেনাকাটা করলেন তা পোস্ট করবেন নির্বাচিত দোকানগুলোর স্ট্রীমে। এদিক থেকে টুইটারের সাথে এটার অনেক মিল। কিন্তু এটা শুধুমাত্র বিভিন্ন পণ্য বিষয়ক। এটা আশ্চর্যজনক ভাবেই আসক্তিকর যে আপনার পরিবারের লোকজন, বন্ধুবান্ধব, প্রিয়জন কি কেনাকাটা করল, কি তাদের পছন্দ।  অথবা শুধু অন্যদের পছন্দগুলো ব্রাউজ করে দেখতে পারেন।

লিংকঃ http://blippy.com/

Kiva

kiva1বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের লোকজনের সাথে যোগাযোগ করতে চান? সবার সাথে মিলেমিশে কারও জীবনে বিরাট কোন পরিবর্তন আনতে চান? ঠিক এজন্যই Kiva কে বানানো হয়েছে। মূল আইডিয়াটা এরকম, কমিউনিটি এবং সোশাল নেটওয়ার্কিংএর শক্তি ব্যবহার করে দারিদ্র্য থেকে বের হয়ে আসার জন্য কাউকে সহায়তা করা, বিশ্বব্যাপী গরীব লোকদের সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যাতে তাদের একটা ব্যাবসা শুরু করার মত ফান্ডিং করা যায় বা তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করা যায়।

সর্বনিম্ন লোন হচ্ছে ২৫ ডলার। এটা অন্য লীডারদের ফান্ডে ডোনেট করা যায় কারও স্বপ্নকে সত্যি করার কাজে ফান্ডিং করার জন্য, পৃথিবীর একেবারে দরিদ্রতম এলাকায় যেমন আফ্রিকা দ্ক্ষিণ আমেরিকা এরকম এলাকায়। এটাকে ডোনেশন না বলে লোন বলার কারণ হচ্ছে কিভার সাথে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পার্টনারশীপ রয়েছে, যাতে ওরা আপনার টাকাটা ফিরিয়ে দিতে পারে, এটা নিশ্চিত করার জন্য।আপনি আপনার লীডার পেজ তৈরী করবেন, কাকে ধার দিবেন সেটা ঠিক করবেন, বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানাবেন মেসেজ শেয়ার করবেন এবং সবাই মিলে স্পন্সর করবেন।

আপনি আগে থেকে থাকা যে কোন কিভা গ্রুপে জয়েন করতে পারেন, অথবা নিজের গ্রুপ তৈরী করে তাতে সবাইকে ইনভলব করতে পারেন।

লিংকঃ http://www.kiva.org/

Flixter

flixter1মুভি দেখতে ভালোবাসেন? ভালোবাসেন এগুলো নিয়ে কথা বলতে, এদের সম্পর্কে জানতে, এদের নিয়ে কমেন্ট শেয়ার করতে? তাহলে ফ্লিক্সটার আপনার জন্যই। যদিও এটার বয়স মাত্র তিন বছর তারপরও ফ্লিক্সটার ইতিমধ্যেই ওয়েব জগতে সবচেয়ে বড় মুভি সাইটগুলোর মাঝে একটায় পরিণত হয়েছে। তাদের এই মুহূর্তে রয়েছে ১৫ মিলিয়ন ইউনিক ভিজিটর এবং ২ বিলিয়নের মত মুভি রেটিংস।

লিংকঃ http://www.flixster.com/

deviantART

deviantart2পৃথিবীর সবচেয়ে বড় আর্ট ওয়েসাইটগুলোর মাঝে ডেভিয়ানআর্ট একটা। এদের বর্তমানে ১০০ মিলিয়ন আর্টের কাজ রয়েছে সংগ্রহে, আ ছে ১৯০ টা দেশ থেকে ১২ মিলিয়ন সদস্য। আপনার সৃষ্টিগুলো সবার সাথে শেয়ার করার জন্য এটা একটা বিশাল ওয়ে। হতে পারে আপনার পেইন্টিং, ক্রাফট, ডিজিটাল আর্ট এমনকি ম্যানগা। যারা গ্রাফিক্সের কাজ করে তাদের মাঝে একটা কথা খুব প্রচলিত আছে যে, আপনি যদি ডেভিয়ান আর্টে না যান তবে কোনদিনই আপনার গ্রাফিক্স শেখা পরিপূর্ণ হবে না। ডেভিয়ানআর্টের আরেকটা উল্লেখযোগ্য ফিচার হচ্ছে ডেভিয়ানআর্ট শপ। এখানে আপনি আপনার কাজগুলো খুব সহজেই বিক্রি করতে পারবেন।

পৃথিবীতে কেউই সত্যিকার অর্থে একা নয়। কোথাও না কোথাও এমন লোকদেন গ্রুপ আছেই যারা ঠিক আমাদের মত করেই চিন্তা করে, একই বিষয় শেয়ার করে, আমাদের মত একই জিনিস নিয়ে উত্তেজিত হয়। এখন ইন্টারনেট আমাদের হাতের মুঠোয় হাজারটা উপায় এনে দিয়েছে এই লোকগুলোকে খুজে বের করার জন্য। তাহলে আপনি কোন বিশেষায়িত সোশাল নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত?

ধন্যবাদ সবাইকে। ভাল থাকুন।

comments

205 কমেন্টস

  1. বাবর ভাই সাইড গুলোর সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

  2. পড়ে অনেক ভাল লাগলো । ধন্যবাদ………………………

  3. Level heuer imitation insists on highest quality aluminum found in watches, it is one of the factors behind the enchanting good looks of Label heuer replica watch. A functioning male wears Label heuer Replica watch, because recognizes that in fleet of work wherever accurate is significant, he could depend upon its exact time trying to keep as well as longevity.
    fieldjustice

  4. I do agree with all of the ideas you have offered in your post. They are very convincing and will definitely work. Nonetheless, the posts are very quick for novices. May you please lengthen them a little from next time? Thank you for the post.
    casastds.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.